দেশের সংবাদ l Deshersangbad.com » অবশেষে বেরিয়ে আসলে তাসফিয়া হত্যার মূল রহস্য



অবশেষে বেরিয়ে আসলে তাসফিয়া হত্যার মূল রহস্য

৯:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টে ১৬, ২০১৮ |জহির হাওলাদার

4136 Views

কর্ণফুলীর তীরে লাশ উদ্ধারের পর তাসফিয়া আমিনের স্বজনরা খুনের সন্দেহ করলেও তদন্ত শেষে পুলিশ বলেছে, আত্মহত্যা করেছেন এই স্কুলছাত্রী। রোববার (১৬ সেপ্টেম্বর) তাসফিয়া আমিন হত্যা মামলার প্রতিবেদন চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. ওসমান গণির আদালতে উপস্থাপনের জন্য প্রসিকিউশন শাখায় জমা দেওয়া হয়েছে।স্কুলছাত্রী তাসফিয়া আমিন পানিতে নেমে ‘আত্মহত্যা’ করেছে উল্লেখ করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।‘তাসফিয়া আমিন হত্যা মামলার ফাইনাল রিপোর্ট জমা দিয়েছে নগর গোয়েন্দা পু্লিশ। নগর গোয়েন্দা পুলিশের রিপোর্টে তাসফিয়ার মৃত্যু পানিতে ডুবে হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।’ চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্তী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এতে বলা হয়েছে, ‘প্রত্যক্ষদর্শী ৬ জনসহ ১৬ জন সাক্ষীর কাছ থেকে পাওয়া তথ্য ও জবানবন্দি, ময়নাতদন্তের ভিসেরা রিপোর্টের ভিত্তিতে তাসফিয়ার মৃত্যু হয়েছে, পানিতে নেমে আত্মহত্যা করে।’নগর গোয়েন্দা পুলিশের (বন্দর) সিনিয়র সহকারী কমিশনার আসিফ মহিউদ্দীন বলেন, প্রত্যক্ষদর্শী ৬ জনসহ ১৬ জন সাক্ষীর কাছ থেকে পাওয়া তথ্য ও জবানবন্দি, ময়নাতদন্তের ভিসেরা রিপোর্টের ভিত্তিতে তাসফিয়ার মৃত্যু হয়েছে পানিতে নেমে আত্মহত্যা করেছে বলে আমাদের তদন্তে উঠে এসেছে।গত ১ মে বিকালে বন্ধুর সঙ্গে বেড়াতে বের হয়ে আর বাসায় ফেরেনি নগরের সানশাইন গ্রামার স্কুলের নবম শ্রেণীর ছাত্রী তাসফিয়া আমিন। পরদিন সকালে পতেঙ্গায় কর্ণফুলী নদীর তীর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।চূড়ান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ১ মে তাসফিয়া তার বন্ধু প্রেমের এক মাস পূর্তি পালন করতে সন্ধ্যা ৬টায় চায়না গ্রিল রেস্তোরাঁয় গিয়েছিলেন। তখন তাসফিয়ার মা তাকে খুঁজে না পেয়ে ওই তরুণের বন্ধুকে ফোন করেন।

চূড়ান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, আদনানের সাথে সম্পর্কটি তাসফিয়ার পরিবার জানতে পেরে তার কাছ থেকে মোবাইল ও সিম নিয়ে ফেলেন। তারপরও তারা গোপনে যোগাযোগ রাখছিলেন।চায়না গ্রিলের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে পুলিশ আগে জানিয়েছিল, সেখান থেকে বেরিয়ে দুজন দুটি অটোরিকশায় করে দুদিকে চলে গিয়েছিলেন।চূড়ান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘটনার দিন তাসফিয়ার ধারণা হয়েছিল, তার মা সব জেনে গেছেন।“সেই ভেবে সে (তাসফিয়া) পতেঙ্গা নেভাল বিচে চলে যায়। কিছুক্ষণ আইল্যান্ডে বসে থেকে সে নদীর পাড়ে পাথরের উপর গিয়ে বসে। রাত সাড়ে ৮টার দিকে কর্ণফুলী নদীর দিকে তাসফিয়া হেঁটে যায় এবং তারপরই একটি চিৎকারের শব্দ আসে।”তাসফিয়া চায়না গ্রিল থেকে বেরিয়ে যে অটো রিকশায় উঠেছিল, তার ছবি পাওয়া গেলেও নম্বর শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ; পাওয়া যায়নি চালককেও।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উপদেষ্টা পরিষদ:

১। ২।
৩। জনাব এডভোকেট প্রহলাদ সাহা (রবি)
এডভোকেট
জজ কোর্ট, লক্ষ্মীপুর।

৪। মোহাম্মদ আবদুর রশীদ
ডাইরেক্টর
ষ্ট্যান্ডার্ড ডেভেলপার গ্রুপ

প্রধান সম্পাদক:

সম্পাদক ও প্রকাশক:

জহির উদ্দিন হাওলাদার

নির্বাহী সম্পাদক
উপ-সম্পাদক :
ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলাম সবুজ চৌধুরী
বার্তা সম্পাদক :
সহ বার্তা সম্পাদক :
আলমগীর হোসেন

সম্পাদকীয় কার্যালয় :

১১৫/২৩, মতিঝিল, আরামবাগ, ঢাকা - ১০০০ | ই-মেইলঃ dsangbad24@gmail.com | যোগাযোগ- 01813822042 , 01923651422

Copyright © 2017 All rights reserved www.deshersangbad.com

Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com

Translate »