শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:৪০ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
আত্রাই বাঁধ উচ্ছেদে ঋণগ্রস্ত মৎস্যচাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত শার্শায় ছিনতাইকৃত টাকা একটি পিস্তল সহ তিন ছিনতাইকারী আটক আঁখি আলমগীরের স্ট্যাটাসটি কার সাথে কার পরকীয়া এসব ভেবে মাথা নষ্ট করবেন না বুক চিতিয়ে গুলি খাবার জন্য পুলিশকে অস্ত্র দেয়নি সরকার: বেনজীর অসহায় রোগীদের নিজের টাকায় সেবার ব্যবস্থা করে প্রশংসিত হয়েছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কনস্টেবল শওকত- রাজধনীতে চলছে ৫থেকে ৭ হাজার টাকায় ঝমঝমাট স্বামী বাণিজ্য! লিঙ্গান্তর ঘটিয়ে পুরুষ থেকে নারীতে রূপান্তরিত হলেন দুই জমজ ভাই আমা’র মে’য়ে কোন ভুল করেনি, এত বাড়াবাড়ি করছেন কেন: তামিমা’র মা তামিমার মুখোশ খুলে লাভ আমার একার না, সমগ্র পুরুষ জাতির : রাকিব নারীর ৮টি গো*পন অঙ্গভঙ্গি যা একজন পুরুষকে পাগল করে স্বামীর ম’রদেহের সঙ্গে রাত কাটিয়ে সকালে অফিসে! দেশের প্রথম ‘ছেলে সতীন’ হিসেবে গিনিস বুকে নাম লেখাতে চান নাসির হোসাইন! এবার প্রবাসীদের ব্যাগেজ রুলে আসছে পরিবর্তন, শুল্কছাড়ে যত ভরি স্বর্ণ আনতে পারবে প্রবাসীরা যে চার ধরনের শা’রীরিক মিলন ইসলামে নি’ষিদ্ধ !!বিজ্ঞানী বু-আলী ইবনে সীনা নারীদের যে ৮টি কথা বললে তারা আপনাকে মাথায় তুলে রাখবে…

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ফারুক চৌধূরীর বিকল্প নাই

আলিফ হোসেন, তানোর
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল আগামী ৪ ডিসেম্বর বুধবার অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে সভাপতি পদে বিশ¯ত্ত এবং আদর্শিক নেতৃত্ব হিসেবে দলের সভাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, নীতিনির্ধারক মহল ও তৃণমূলে পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছেন এমপি আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরী। রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এখানো তার বিকল্প তেমন কোনো নেতৃত্ব গড়ে উঠেনি তাই তার কোনো বিকল্প নাই। স্থানীয় রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের ভাষ্য, রাজশাহী বিএনপি-জামায়াতের ঘাঁটি ও বিভাগীয় শহর এখানে আওয়ামী লীগের মতো এতো বড় দলের নেতৃত্ব দিতে যেই পরিমাণ জনবল-কর্মী-বাহিনী, আর্থিক স্বচ্ছলতা, আদর্শিক-বিশস্ত, পারিবারিক ঐতিহ্য, সামাজিক পরিচিতি, রাজনৈতিক দূরদর্শীতা ও সাহসিকতা ইত্যাদি প্রয়োজন সেটা কেবলমাত্র এমপি ফারুক চৌধূরীরই রয়েছে। এছাড়াও বিএনপি-জামায়াতের দূর্গে আওয়ামী লীগ ছিল কলাগাছ (দুর্বল) তিনি তার রাজনৈতিক দূরদর্শীতায় সেই কলাগাছকে বটগাছে (শক্তিশালী) পরিণত করেছেন। এসব বিবেচনায় তিনি আবারো জেলা সভাপতি হচ্ছেন এটা প্রায় নিশ্চিত বলে মনে করছে তৃণমূলের নেতাকর্মীগণ। এদিকে দলের নীতিনির্ধারণী মহল সভাপতি পদে এমপি ফারুককে সবুজ শঙ্কেত দিয়ে প্র¯ত্ততি নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বলে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনা রয়েছে। অথচ রাজনৈতিক প্রতিযোগীতায় তার সঙ্গে টিকতে না পেরে প্রতিপক্ষরা মিথ্যাচার করছে জেলা সভাপতি হলেও তিনি বিভিন্ন উপজেলার কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন না। তাদের অভিযোগ বা যুক্তি যদি সঠিক হয় তাহলে তো দলের সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেশের সকল জেলায় অনুষ্ঠিত দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে হবে কারণ তিনি দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি। কিšত্ত আসলে সেটা সম্ভব কখানোই না তাছাড়া এমপি ফারুক চৌধূরী যদি দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ না করেন তাহলে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে এতো শক্তিশালী হয়েছে কিভাবে। আবার জেলা সভাপতি হিসেবে যদি প্রতিটি উপজেলায় অনুষ্ঠিত কর্মসূচি তাকেই করতে হয় তাহলে উপজেলা কমিটির কাজ কি।
জানা গেছে, এমপি ফারুক চৌধূরী রাজশাহী চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি এবং উদ্যেক্তা ও সফল ব্যবসায়ী তিনি প্রায় কুড়ি বছর সফলতার সঙ্গে রাজশাহী আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন, একটানা তিন বার এমপি নির্বাচিত হয়ে একবার শিল্প প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তার এই দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে (কুড়ি বছর) তিনি এমপি হয়ে একজন, ব্যবসায়ী হয়ে একজন ও রাজনৈতিক নেতা হিসেবে একজন অর্থাৎ তিনস্তর থেকে একজন করে প্রতিদিন যদি তিনজন মানুষের উপকার করে থাকেন তাহলেও তিনি কুড়ি বছরে ২১ হাজার ৯০০ মানুষের সরাসরি উপকার করেছেন। রাজনৈতিক অঙ্গনের এই মানুষগুলো তো এখানো তার সঙ্গেই রয়েছে। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে তাঁর এতো ইতিবাচক অবদান থাকার পরেও যদি তিনি সভাপতির দায়িত্ব না পায় তাহলে যারা তার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও বিরোধীতা করছে তাদের এমন কি ইতিবাচক অবদান রয়েছে সেটা তারা দেখাক এই জনপদের মানুষ সেটা দেখতে চাই, দেখাবার মতো একটিও ইতিবাচক উদাহারণ তারা দেখাতে পারবে না। তাহলে কেনো তারা এমপি ফারুকের মতো হেভিওয়েট নেতার নেতৃত্ব প্রশ্নবিদ্ধ করে মিথ্যাচার করছে নেপথ্যে অন্যকিছু রয়েছে। অন্যদিকে এমপি ফারুক নেতৃত্বে আশার পর আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন তিনি যেকোনো রাজনৈতিক দলের কাছে বিশাল সম্পদ বলে বিবেচিত, তবে এমন একজন পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজ সম্পন্ন আদর্শিক, কর্মী-জনবান্ধব নেতাকে যেনো জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব দেয়া না হয় সেই দাবী করা হয়েছে, এসব দাবী করেছে কারা যারা বিভিন্ন সময়ে টেন্ডারবাজী, দখলবাজী, দলীয় কর্মসুচির নামে চাঁদাবাজী, দলব্যবসা, দল, নেতা ও নেতৃত্বের সঙ্গে বেঈমানী করেছে তারা বলে তৃণমূলে আলোচনা রয়েছে। কিšত্ত কেনো কি তার অপরাধ সেই ব্যক্ষা তাদের কারো কাছে নাই, তবে যারা এমন দাবী করেছে তাদের রাজনৈতিক অবস্থান, পরিচয় ও উদ্দেশ্যে কি সেটা এই জনপদের দলমত নির্বিশেষে সব শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে স্পস্ট হয়ে উঠেছে। এমপি ফারুক চৌধূরী জেলা আওয়ামী লীগকে দীর্ঘদিন ধরে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন তিনি হয়তো সকলের সব আবদার পূরুণ করতে পারেননি তায় তার বিভিন্ন কাজ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হতেই পারে এটা যেমন স্বাভাবিক। তেমনি জামায়াত-বিএনপির দূর্গে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে তার যে অবদান সেটাও অস্বীকার করা বা বির্তকের কোনো সুযোগ নাই, আবার তার রাজনৈতিক দূরদর্শীতা ও নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলারও কোনো সুযোগ নাই। তিনি আওয়ামী লীগে নেতৃত্ব দেবার আগের ও পরের অবস্থান বিশ্লেষণ করলেই সেটার প্রমাণ পাওয়া যাবে এটার জন্য রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ হবার কোনো প্রয়োজন নাই। এব্যাপারে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণবিষয়ক সম্পাদক শরিফ খাঁন বলেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরীর কোনো বিকল্প নেই। তিনি বলেন, তৃণমূল নেতাকর্মীদের পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছেন ফারুক চৌধূরী তাই তিনিই হচ্ছেন সভাপতি এ নিয়ে সন্দেহের কোনো অবকাশ নাই, তিনি বলেন, বিষয়টি ইতমধ্যে আমরা দলের নিতীনির্ধারক মহলকে অবগত করেছি আর ফারুক চৌধূরী ব্যতিত এক সময়ের জামায়াত-বিএনপির দূর্গ রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে কল্পনাও করা যায় না।
তানোর প্রতিনিধি

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38327449
Users Today : 4046
Users Yesterday : 3953
Views Today : 11021
Who's Online : 35
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/