সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ১০:২১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
সুইস ব্যাংকে কার কত টাকা, তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট প্রাক প্রাথমিক ছাড়া সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৩০ মার্চ খোলা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললে কোন শ্রেণির কতদিন ক্লাস? তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা কুড়িগ্রামে বর্ণিল কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এসএসসি ব্যাচ ‘৮৬র সম্মেলন সমাপ্ত সুন্দরবন ম্যানগ্রোভ  পক্ষ থেকে ৫ গুনি ব্যক্তিকে স্বঃস্বঃ কর্মক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য সম্মাননা প্রদান পাবনায় ডিসিআই-আরএসসি ও ফারাজ হোসেন ফাউন্ডেশন’র যৌথ উদ্যোগে ‘বিনামূল্যে চক্ষু শিবির’ অনুষ্ঠিত গাইবান্ধায় শহরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পৌরসভা নির্বাচন; মহেশপুর বিজিবি কর্মকর্তার অসৌজন্যমুলক আচরণে ঝিনাইদহের হেবিওয়েট সাংবাদিকদের চরম ক্ষোভ, নিন্দা ও প্রতিবাদ জ্ঞাপন ১৮ মাসের কাজ শেষে ৫ বছরেও হস্তান্তর হয়নি ঝিনাইদহ আড়াই’শ বেড হাসপাতাল ভবন! ঝিনাইদহ মাগুরা সড়কে মটরসাইকেলের ধাক্কায় রেস্টুরেন্ট ব্যাবসায়ী নিহত তিন পার্বত্য জেলায় শান্তি আনতে পুলিশ মোতায়েন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিক্রেট রেসিপি এমটিবি লাউঞ্জে বিশেষ কর্নার চালু করলো শান্তি-সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে খানসামায় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের আচরণবিধি স্বাক্ষর লেখক মুশতাক আহমেদের রাষ্ট্রীয় হত্যাকান্ড, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল দাবিতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ

এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে ফের অপপ্রচার

আলিফ হোসেন, তানোর
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরীকে নিয়ে দুটি রাজনৈতিক দলের কতিপয় দুই নেতার বেফাঁস মন্তব্য রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে উঠেছে সমালোচনার ঝড় এবং জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। এদিকে গণমানুষের নেতার বিরুদ্ধে এমন মিথ্যা, বানোয়াট,মানহানিকর ও বেফাঁস মন্তব্য কারীদের গণদুশমন আঙ্খ্যায়িত করে এই জনপদের মানুষ তাদের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। স্থানীয়রা বলছে, জামায়াত-বিএনপির বি-টিম হয়ে একটি মহল পরিকল্পিত ভাবে ফের এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। তারা বলছে, রাজশাহীর দুই শহীদ পরিবারের সন্তান আদর্শিক নেতৃত্ব রাসিক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধূরীকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে রাজশাহীতে আওয়ামী লীগকে সাংগঠানিক ভাবে দুর্বল, দলীয়কোন্দল সৃষ্টি ও দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ভাঙন ধরাতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেছেন। এরই অংশ হিসেবে তারা প্রথমেই এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে, তার পারিবারিক, রাজনৈতিক, বাণিজ্যিক, সামাজিক অবস্থান নিয়ে একের পর এক মিথ্যাচার করা হচ্ছে। কারণ জেলার নেতৃত্ব থেকে তাকে সরাতে পারলেই লিটনকে সরানো সহজ হবে। তাদের অভিমত, এই দুই নেতা যতদিন নেতৃত্ব রয়েছে ততোদিন এখানে আওয়ামী লীগবিরোধী শক্তি মাথাচাঁড়া দিয়ে উঠতে পারবে না। তাই আওয়ামী লীগবিরোধী একটি শক্তি আওয়ামী লীগের কিছু বিপদগামী নেতাকে ট্রামকার্ড হিসেবে ব্যবহার বরে জামায়াত-বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়নে তারা জামায়াত-বিএনপির বি-টিম হয়ে কাজ করছে। অন্যদিকে এসব মিথ্যা প্রচারণার বিরুদ্ধে রাজশাহীর মহানগরীতে বিক্ষোভ সমাবেশ, প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি দেয়ার দাবী তুলেছে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ইতমধ্যে গোদাগাড়ী উপজেলা ও পৌরসভায় বিক্ষোভ মিছিল, প্রতিবাদ ও পথসভা, মানববন্ধব কর্মসূচি পালন করা হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।
রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) সংসদীয় আসনে তিন বারের নির্বাচিত আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও রাজশাহী চেম্বর অব কমার্সের সভাপতি, সিআইপি, রাজশাহীর সর্বোচ্চ স্বচ্ছ আয়কর দাতা, শহীদ পরিবারের সন্তান, জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামরুজ্জামান হেনার ভাগ্নে. বৃক্ষরোপণে বিশেষ অবদান রাখায় রাস্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পদক অর্জনকারী, আদর্শীক ও পরীক্ষিত নেতৃত্ব বিলাস-প্রচার বিমূখ, সৎ রাজনৈতিকের প্রতিকৃতি, কর্মী ও জনবান্ধব রাজনৈতিক তথা গণমানুষের নেতা সবার প্রিয় আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরী এমপির বিরুদ্ধে ফের অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে জামায়াত-বিএনপির আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতায় আওয়ামী লীগের বিপদগামী কতিপয় নেতার নেপথ্যে মদদে গড়ে উঠা একটি অশুভ সিন্ডিকেট চক্র। সূত্র জানায়, ওই অশুভ চক্রের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে একশ্রেণীর গণমাধ্যম কর্মী এমপি ফারুক চৌধূরীকে ফ্রিডম পার্টির নেতা, রাজাকারপুত্র, মাদকের পৃষ্ঠপোষক, জামায়াত-বিএনপিপ্রীতি ও স্বজনপ্রীতির খবর প্রকাশ করেছে। অথচ এমপি ফারুক চৌধূরী যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছেন সেই সময়ে রাজশাহী তো দুরের কথা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্রিডম পার্টির কোনো আবির্ভাব ঘটেনি এমনকি ঢাকার বাইরে ফ্রিডম পার্টির কোনো সাংগঠনিক অস্থিত্ব ছিল না তাহলে এমপি ফারুক চৌধূরী রাজশাহী ফ্রিডম পার্টির নেতা হলেন কোন যাদুর বলে। এছাড়াও এমপি ফারুক চৌধূরীর পিতা শহীদ আজিজুল হক চৌধূরী ও চাচা মকবুল চৌধূরী দেশের জন্য শহীদ হয়েছেন, তার মামা জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামরুজ্জামান হেনা এই পরিবারের কোনো সদস্য ফ্রিডম পার্টির নেতা হবেন এটা বদ্ধ পাগলেও বিশ্বাস করেন না।
আবার এর আগেও রাজশাহীর একটি অনুষ্ঠানে এই সিন্ডিকেট চক্রের প্রধান গণমানুষের নেতা এমপি ফারুক চৌধূরীকে আওয়ামী লীগের চেতনবিরোধী ও রাজাকারপুত্র বলে আঙ্খ্যায়িত করেছে। অথচ এমপি ফারুক চৌধূরী রাজাকার পরিবার না শহীদ পরিবারের সন্তান, আওয়ামী লীগের চেতনাবিরোধী না চেতনাবান্ধব সেটা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এমপি ফারুক চৌধূরী আশার আগের ও পরের অবস্থান পর্যালোচনা করলেই স্পস্ট হবে,আর যারা তাকে আওয়ামী লীগের চেতনাবিরোধী ও রাজাকার পুত্র অ্যাঙ্খা দিয়েছে তারা আওয়ামী লীগের জন্য কি করেছে বা কি অবদান রয়েছে। তবে হ্যাঁ তাদের একটা কাজ হয়েছে এক সময় তাদের অধিকাংশ মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেলে চলাফেরা করলেও এখন অনেকের তিন-চারটি বিলাসবহুল গাড়ি-বাড়ি হয়েছে, ব্যাংক ব্যালেন্স বেড়েছে কেউ কেউ তো আবার এমপি হবার খোয়াব দেখে তৃণমূলের প্রতিরোধের মূখে নিজ ঘরে পরবাসী হয়ে দলের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তারা জানেন এমপি ফারুক চৌধূরী নেতৃত্বে থাকলে তাদের কোনো ষড়যন্ত্রই কাজে আসবে না তাই তাদের একটাই উদ্দেশ্যে যেকোনো মূল্য এমপি ফারুক চৌধূরীকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া। আর এসব কারণে তারা এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। কিšত্ত তাদের সব চেস্টাই বার বার বৃথা হচ্ছে জন ও কর্মীবান্ধব এই রাজনৈতিক নেতার কাছে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, ইতি পূর্বে অশুভ চক্রটি এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে মাদকের পৃষ্ঠপোষক, জামায়াত-বিএনপির আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা, নিয়োগ বাণিজ্য ইত্যাদি এমন বাল্পনিক মিথ্যা-বানোয়াট অভিযোগ উঙ্খাপন করে তৃণমূলের তোপের মূখে নিজেরাই নিজ ঘরে পরবাসী ও বাঁবুইভেঁজা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে ঘরে ঢুকে পড়েছে। আর এই অশুভ চক্রের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই পান্ডা তবে এক পান্ডা রসাতলে অপর পান্ডা ছিপের ফাতার মতো উঠানামা করছে তার সময় ঘনিয়ে এসেছে। এমপি ফারুক চৌধূরী যদি আওয়ামী লীগের চেতনাবিরোধী হয় তাহলে আওয়ামী লীগের চেতনাবান্ধব কারা ? বিগত দিনে যারা অবৈধ অর্থের লালসায় জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মনোনিত প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ভোট করে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় ঘটিয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন তারা ? না কি একাদ্বশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপিদের বিরোধীতার কথা বলে এমপিবিরোধী বলয় সৃস্টির নামে দলের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি করে আওয়ামী লীগের অত্যন্ত সম্ভবনাময় গোছানো ভোটের মাঠ নস্ট ও জামায়াত-বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়নে কাজ করেছে তারা ? না কি উপজেলা-পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থীদের এমপি অনুসারী বলে যারা দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করেছে তারা ? তারাই যদি আওয়ামী লীগের মূল চেতনাবান্ধব হয় তাহলে তারা মাঠে নেমে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সংগঠিত করছে না কেনো তা না করে ঘরে বসে এসব প্রাসাদ-ষড়যন্ত্র কেনো। অথচ আওয়ামী লীগের বিপদগামী একশ্রেণীর নেতার সমন্বয়ে গড়ে উঠা এই অশুভ চক্রের মদদে ও আর্ধিক সুবিধার বিনিময়ে এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে মিথ্যা-বানোয়াট ও উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত খবর প্রকাশ করেছে একশ্রেণীর গণমাধ্যম কর্মী। এদিকে এসব খবর ছড়িয়ে পড়লে এই অশুভ চক্রের বিরুদ্ধে তৃলমূলের নেতা ও কর্মী-সমর্থকগণ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে, বিরাজ করছে বিস্ফোরণমূখ পরিস্থিতি। তৃণমূল এতোটাই বিক্ষুব্ধ যে কোনো সময় তারা এসব গণমাধ্যম কর্মী ও অশুভ চক্রের ওপর চাড়াও হয়ে গণধাওয়া বা গণপিটুনি দিতে পারে বলে গুঞ্জন বইছে।
জানা গেছে, এমপি ফারুক চৌধূরীর মামা জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামরুজ্জামান হেনা, তার বাবা শহীদ আজিজুল হক চৌধূরী ও চাচা মকবুল চৌধূরী দেশের জন্য জীবন উৎস্বর্গ করে গেছেন। পারিবারিক ভাবেই তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শ বুকে ধারণ করে বড় হয়েছেন। অথচ তিনি নাকি আওয়ামী লীগের চেতনাবিরোধী তাহলে যারা এসব অপপ্রচার করছে দেশের জন্য তাদের কি এমন পারিবারিক ঐতিহ্য রয়েছে আসলে রাজনীতিতে তারা কোনো ভাবেই এমপি ফারুক চৌধূরীকে রাজনৈতিক প্রতিযোগীতা বা নেতৃত্ব ঠেকাতে না পেরে মানষিকভাবে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে আর এই হতাশা থেকেই তাদের এসব বেফাঁস হতাশাজনক মন্তব্য। এছাড়াও বিশ্বের দ্বিতীয় সৎ ও সেরা রাজনীতিবিদ বঙ্গবন্ধু কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজের একক ক্ষমতা বলে দলের সব প্রটৌকল ভেঙ্গে এমপি ফারুক চৌধূরীকে আওয়ামী যোগদান করিয়েছেন, তিন বার এমপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি করেছেন, একবার শিল্প প্রতিমন্ত্রী করেছেন তাহলে দলের সভাপতি যেই মানুষটিকে এতোভাবে সম্মানিত করেছেন। তাহলে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ তিনিই তো রাজশাহীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিনিধি, এখন প্রশ্ন হলো যারা এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচার করছে তারা তো প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধেই অপপ্রচার করছে বিষয়টি তায় নয় কি। আবার এই মানুষটির বিরুদ্ধে যারা এসব অপপ্রচার করছে তারা নিজেরা কি ? আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী এসব প্রশ্ন এই জনপদের সাধারণ মানুষের উঠেছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38337605
Users Today : 936
Users Yesterday : 0
Views Today : 4694
Who's Online : 19
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/