সোমবার, ০৩ অগাস্ট ২০২০, ০৮:৪৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বিশ্ব গণমাধ্যম এবং রাষ্ট্রনায়কদের চোখে বঙ্গবন্ধু করোনায় মৃত্যু কমায় কিছুটা স্বস্তিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জুলাই মাসে রেকর্ড ২৬০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স এলো দেশে করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৩৫৬ করোনা আক্রান্ত এমপি সালমা চৌধুরীকে আনা হচ্ছে ঢাকায় ধামরাইয়ে বাস-পিকআপ ভ্যানের সংঘর্ষ, নিহত ৩ করোনা ভাইরাস: স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতিতে শাস্তির নজির নেই। কিন্তু দায়ী কারা? হঠাৎ পথ আটকে জিজ্ঞেস করেন “তুমি কি রাশিয়া থেকে এসেছো?” গায়ানার নির্বাচনে ইরফান আলীকে বিজয়ী ঘোষণা ১৫ হাজার নিয়োগের সরকারি বিজ্ঞপ্তি আসছে পুলিশের গুলিতে সাবেক মেজর সিনহার নিহত হওয়া নিয়ে নানা প্রশ্ন বন্যাকবলিত ৩৩ জেলা, মৃত্যু ৪৩ জনের ছুটি শেষে ঢাকা ফিরছে কর্মজীবী মানুষ ঈদের ছুটি শেষে খুলেছে অফিস-আদালত লক্ষ্মীপুরে ৪ টি মেছো বাঘের বাচ্চা উদ্ধার

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪২ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৩১১৪

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক হাজার ৯৬৮ জনের মৃত্যু হলো। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরো তিন হাজার ১১৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। প্রথম করোনা শনাক্তের ১১৮তম দিনে এসে দেশে মোট এক লাখ ৫৬ হাজার ৩৯১ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। সুস্থ হয়েছেন আরো এক হাজার ৬০৬ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ৬৮ হাজার ৪৮ জন।

শুক্রবার (৩ জুলাই) বেলা আড়াইটায় করোনাভাইরাস সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনের আয়োজন করা হয়। সেখানে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

দেশের ৭১টি আরটি-পিসিআর ল্যাবের মধ্যে ৬৩টির পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে তিনি জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৪ হাজার ৬৫০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো আট লাখ ১৭ হাজার ৩৪৭টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও তিন হাজার ১১৪ জনের মধ্যে। ফলে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো এক লাখ ৫৬ হাজার ৩৯১ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও ৪২ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৯৬৮ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ৬০৬ জন। এতে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৬৮ হাজার ৪৮ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৪২ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ৩২ জন এবং নারী ১০ জন। এদের মধ্যে ১০ বছরের বেশি বয়সী একজন, ২১ থেকে ৩০ বছরের তিনজন, ত্রিশোর্ধ্ব একজন, চল্লিশোর্ধ্ব পাঁচজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ১১ জন, ষাটোর্ধ্ব ১১ জন, সত্তরোর্ধ্ব সাতজন ও ৮০ বছরের বেশি বয়সী তিনজন রয়েছেন। ১৮ জন ঢাকা বিভাগের, ১০ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, তিনজন রাজশাহী বিভাগের, তিনজন খুলনা বিভাগের, চারজন রংপুর বিভাগের, তিনজন সিলেট বিভাগের এবং একজন বরিশাল বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। ৩১ জন মারা গেছেন হাসপাতালে এবং ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে বাসায়।

বৃহস্পতিবারের বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগীদের মধ্যে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর ১৮ হাজার ৩৬২টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও চার হাজার ১৯ জনের মধ্যে, যা একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। সে হিসাবে আগের ২৪ ঘণ্টার তুলনায় গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমলেও বেড়েছে মৃত্যু। দেশে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড আছে ৬৪ জনের। সে তথ্য জানানো হয় ৩০ ‍জুনের বুলেটিনে।

শুক্রবারের বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২১ দশমিক ২৬ শতাংশ। সবমিলিয়ে নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ১৩ শতাংশ। এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪৩ দশমিক ৫১ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৬ শতাংশ।

বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে আরও ৮৭৭ জনকে এবং এ পর্যন্ত আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে ২৯ হাজার ৩৭৯ জনকে। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৬৮৭ জন এবং এ পর্যন্ত ছাড় পেয়েছেন ১৩ হাজার ৪৩২ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন ১৫ হাজার ৯৪৭ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক মিলিয়ে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে দুই হাজার ৭১৪ জনকে, এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে তিন লাখ ৭১ হাজার ৯০৩ জনকে। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন দুই হাজার ৭৬৬ জন, এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন থেকে মোট ছাড় পেয়েছেন তিন লাখ আট হাজার ৩৪৭ জন। বর্তমানে হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক মিলিয়ে কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ৬৩ হাজার ৫৫৬ জন।

প্রতিবারের মতো করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে সবাইকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট দিকনির্দেশনা বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহার এবং শারীরিক দূরত্ব মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

দেশে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর থেকে বেড়েই চলেছে মৃত্যু।

গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানো করোনাভাইরাসের ছোবলে গোটা বিশ্ব এখন মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা শুক্রবার সকাল পর্যন্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ২০ হাজার ৬৩৪ জন এবং আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে ১ কোটি ৮ লাখ ৩৫ হাজার ৫০০ জনে।

জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত ২৭ লাখেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত এবং মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ২৮ হাজার ৬৮৪ জনের। তাদের পর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। শুক্রবার পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১৫ লাখ মানুষ এবং মারা গেছেন ৬১ হাজার ৮৮৪ জন।

সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬ লাখ ৬০ হাজার ২৩১ জনে। এ তালিকায় চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে ভারত। দক্ষিণ এশিয়ার এ দেশটিতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৪ হাজার ৬৪১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৭ হাজার ৮৩৪ জনের।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone