সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০১:৫৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বিমান বিধ্বস্ত হয়ে ব্রাজিলের চার ফুটবলার নিহত টস জিতে বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ইউনাইটেডের কাছে লিভারপুলের হার শুরুর ধাক্কা সামলে এগোচ্ছে বাংলাদেশ তামিমের ফিফটিতে বড় স্কোরের দিকে এগোচ্ছে বাংলাদেশ রানের খাতা খোলার আগেই ফিরলেন লিটন উপ-ভূমি সংস্কার কমিশনারের বরগুনা সদর উপজেলার তিন ভূমি অফিস পরিদর্শন তানোরে কাউন্সিলর পদে পচ্ছন্দের শীর্ষে জনি সপ্তাহে একদিন ক্লাসের পরিকল্পনা: শিক্ষামন্ত্রী পলাশবাড়ীতে ঘরের দলিল ও চাবি পেলেন ৬০ টি ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার  কুড়িগ্রামে প্রবাসী দম্পতির দেয়া শীতবস্ত্র পেলেন প্রতিবন্ধীরা  অনলাইনে এলডি ট্যাক্স নির্ধারণ ও আদায়ের জন্য ডাটা সংগ্রহ ও এন্ট্রি প্রদানের নির্দেশনা ডিএলআরসি’র  ময়মনসিংহের ত্রিশালে আওয়ামীলীগের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে বর্ধিত সভা জাককানইবি’র সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ২য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বেতনের দাবিতে ডিএসসিসি হিসাবরক্ষণ দফতরে কর্মীদের হামলা: ৪ শ্রমিক চাকরিচ্যুত

একটি মৃত্যু – – – সুদীপ দাশ

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট ছিল একটি এমনি দিন যে দিন এই উপমহাদেশে খুন করা হল এক সম্ভাবনার,যে সম্ভাবনা হয়ত জন্ম দিতে  পারত এক এমনই ধর্মনিরপেক্ষতার ,যা আজ সত্যিই এক অলীক স্বপ্নমাত্র।
ষোলই আগস্টের ভোরে এক তৎকালীন পূর্ব বঙ্গের বরিশাল থেকে বিতাড়িত এক শিক্ষক যতীন্দ্রনাথ দাশ, আমার পিতা লিখলেন:—-
“পনেরোই আগস্টের শুভ লগ্নে বাংলাদেশ রেডিও এক টুকরো খবর দিয়েছিল  — বাঙলাদেশে সামরিক অভ্যুথ্থান ঘটেছে, সপরিবারে নিহত নবীন বাংলার স্থপতি বঙ্গ বন্ধু মুজিবর রহমান।চক্রান্তকারীদের বিজয়োল্লাস রাইফেলের শব্দে ধ্বনিত হলেও তারা জানেনা যে , স্বাধীনতাকামী মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত ঘৃণা তাদের জন্য অপেক্ষা করছে।এই ঘৃণা কোন কিছুর প্রতীক্ষা রাখে না, ষোল তারিখ গুলিবিদ্ধ ইতিহাসের পাতার নতুন সংযোজনের জন্য। আমার ছেলের বয়স মাত্র এগারো বছর  —– ষোল তারিখ ভোর পাঁচটায় ঘুম থেকে জেগে উঠে বিছানায় আমার পাশে বসে গান করছিল,
জীবনানন্দের রূপসী বাংলা
মুজিবরের বাংলাদেশ—-
গানের এই দুটি কলি শুনেই আমার ঘুম ভেঙে যায়।  উঠে জিজ্ঞেস করলাম –বাবু ,এ গান করছিস কেন?
উত্তরে বলল,জান বাবা –ওরা বঙ্গবন্ধুকে মেরে ফেলেছে।ওর ছোট ছেলে রাসেলকেও কি মেরে ফেলেছে?’
বললাম–‘হ্যা, বাবু তাকেও মেরে ফেলেছে।’
একটি সরল শিশুমনের এই বেদনা ভরা দীর্ঘ নিশ্বাস কি ব্যর্থ যাবে? বাংলাদেশের মানুষ কি এই দস্যুদের বিচার করবেনা?’
 কিন্তু বঙ্গবন্ধু তখন সাড়ে সাত কোটি বাঙালিসহ বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের কাছে এক অনুপ্রেরণার নাম। বঙ্গবন্ধুর নামে বাঙালি যুদ্ধজয়ের মনোরথের ধ্বজা উড়িয়ে দিয়েছিল।  তাই সে স্লোগান উঠেছিল, ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধরো, বাংলাদেশ স্বাধীন করো।’ রণাঙ্গন থেকে রণাঙ্গনে বাঙালি মুক্তিযোদ্ধারা শত্রুর বিরুদ্ধে তুমুল যুদ্ধ চালিয়েছিল।জন্ম নিয়েছিল বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ রাস্ট্র ১৯৭১এ।
শিল্পী অংশুমান রায়ের বিখ্যাত গান ‘শোনো,একটি মুজিবরের থেকে…’এর জন্ম এই কলকাতায়।কলকাতা রেডিও র একটি সংবাদ পরিক্রমা’য় ও সংবাদ বিচিত্রায় গানটি প্রথম ব্যবহৃত হলো। পরের দিন তুমুল হইচই পড়ে গেল। পূর্ব বঙ্গের কুষ্টিয়া অঞ্চলের একদল মুক্তিসংগ্রামী এসে গানটির জন্য কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, ‘তাঁদের যখন হতাশায় ভেঙে পড়ার উপক্রম, তখন এই গানটি মৃতসঞ্জীবনীর কাজ করেছে।’কারণ এই গানে আছে বাংলার সেই সব শিক্ষিত মানুষদের কথা,যারা এই বাংলাকে দেখেছেন সোনার বাংলা, রূপসী বাংলা। আর বঙ্গবন্ধু এনে দিলেন জয় বাংলা। একাত্তরে শরণার্থী শিবিরে, মুক্তিযুদ্ধের ক্যাম্পে গানটি বেজেছে তখন।
 বাঙালির মুক্তিযুদ্ধে ভারতের বাংলাভাষী মানুষদের সহায়তা ও অবদান বাঙালির স্বাধীনতা ও মুক্তির ইতিহাসে অঙ্গাঙ্গি ভাবে যুক্ত।
তাই এই গানটি আজও নাড়া দেয় বাঙালী কে–
“শোন একটি মুজিবরের থেকে
লক্ষ মুজিবরের কন্ঠস্বরের ধ্বনি-প্রতিধ্বনি
আকাশে বাতাসে ওঠে রণী
বাংলাদেশ, আমার বাংলাদেশ।।”
শুনেছি আজ এত বছর পর বাংলাদেশের সরকার সেই দস্যুদের কয়েকজন কে বিচার করে মৃত্যু দন্ড দিয়েছে।আরো অনেক নরাধমই রয়ে গেছে অধরা।
তাই এই পঁয়তাল্লিশ বছর পরও সেই কথা গুলো ততটাই প্রাসঙ্গিক।
আজ  ২০২১ এর বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষে  সেই দিনের এগারো বছরের বালক আজকের ছাপ্পান্ন বছরের এক প্রৌঢ়, এই আমি খুঁজে পেয়েছি পিতার সেই টুকরো কাগজের উত্তরাধিকার, ২০০৬ সালে পিতার মৃত্যুর আরও চোদ্দ বছর পর।চিরকুটে লালিত একটি স্বপ্ন–!
     আজও পনেরোই আগস্টের দিনে ভারতের স্বাধীনতার সমারোহর মাঝে সেই দীর্ঘ নিশ্বাস আমার মনে ফিরিয়ে আনে সেই রক্তাক্ত বিষাদময় স্মৃতি॥

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38191369
Users Today : 5200
Users Yesterday : 6812
Views Today : 13839
Who's Online : 54
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone