মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
মে’য়েরা প্রথমবার স’হবাসের জন্য কোন বি’ষয় গুলো গভীর ভাবে চিন্তা করে জেনে নিন বী’র্যপাত বন্ধ রে’খে বে’শী সময় যৌ’ন মি’লন ক’রার সেরা প’দ্ধতি বিবাহিত অথবা অবিবাহিত সকলের পড়া উচিৎ- এক করুণ কাহিনী দী’র্ঘ ২০ মি’নিটের ভি’ডিও ক্লি’পটি ছ’ড়িয়ে প’ড়ে’ছে হাসপাতালের ডাক্তার-নার্স এবং ক’র্মকর্তা-ক’র্মচারী’দে’র হাতে হাতে ফুলশ’য্যার রাতের গল্পটি পুরোটা প’ড়লে আপনার চোখের জল ধ’রে রা’খতে পা’রবেন না রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি মুসলিমদের ভারত থেকে তাড়াবো : অমিত শাহ ‘বাবর আজম আমাকে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধ’র্ষ’ণ করছে’ ! শুধু ধ’র্ষণ নয়, কা’টাছেঁ’ড়া মৃ’তদে’হের সঙ্গে সেলফি তুলতো মুন্না ‘কানাডার বেগমপাড়ার সাহেবদের ধরার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’ ইসলামে ভাস্কর্য ও মূর্তি উভয়ই নিষিদ্ধ: মুফতি ফয়জুল করীম প্রথম হা’নিমুনে গিয়ে প্রত্যেক পুরুষই ক’রেন যে ৫টি ভু’ল! যেভাবে ৫ মিনিটেই অনলাইনে পাবেন জমির আরএস খতিয়ান সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন স্কেল, গ্রেডিং সিস্টেম ও অন্যান্য সুবিধাদির তালিকা আবর্জনার স্তূপ থেকে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি তার সবজি বিক্রেতা বাবার এত বড় প্রতিদান দিল চাচাতো বোনকে সারাজীবন কাছে রাখতে নিজ স্বামীর স’ঙ্গে বিয়ে

ইরফান ও সহযোগী জাহিদের বিরুদ্ধে আরো ৪ মামলা

ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিমের মেজ ছেলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইরফান সেলিম ও তার সহযোগী জাহিদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পৃথক চারটি মামলা হয়েছে।

চকবাজার থানার পরিদর্শক (অপারেশন) দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র ও মাদকদ্রব্য রাখার অভিযোগে বুধবার (২৮ অক্টোবর) ভোরে তাদের বিরুদ্ধে দুটি করে মামলা দায়ের করেছেন বলে থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক শাহ নেওয়াজ জানিয়েছেন।

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে মেজ ছেলে ও দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে মামলার পর ঢাকা-৭ আসনের সাংসদ হাজী মোহাম্মদ সেলিমের পুরান ঢাকার দেবীদাস ঘাটের বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব। সোমবার দুপুরে ওই বাড়ি ও তার ছেলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইরফান সেলিমের কার্যালয়ে চালানো অভিযানে অবৈধ অস্ত্র, ইয়াবা, ওয়াকিটকিসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানায় র‌্যাব।

অবৈধভাবে রাখা বিপুল সংখ্যক ওয়াকিটকি ও বিদেশি মদ পাওয়া যাওয়ায় ইরফান ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে এক বছরের কারাদণ্ড দেয় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার ভোরে হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান, গাড়িচালক, দেহরক্ষীসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা ও সরকারি কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে রাজধানীর ধানমণ্ডি থানায় মামলা করেন নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খান। এজাহারের বরাত দিয়ে ধানমণ্ডি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কামরুন্নাহার জানান, মামলায় চারজনকে এজাহারনামীয় এবং অজ্ঞাত আরও দু-তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। ওই চার আসামি হলেন মোহাম্মদ ইরফান সেলিম, দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদ, হাজী সেলিম ও মদিনা গ্রুপের প্রটোকল অফিসার এবি সিদ্দিক দিপু এবং গাড়িচালক মিজানুর রহমান। তাদের বিরুদ্ধে বেআইনিভাবে পথরোধ করে সরকারি কর্মকর্তাকে মারধর, জখম ও প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

ইরফান নোয়াখালী-৪ আসনের সাংসদ একরামুল করিম চৌধুরীর জামাতা।

ধানমণ্ডি থানা পুলিশের বিবরণ ও মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, কলাবাগান ক্রসিংয়ের কাছে (ল্যাবএইড হাসপাতালের কাছে) ‘জাতীয় সংসদের’ স্টিকার লাগানো একটি ল্যান্ড ক্রুজার গাড়ি নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফের মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। ওয়াসিফ মোটরসাইকেল থামিয়ে গাড়িটির গ্লাসে নক করে নিজের পরিচয় দিয়ে ধাক্কা দেওয়ার কারণ জানতে চান। তখন এক ব্যক্তি গাড়ি থেকে বের হয়ে তাকে অকথ্য গালিগালাজ করে। এরপর গাড়িটি কলাবাগানের দিকে চলে যেতে থাকে। মোটরসাইকেল নিয়ে ওয়াসিফও তাদের পেছনে পেছনে যান। এরপর কলাবাগান বাসস্ট্যান্ডে থামার পর মোটরসাইকেল নিয়ে গাড়ির সামনে দাঁড়ান ওয়াসিফ। তখন তিন-চারজন লোক গাড়ি থেকে নেমে বলতে থাকে, ‘তোর বাহিনী বাইর করতেছি, তোর লেফটেন্যান্ট/ক্যাপ্টেন বাইর করতেছি। তোকে আজ মেরেই ফেলব’ এ কথা বলে তাকে কিলঘুষি মারতে থাকে। পরে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা এসে তাকে উদ্ধার করেন। পুলিশ আসায় হামলাকারীরা গাড়িটি রেখে পালিয়ে যায়। ধানমণ্ডি থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গাড়ি ও মোটরসাইকেলটি থানায় নিয়ে যায়। মারধরের ঘটনাটি পথচারীরা মোবাইল ফোনে ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিলে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়।

সোমবার দুপুরে হাজী সেলিমের চকবাজার থানা এলাকার দেবীদাস ঘাটের বাড়ি ঘিরে ফেলেন র‌্যাব সদস্যরা। এরপর ইরফান, জাহিদ ও গাড়িচালক মিজানকে হেফাজতে নেওয়া হয়। পরে মিজানকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে র‌্যাব। র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, দুপুর ১টার দিকে পুরান ঢাকায় হাজী সেলিমের ২৬ দেবীদাস ঘাটের বাসায় অভিযান শুরু করেন তারা। র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে একটি গোয়েন্দা দল, র‌্যাব-৩ ও ১০-এর সদস্যরা এতে অংশ নেন। ওই বাড়ির চতুর্থ ও পঞ্চম তলাটি ডুপ্লেক্স পদ্ধতিতে নির্মাণ করা। চতুর্থ তলার উত্তর কর্নারের রুমটিতে থাকেন ইরফান সেলিম। পুরো বাসায় ছড়ানো-ছিটানো দেখা যায় নানান অবৈধ জিনিসপত্র। বাড়িটি হাজী সেলিমের বাবা অর্থাৎ কাউন্সিলর ইরফানের দাদা চাঁন সরদারের।

অভিযান শেষে সন্ধ্যায় এক ব্রিফিংয়ে আশিক বিল্লাহ বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট কিছু তথ্য ও আলামতের ভিত্তিতে আমরা অভিযান চালিয়েছি। আমরা ইরফানের বাসা থেকে অনুমোদনহীন ৩৮টি ওয়াকিটকি, ৫টি ভিপিএস সেট, একটি অবৈধ বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র, একটি পিস্তল, একটি একনলা বন্দুক, একটি ব্রিফকেস, একটি হ্যান্ডকাফ, একটি ড্রোন, সাত বোতল বিদেশি মদ ও কিছু বিয়ার উদ্ধার করেছি। এ ছাড়া দেহরক্ষীর বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ৪০০ পিস ইয়াবা।’

তিনি আরো বলেন, ‘ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ের পাশে ইরফানের একটি টর্চার সেল ছিল। সেখান থেকে হ্যান্ডকাফ উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে তিনি বিভিন্নজনকে ধরে নিয়ে নির্যাতন করতেন। আমরা তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে নিয়মিত মামলা করব।’

আশিক বিল্লাহ বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মোহাম্মদ ইরফান সেলিম জানিয়েছেন, এসব ওয়াকিটকির মাধ্যমে তিনি তার বাসার আশপাশের ১২ কিলোমিটারের মধ্যে থাকা নেতাকর্মী ও অনুসারীদের সঙ্গে কথাবার্তা এবং যোগাযোগ রাখতেন। উদ্ধার ভিপিএস সেটগুলোকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী শনাক্ত বা পর্যবেক্ষণ করতে পারত না। তার বাসার চার ও পাঁচতলার কন্ট্রোল রুম থেকে এসব উদ্ধার করা হয়; যা আইনত অবৈধ। এসব ওয়াকিটকি দিয়ে ইরফান মূলত চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করতেন বলে জানান তিনি।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সরোয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘উদ্ধার অস্ত্র ও হ্যাণ্ডকাফের বিষয়ে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি ইরফান সেলিম। আমাদের ধারণা, এগুলো দিয়ে তিনি সাধারণ মানুষকে ভয়ভীতি দেখাতেন। তার অস্ত্র দুটির কোনো লাইসেন্স নেই। ইরফানের রুমের তোশকের নিচে ম্যাগাজিন ভর্তি বিদেশি পিস্তলটি পাওয়া গেছে। এ ছাড়া পঞ্চম তলায় পূর্ব পাশের কর্নারে ৫টি ওয়ারলেস ভিপিএস সিস্টেম ও ৩৮টি ওয়াকিটকি সেট, একটি হ্যান্ডকাফ, একটি বন্দুক, বিদেশি মদের বোতল ও বিয়ার পাওয়া গেছে। ইরফান ও জাহিদকে অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে ছয় মাস ও নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য রাখার দায়ে ছয় মাস করে মোট এক বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।’

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার সাংবাদিকদের বলেন, ‘অভিযানের আগেই আমাদের টিমের সদস্যরা হাজী সেলিমের ছেলেকে হেফাজতে নেন। ইরফান সেলিম নিজেও একজন জনপ্রতিনিধি। আমরা থানা পুলিশের মাধ্যমে তাকে আদালতের কাছে সোপর্দ করব।’

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37879961
Users Today : 2266
Users Yesterday : 0
Views Today : 4209
Who's Online : 124
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone