শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৬:০৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
আইফোন-১২ পেতে রোজা ভাঙার লোভ, অতঃপর… বাইডেনের ক্ষমা চাওয়ার ভাইরাল ছবির গল্প সত্য নয় করোনা নিয়ে এই মুহূর্তে সবচেয়ে আলোচিত ল্যানসেট রিপোর্ট এবার আরবি ভাষায় গান গাইলেন হিরো আলম পাকিস্তানে অভিজাত হোটেলে বোমা হামলা, নিহত ৪ তিনগুণ শক্তিশালী নতুন করোনা শনাক্ত ভারতে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে শনাক্ত ৩ লাখের বেশি করোনার কারণে মোদির পশ্চিমবঙ্গ সফর বাতিল ট্র্যাকে বসলো মেট্রোরেলের প্রথম কোচ নুরের বিরুদ্ধে দুই জেলায় আরও ২ মামলা তালিকা পাঠান নিজেরাই শান্তিপূর্ণভাবে জেলে যাব: বাবুনগরী করোনার টিকা পেতে চীনা উদ্যোগে রাজি বাংলাদেশ রাশিয়ার টিকা উৎপাদন হবে বাংলাদেশে জলবায়ু মোকাবিলায় বিশ্ব নেতাদের ৪ পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর সুন্দরগঞ্জে দুঃস্থদের মাঝে অটোভ্যান বিতরণ

করোনায় চিরবিদায় নেয়া স্বামীকে নিয়ে স্ত্রীর আবেগঘন স্ট্যাটাস।

প্রা’ণঘা তী করো’নাভাইরা সে সবাইকে ছেড়ে চিরবিদায় নিয়েছেন স্বামী আলম আকন্দ। তাকে নিয়েই স্ত্রী রুকসানা হোসেইন আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে। স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো

‘‘আজকে সেই ১৪ দিন, আমি আবার লাইভে আসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু না, আমি পারলাম না। আমি হেরে গিয়েছি। যু দ্ধ করতে করতে আমি করোনা ভাইরা স; যাকে বলছে কোভিড-১৯ তার কাছে হেরে গেলাম। আমি সে সময় বিলিভ করতে পারছিলাম না যে আলমের করো’না পজিটিভ। অথচ সে তার শ রীরে করোনা নিয়ে আমাকে সেভ করে গেল।

আমরা সবাই এখন আলহামদুলিল্লাহ ভালো এবং সুস্থ আছি, শুধু আলম (আমার হাজবেন্ড) নেই আমাদের মাঝে। সে বুঝতে পেরেছিল তার সময় শেষ; করো’নার মহামা রী থেকে রক্ষা করতে শুধু ইদ্দাতের ৪ মাস ১০ দিন না, আগের ১৪ দিনসহ রক্ষা করে গেল আমাকে।

যদি তার করোনা পজিটিভ না আসত, আমাকে ঘর থেকে বের হতে হত; প্রতিদিন হস পিটালে যেতে হত; আমি করো’না সংক্র মিত হতে পারতাম। কিন্তু সে জানেনা, করোনার ভ য়াবহতার কাছে ঘরটাও নিরাপদ না। হস পিটালের ক্রিটি’কাল কেয়ার ইউনিট স্পেশাল ডিপার্টমেন্ট এ থেকেও যদি তাকে করো’না স্প র্শ করতে পারে আর সেই হিসেব করলে ঘর তো কিছুই না, আমাকে স্প র্শ করা আরও সহজ।

আমাকে হোম কোরেন্টাইনে পাঠাবার ৩ দিন পর, ২০ তারিখ শুক্রবার আলম নার্স এর মোবাইল দিয়ে একটা কল দেয়, এই কলটা যে লাস্ট কল হবে, এটাই যে শেষ কথা হবে কে জানতো? সে তার মোবাইলটা খুঁজছে, আমি বললাম এক্ষুণি নিয়ে আসতেছি। ডাক্তারের কাছ থেকে পারমিশন নিলাম এবং সে মোবাইল ইউজ করার মত স্টেবল আলহামদুলিল্লাহ, সেটাও জেনে নিলাম। ডাক্তার আরও বললো এই অবস্থায় দুই দিন থাকলে, তাকে সোমবার নাগাদ আইসিইউ থেকে ওয়ার্ডে ট্রান্সফার করতে পারবে ইনশাল্লাহ।

আলহামদুলিল্লাহ অবস্থার উন্নতি দেখে তাড়াতাড়ি রওনা হলাম। আমার বাচ্চারা আমাকে টেনে ধরে না মামণি তুমি বের হবে না, আমরা মাকে হারাতে চাই না, বাবা অসু’স্থ, তুমিও অসুস্থ হলে আমরা কার কাছে যাবো। কিছুই হবে না আমাদের ইনশাল্লাহ, আল্লাহর উপর ভরসা রাখ বলে বেড়িয়ে গেলাম।

প্রায় এক ঘন্টার মেট্রো জার্নি আমার বাসা থেকে হস পিটাল। কোয়ারেন্টিন ভেঙে ছুটে চললাম হস পিটালে। একটা পাথর, একটা তাসবিহ, মোবাইল আর কিছু টাকাসহ ছোট একটা ব্যাগ ডাক্তারের হাতে দিয়ে রিকুয়েস্ট করলাম একটা বার আমাকে দেখার সুযোগ করে দাও। না কোনভাবেই যেতে পারলাম না আলমের কাছে।

কিন্তু সে ঠিকই অনুভব করেছিল, আমি তার অনেক কাছে এসেও তার সাথে দেখা করতে পারি নাই। তাই শুক্রবার বিকেল থেকে আজকে পর্যন্ত আর সাড়া দেয় নাই কারও ডাকে। আমার ব্যাগটা তার হাত পর্যন্ত পৌছানো হয়েছিল কিনা আমি তাও জানি না। মোবাইল ইউজ করবে, পাথর দিয়ে তায়াম্মুম করবে আমি সেই অপেক্ষায় ছিলাম।

কিন্তু সে আর চোখ খুলে পৃথিবীর আলো দেখেনি লাস্ট ডে পর্যন্ত। এর ভিতরে আমাকে দুইবার ভিডিও কলে দেখানো হয়েছিলো। অনেক ডেকেছিলাম ভিডিও কলে, তারপরও চোখ খোলেনি। চলে গেছেন জান্নাতে। এইভাবে করোনা পৃথিবীর বু কে করু ণ ইতিহাস লিখে যাচ্ছে।

করো’না লন্ডনে কি ভ য়াবহ রূপ নিয়েছে, তা এক সপ্তাহ আগেও আমি আন্দাজ করতে পারিনি। তাই ডাক্তারদের উপর অনেক রাগ হচ্ছিল আমার। আইসিইউ-এর ভিতরে কীভাবে করোনা প্রবেশ করতে পারে বা আমাকে কেন টেস্ট করা হচ্ছিল না ইত্যাদি নিয়ে। আসলে আমি ভুল ছিলাম।

হস পিটাল ভর্তি এত মু মূর্ষু করো’নার রো গী রেখে, আমাকে তারা কেন টেস্ট করবে? যেখানে আলহামদুলিল্লাহ আমার কোন সিমটম ছিল না। টেস্ট করেও যদি পজিটিভ আসত, তাহলেও করার কিছু ছিল না। সেল্ফ আইসোলেশন মানে অন্যের থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকা ছাড়া কিছুই করার নেই। যেটা এখন আমরা সারা বিশ্বের প্রায় সবাই করছি। অন্যের থেকে দূরে থাকা যায়, কিন্তু সন্তান মা এদের থেকে দূরে থাকা যায় না; যেমনটা আমি পারিনি।

আলম করো’নার রো গী হওয়ায় আমি দেখেছি ডাক্তার নার্সদের সার্বক্ষণিক ক ঠিন প্রচেষ্টা। এখন বুঝতে পারছি কত রো গী হলে সরকার প্রাক্তন ১১ হাজার ডাক্তার, ২৪ হাজার ফাইনাল ইয়ারের মেডি কেল স্টুডেন্ট এবং আড়াই লক্ষাধিক সেচ্ছাসেবীদের করো’না রো গিদের পাশে দাঁড়াতে বলছে। আমি স্যালুট জানাই সকল ডাক্তার নার্স সেচ্ছাসেবীদের, যারা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন আমাদের জন্য।

হে আল্লাহ আপনিই সকল শক্তির মালিক। আপনিই পারেন আমাদের এই মহা বি পদ থেকে উদ্ধার করতে। আপনি আমাদের ক্ষমা করুন।’’

Please Share This Post in Your Social Media


বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38457262
Users Today : 504
Users Yesterday : 1310
Views Today : 3003
Who's Online : 36
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone