রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:০২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বাংলাদেশ ডিজিটাল পণ্য উৎপাদন ও রপ্তানিকারক দেশে রূপান্তর : মোস্তাফা জব্বার ‘মোদি সরকারের আমলে ভারত-পাকিস্তান সিরিজ সম্ভব নয়’ দেশের ১৭ অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুর যেতে করোনা পরীক্ষার দরকার নেই এমসি কলেজে গণধর্ষণ: সাইফুরের পর এবার অর্জুন লস্কর গ্রেফতার শহরের মেয়েদের কম বয়সে স্তন বড় হয় কেন? (ভিডিও) বিরামপুরে প্রাণঘাতী কোভিট-১৯,করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রার্দূভাব হ্রাস পেয়ে জনগণের মধ্যে স্বস্তি কৃত্রিম সংকটে বিমান টিকিটের দ্বিগুণ দাম গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের সংকট নিরসনে দ্রত পদক্ষেপ নেওয়ার আহবান।  রাজশাহীর সিভিল সার্জন অফিসের গাফেলতিতেই ক্লিনিকে বাড়ছে অনিয়ম সোনালী স্বপ্নের প্রত্যয় নিয়ে আমিনের প্রচারণা রৌমারীর জনদরদী ও সফল ইউপি  চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম সালু!  ঝিনাইদহে করোনা ভাইরাসে বৃটিশ টোব্যাকো কোম্পানির ম্যানেজারের মৃত্যু ১২ দিন ধরে নিখোঁজ ঝিনাইদহের ব্যবসায়ী আশিকুর রহমান, হতাশ পরিবারে চলছে বোবা কান্না! শৈলকুপায় কলেজছাত্র সুজনের মরদেহ উদ্ধার: বেরিয়ে আাসছে চাঞ্চল্যকর ও লোমহর্ষক তথ্য ঝিনাইদহে এলজিইডির অর্থয়নে নির্মিত শত শত রাস্তা ভেঙ্গে রাস্তা ভেঙ্গে পুকুরে বিলীন, দেখার কেও নেই

ঘোড়াঘাট ইউএনও হামলার রহস্যে জড়িত তারই কার্যালয়ের মালী

 

বিরামপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধি মোঃ রেজওয়ান আলী-(ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখের ওপর হামলা চালিয়েছে তার কার্যালয়েরই বরখাস্ত কৃত মালি। সে প্রাথমিকভাবে হামলার ঘটনার দায় স্বীকার করেছে। তথ্যানুযায়ি জানা যায় যে, রাতের আঁধারে সরকারি বাসভবনে ইউএনও ওয়াহিদা খানমের উপর হামলার উদ্দেশ্যে প্রবেশ করে।

গত শনিবার বৈকাল ০৩.৩০ ঘটিকার সময় দিনাজপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান পুলিশের রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি দেবদাস ভট্টাচার্য। ৪ই সেপ্টেম্বর র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হন স্থানীয় যুবলীগ নেতা আসাদুল হক ও তার দুই সহযোগী নবীরুল ইসলাম ও সান্টু কুমার বিশ্বাস।

র‌্যাব দাবি করেছিল যে,
গ্রেপ্তারকৃত আসাদুল জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে এবং এ ঘটনার মূল আসামি সে নিজেই। পূর্বপরিকল্পিতভাবে চুরি করার উদ্দেশ্যে তারা ইউএনওর বাসায় প্রবেশ করেছিল। শনিবারের প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশের দাবি ছিল,আসাদুল ওই ঘটনায় জড়িত ছিল না।

পুলিশের এই বক্তব্যে ইউএনওর ওপর হামলার ঘটনার তদন্তে নতুন মোড় নেয়।
প্রেস ব্রিফিংয়ে দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শচীন চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাফিজুর রহমান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি ইমাম জাফর সহ অন্যান্য কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন। পুলিশ জানান,১১ই সেপ্টেম্বর রবিউলকে আটক করা হয়।

তিনি বিরল উপজেলার বিজোড়া ইউনিয়নের বিজোড়া গ্রামের খতিব উদ্দীনের পুত্র। তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের মালি পদে নিযুক্ত ছিলেন। ৫০ হাজার টাকা চুরি করার অপরাধে উক্ত মালিকে সাময়িক বরখাস্ত করেন ইউএনও ওয়াহিদা খাঁনম।

ডিআইজি দেবদাস ভট্টাচার্য জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওয়াহিদা খানম ও তার বাবার ওপর হামলার ঘটনার পর থেকে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় রবিউল ইসলাম নামে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া সরকারি কর্মচারীকে আমরা আটক করেছি এবং তার দেওয়া তথ্যমতে মই ও হাতুড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, আটক রবিউল প্রাথমিকভাবে পুলিশের কাছে হামলার ঘ্টনায় নিজের দায় স্বীকার করেছে। তার তথ্যের ভিত্তিতে আমরা বেশ কিছু আলামত উদ্ধার করেছি। এছাড়া তার বক্তব্য ও জব্দ করা সিসিটিভ ফুটেজের সাথে মিল পাওয়া গেছে। আমরা অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিজ্ঞ আদালতে তার রিমান্ড আবেদন করব।
আসাদুল র‌্যাবের কাছে স্বীকারোক্তি দিয়েছিল এ ঘটনার সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত,
এখন অন্য বিষয় সামনে এলো- আমরা

কোন দিক দেখবো এমন প্রশ্নে ডিআইজি বলেন, আমি এ বিষয়ে মন্তব্য করতে চাই না। র‌্যাবের কর্মকর্তা যিনি তিনি অত্যন্ত একজন চৌকস। তাকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। আসাদুল হয়তো র‌্যাবকে মিসগাইড করেছে। আমরা সবগুলো বিষয় দেখছি তদন্ত করে। ঘটনাটি চুরি নিয়ে নাকি অন্য কিছু এমন প্রশ্নের জবাবে দেবদাস ভট্টাচার্য বলেন, আমি আর কোন মন্তব্য করবো না।

প্রেস ব্রিফিং শেষে আটক রবিউল ও মামলার প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে চিহ্নিত আসাদুলকে আদালতে প্রেরণ করা হয়।
এই মামলার প্রধান আসামি আসাদুল ইসলাম ৭ দিন রিমান্ডে ছিল। শনিবার পুলিশের রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়। এছাড়াও ইউএনওর বাসভবনের নৈশ্যপ্রহরী নাদিম হোসেন পলাশকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

উক্ত মামলায় রবিউল ইসলামকে আটক করে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে ইউএনওর সরকারি বাসভবনের ভেন্টিলেটর ভেঙে ভেতরে ঢুকে ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলী শেখের ওপর নৃশংস হামলা চালায়। বর্তমানে ইউএনও ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসাধীন।

এই হামলার ঘটনায় ইউএনওর ভাই শেখ ফরিদ বাদী হয়ে ঘোড়াঘাট থানায় একটি মামলা দ্বায়ের করেছন। মামলাটি বর্তমানে দিনাজপুর জেলা ডিবি তদন্ত করছে। উক্ত মামলায় এখন পর্যন্ত ৩০ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও র‌্যাব তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে। এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে ঘোড়াঘাট থানার ওসি আমিরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে মর্মে জানা যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37506904
Users Today : 4811
Users Yesterday : 10073
Views Today : 12193
Who's Online : 41
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone