দেশের সংবাদ l Deshersangbad.com » ক্যাম্পাসে প্রথম দিন



ক্যাম্পাসে প্রথম দিন

১২:১২ পূর্বাহ্ণ, আগ ১০, ২০১৮ |জহির হাওলাদার

51 Views
আজাদ হোসাইন খান
ঢাকা কলেজ
এখনো ক্যাম্পাসের প্রথম দিনটার কথা ভাবতেই কেন যেন মনটা অজানা আনন্দে ভরে যায়। নানা অনুভূতির সংমিশ্রনে পরিপূর্ণ ছিল সেই দিনটি। সকাল সকাল বাসা থেকে বের হয়ে পড়লাম ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্য। খুব সকাল হওয়ায় রাস্তায় তেমন একটা জ্যামে পড়তে হয়নি। শুধু ক্যাম্পাসের একটু আগে সায়েন্সল্যাবের মোড়ে ৫ মিনিটের জ্যামে আটকা পড়েছিলাম। অন্য দিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে কাটাই, অথচ সেদিন পাঁচ মিনিটের যানজটেও তর সইছিল না।
দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ক্যাম্পাসে পৌঁছলাম। মস্ত বড় গেট পেরিয়ে ভিতরে ঢুকলাম। সাত সকালে নতুন ক্যাম্পাসে পাখিদের কিচির মিচির হৃদয়ে এক অভিনব প্রশান্তির জন্ম দিলো। একটু সামনে যেতে মোটা গোঁফ বিশিষ্ট একজন ঝাড়ু ওয়ালা কে দেখলাম ক্যাম্পাসের প্রবেশপথ ঝাড়ু দিচ্ছে। জিজ্ঞেস করলাম সমাজবিজ্ঞান ডিপার্টমেন্ট টা কোন দিকে? লোকটি বললো সোজা গিয়ে বাঁয়ে।
লোকটির কথানুযায়ী সোজা গিয়ে দেখলাম একটা সাইনবোর্ডে লেখা “মূল ভবন” আমার যেতে হবে বাঁয়ে। বাঁয়ে যেতে যেতে অধ্যক্ষের বাসভবনের সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম। তখন অবশ্যই জানা ছিল না ইহা অধ্যক্ষের বাসভবন। গেটের সামনে দাঁড়াতেই ভিতর থেকে এক মোটা সোটা লোক বের হলো। তাকে দেখে কিছু জিজ্ঞেস করার সাহস আর হলো না। সোজা হাটা ধরলাম। কিছুদূর যেতেই ক্যাম্পাসের চোঁখ ধাঁদানো পুকুরটি দেখতে পেলাম। পুকুরের সামনে বিশাল বড় খেলার মাঠ। বাম দিকে তাকিয়ে দেখলাম বড় করে লেখা “ক্যাফেটেরিয়া” ততক্ষণে ক্ষুধা ও লেগেছিল খুব। তাছাড়া সকাল সকাল না খেয়েই বের হয়েছিলাম বাসা থেকে। তাই আর দেরী না করে ঢুকে পড়লাম ক্যাফেটেরিয়ায়। বাম দিকে লম্বা করে রাখা একটি টেবিলে বসে পড়লাম।
কিচ্ছুক্ষণ বসে থাকার পর বুঝতে পারলাম এখনকার নিয়মে আগে টাকা জমা দিয়ে সিলিফ সংগ্রহ করতে হবে। তারপর খাবার সংগ্রহ করা যাবে। তিনটা পরোটা আর ডালভাজি নিলাম, বিল আসলো ২৩ টাকা। নাস্তা করার সুবাদে কথা হলো পাশের টেবিলে বসা ফাহিমের সাথে। ক্যাম্পাসে আরো আগে থেকে আনাগোনা ছিল বলে মোটামুটি সব বিভাগের অবস্থান জানা তার। তার থেকে জেনে নিলাম সমাজবিজ্ঞান ডিপার্টমেন্ট এর অবস্থান।
ক্লাসরুমে ঢুকে পিছনের দিকে এক কোণায় বসে পড়লাম। একে একে বিভাগের শিক্ষকরা নিজেদের পরিচয় দিলেন। নিয়মকানুন বললেন। প্রথম দিন ক্লাস শুরুই হলো একগাদা উপদেশ শুনে! তবে সত্যি বলতে, সেদিন কোনো কিছুই কান দিয়ে ঢুকছিল না। শুধু উপভোগ করে যাচ্ছিলাম আশেপাশের সব নতুন নতুন পরিস্থিতি। তবে কিছুটা ভয়ে ভয়ে ছিলাম যে কিভাবে এই নতুন পরিবেশকে খাপ খাইয়ে  নিবো। কিন্তু একে একে বন্ধুদের সাথে পরিচয় হওয়ায় পর সব মিলিয়ে ভয়ে ভয়ে হলেও খুব আনন্দের সাথেই কেটেছে ক্যাম্পাসের প্রথম দিন। গোটা ক্যাম্পাস জীবন জুড়ে যা স্মৃতি রয়েছে তা যেন ক্যাম্পাসের এই প্রথম দিনকেই ঘিরে। দূর অতীতকে জীবন্ত করে বর্তমানকে ভুলিয়ে দিতে চায় যেই স্মৃতি। শেকড়ের বন্ধনে আবদ্ধ করে রাখতে চায় সেইসব স্মৃতি। কখনো ডায়রির পাতায়, কখনো আবার হৃদয়ের পাতায়।
On Aug 9, 2018 5:06 PM, “Azad Khan” <azadhossain551@gmail.com> wrote:

 আজাদ হোসাইন খান
বিসিএস, বিশ্ববিদ্যালয় সহ সকল সরকারি চাকরির নিয়োগ ও ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির মাস্টারমাইন্ডসহ ৯ জনকে আটক করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গত পাঁচ দিনের সাঁড়াশি অভিযানে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। বৃহস্পতিবার (০৯ আগস্ট) দুপুরে সিআইডি সদর দফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সিআইডি’র অর্গানাইজড ক্রাইমের বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) মোল্লা নজরুল ইসলাম এই তথ্য জানান।
তিনি বলেন ‘আমাদের লক্ষ্য ছিল চক্রটির মূল উৎপাটন করা। সর্বশেষ অভিযানে ৯ জনকে আটকের মধ্য দিয়ে প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের মূলোৎপাটন করা হয়েছে। এই নয়জন হলো—মাস্টারমাইন্ড বিকেএসপি’র সহকারী পরিচালক অলিপ কুমার বিশ্বাস, বিএডিসি’র সহকারী প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল, ৩৬ তম বিসিএসে নন ক্যাডার পদে সরকারি মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষক হিসেবে সুপারিশপ্রাপ্ত ইব্রাহিম ও ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিতে উত্তীর্ণ আইয়ূব আলী বাঁধন, রাজধানীর অগ্রণী স্কুলের ইংরেজি শিক্ষক গোলাম মোহাম্মদ বাবুল, পিওন আনোয়ার হোসেন মজুমদার, নুরুল ইসলাম, ধানমন্ডি গভ. বয়েজ স্কুলের সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষক হোসনে আরা বেগম ও পিওন হাসমত আলী শিকদার।
সংবাদ সম্মেলনে মোল্লা নজরুল ইসলাম আরো বলেন, ‘আটক অলিপ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার ডিজিটাল জালিয়াতির মাস্টারমাইন্ড। সে কয়েক বছরে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করে তিন কোটি টাকা আয় করেছে। তার সহযোগী ইব্রাহিম, মোস্তফা ও বাঁধন বিসিএসসহ সব নিয়োগ পরীক্ষার মূলহোতা হিসেবে কাজ করতো। তাদের চারজনের বিরুদ্ধে নগদ অর্থ প্রায় ১০ কোটি টাকার নগদ অর্থ ও অনেক সম্পদ থাকার সন্ধান পাওয়া গেছে। আমরা সেগুলো তদন্ত করে দেখছি।’
মোল্লা নজরুল ইসলাম আরো বলেন, “প্রতারক চক্রটি নিয়োগ ও ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন অফিস সহকারীর মাধ্যমে ফাঁস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও আলিয়া মাদ্রাসা বুথে সমাধান করে মোবাইল ডিভাইসের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীর কাছে সরবরাহ করতো। বিসিএস, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি, ব্যাংক ও সরকারি চাকুরীর ক্ষেত্র বেশ কয়েক বছর ধরে এধরণের প্রতারণা করে বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছে প্রতারকরা। তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে”
এর আগে, গত বছরের ১৯ অক্টোবর রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’টি হলে অভিযান চালানো হয়। এরপর বিভিন্ন সময় অভিযান চালিয়ে নাটোরের ক্রীড়া কর্মকর্তা রাকিবুল হাসানসহ এ পর্যন্ত ৩৭ জনকে আটককরে সিআইডি। বিভিন্ন সময়ে পরীক্ষার আগের রাতে প্রশ্নফাঁসচক্রের মূলহোতারা ধরা পড়লেও ডিভাইসের মাধ্যমে ডিজিটাল জালিয়াতির হোতারা ধরা-ছোঁয়ার বাইরে ছিল।
Spread the love

১২:২৫ পূর্বাহ্ণ, আগ ১৭, ২০১৮

রাবির ১০ম সমাবর্তন ২৯ সেপ্টেম্বর...

19 Views
42 Views
62 Views

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উপদেষ্টা পরিষদ:

১। ২।
৩। জনাব এডভোকেট প্রহলাদ সাহা (রবি)
এডভোকেট
জজ কোর্ট, লক্ষ্মীপুর।

৪। মোহাম্মদ আবদুর রশীদ
ডাইরেক্টর
ষ্ট্যান্ডার্ড ডেভেলপার গ্রুপ

প্রধান সম্পাদক:

সম্পাদক ও প্রকাশক:

জহির উদ্দিন হাওলাদার

নির্বাহী সম্পাদক
উপ-সম্পাদক :
ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলাম সবুজ চৌধুরী
বার্তা সম্পাদক :
সহ বার্তা সম্পাদক :
আলমগীর হোসেন

সম্পাদকীয় কার্যালয় :

১১৫/২৩, মতিঝিল, আরামবাগ, ঢাকা - ১০০০ | ই-মেইলঃ dsangbad24@gmail.com | যোগাযোগ- 01813822042 , 01923651422

Copyright © 2017 All rights reserved www.deshersangbad.com

Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com

Translate »