শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:২১ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
কুঁড়িপাড়ায় মসজিদ কমিটি নিয়ে উত্তেজনা পুলিশের উপস্থিতিতে হাতাহাতি শারীরিক মিলন নিয়ে ১৫টা অজানা সত্যি তথ্য জেনে নিন নারীকে কাম উত্তেজিত ও দীর্ঘ সময় মিলনের সহজ উপায় দুই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসির দায়িত্বে রেজিস্ট্রার, ক্ষোভ-বিক্ষোভ অসন্তোষ শেখ ফজলুল হক মনি: যুব রাজনীতির স্থপতি এএসপিআই প্রতিবেদন মুসলিম নিধনে বেপরোয়া চীন বিতর্কিত কৃষি বিলের প্রতিবাদ ভারতজুড়ে কৃষকদের বিক্ষোভ ফের উত্তপ্ত মালয়েশিয়া, সরকার পরিবর্তনের ইঙ্গিত ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভাতিজির প্রতারণা মামলা সাত দেশে বাংলাদেশি কর্মীদের চাহিদা বেশি দুমকিতে পল্লীবিদ্যু গ্রাহক হয়রানীর প্রতিবাদে মানববন্ধন বুড়িগোয়লিনি ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে এ্যাড জহুরুল হায়দারকে ফুলেল শুভেচ্ছা বিসিকের প্রাচীর নির্মানেও নিম্নমানের ইট-বালি তানোরে খাদ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদুকের মামলা আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু যুব পরিষদ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার ২১ সদস্য কমিটি অনুমোদন

অন্ধের দেশে আয়না বিক্রী করতে এসেছেন মিলন সাহেব, ,,,

নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তরে ছিলেন। দুই দফায় নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ছিলেন। তবে তার আত্মীয় – স্বজনদের মধ্যে কেও নিয়োগ পায় নাই। কিন্তু সততার কারণে টিকে থাকতে পারেন নাই সেইখানে।
উনি যে মন্ত্রণালয়েই গিয়েছেন, আগাছা সাফ করে সেই মন্ত্রণালয়কে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন
হার্টের রিং বাণিজ্য বন্ধের পিছে এই মিলন ভাইয়ের অক্লান্ত পরিশ্রম আছে
দেশ থেকে ফরমালিন দূর করতে তার অবদান এখনও অনস্বীকার্য
ঘন চিনির নামে রাসায়নিক আমদানি একমাত্র তিনিই বন্ধ করতে পেরেছিলেন
এই গত সপ্তাহেও বিকাশের প্রতারণা বন্ধের জন্য মাল্টি ডিভাইস লগ ইন বন্ধ করাটা উনার হাত দিয়েই শুরু হয়েছে
উনি সব সময়ই ভোক্তা অধিকার নিয়ে সরব ছিলেন
আমাদের জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে রীতিমত রাস্তায় নেমে যুদ্ধ শুরু করেছিলেন ।
বদলি হলেন রেলের অতিরিক্ত সচিব হিসেবে। উনার প্রচেষ্টায় চালু হয়েছিল বাংলাদেশ রেলওয়ের এপস। অনলাইন টিকিট কাটায় এসেছিল আমূল পরিবর্তন।
.
রেলে এসেই ঢেলে সাজাতে চাইলেইন রেলকে। ওনার প্রচেষ্টায় টিকিট কালোবাজারিদের মাথায় হাত বসল। দীর্ঘদিন নিয়োগ বন্ধ থাকা রেলে ১৫ হাজার কর্মী নিয়োগের ঘোষণা আসল। ঘোষণা দিলেন একটা নিয়োগেও এক পয়সা ঘুষ লাগবে না। নিয়োগ বাণিজ্য বন্ধ রোষানলে পড়লেন সংশ্লিস্টদের।
.
চীনে থাকা একজনের সাথে যোগাযোগ করে চীনের রেলওয়ে সিস্টেম সম্পর্কে খোঁজ নিলেন। কাজে লাগালেন ইউরোপে থাকা বন্ধুদেরও। সেখান থেকেও নিলেন ওদের সিস্টেমের আদ্যোপান্ত। সিদ্ধান্ত নিলেন প্রত্যেকটা বগিতে বসবে সিসি ক্যামেরা। কিন্তু ক্যামেরা বসলে যে দুর্নীতির পথ বন্ধ হয়ে যাবে!
.
শুধু রেলের দুর্নীতি নিয়েই ভাবেন নাই। ওনার ভাবনা ছিল পুরো দেশ নিয়ে। ওনার প্রচেষ্টায় বিকাশে বন্ধ হল মাল্টি ডিভাইস লগ ইন। এখন আর আপনার পিন জানলেও কেও বিকাশ থেকে টাকা মারতে পারবে না। কথা বললেন ইভ্যালির গ্রাহক হয়রানি নিয়ে৷ সিইও রাসেল সাহেব ফোন দিয়ে ওনাকে সরি বললেন।
.
কিন্তু এত কিছু যে ব্রিটিশ আমল থেকে গড়ে উঠা সিন্ডিকেটের সহ্য হচ্ছিল না। উঠেপরে লাগলেন ওনাকে সরানোর জানা জন্য। ফলাফল তাকে ওএসডি হতে হল। নতুন জায়গায় বদলি হলেও হাতে থাকল না কোন ক্ষমতা। অফিসে যাবেন, হাজিরা খাতায় সই করবেন, বাড়ি ফিরে আসবেন।
দুর্ণীতির কারণে ওএসডি হলে খুশী হতাম কিন্তু দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করতে গিয়ে হয়রাণীর শিকার হলে আমাদের করণীয় আছে,,,
তবে আমরা পাশে দাঁড়ালে হয়ত মানুষটা আবার আমাদের পাশে দাঁড়াতে পারবেন। অনলাইনে প্রতিবাদ করেই ঠেকানো গিয়েছিল আড়ংকে জরিমানা করা মঞ্জুর শাহরিয়ার স্যারের বদলির আদেশ। আমরা চেষ্টা করলে হয়ত মাহবুব কবির মিলন স্যারের বদলির আদেশও বদলাবে। আমরা যদি পাশে না দাঁড়াই তাহলে তারাও আর কোনদিন আমাদের পাশে দাঁড়াবেন না।
।আসুন সবাই শেয়ার করে ভালো কাজের সহায়তা করি।
ফেজবুক থেকে

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37491650
Users Today : 5679
Users Yesterday : 6154
Views Today : 15712
Who's Online : 38
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone