বুধবার, ০৫ অগাস্ট ২০২০, ০৩:৫৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
নারী কর্মকর্তার করা অভিযোগে নেত্রকোনার ডিসি প্রত্যাহার মেজর সিনহাকে গুলি করে হত্যা, কী হয়েছিল সেদিন শেখ কামালের জন্মদিনে যতো আয়োজন বৈরুতে বিস্ফোরণে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৯ সদস্য আহত কোভিড -১৯: কুষ্টিয়ায় পৌর মেয়রসহ আরও ৭৭ জন আক্রান্ত  কুষ্টিয়ায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন কুমারখালীতে যৌন হয়রানীর অভিযোগে গ্রেফতার ১ নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে "কোভিড-১৯ মোকাবেলায় প্রযুক্তি ও ডিজিটাল বাংলাদেশ" শীর্ষক ভার্চুয়াল কনফারেন্স অনুষ্ঠিত বন্যার্তদের ঈদ আনন্দ ৩ রাষ্ট্রদূতের চুক্তির মেয়াদ বাড়ালো সরকার পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহার মৃত্যু, মাঠে তদন্ত দল প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষকরা পদোন্নতি পেয়ে হবেন প্রধান শিক্ষক গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্রের পানি এখনও বিপদসীমার ২২ সেন্টিমিটার উপরে করোনা ঝুঁকি উপেক্ষিত সাপাহারে ঐতিহ্যবাহী জবই বিল দর্শনার্থীদের পদ চারনায় মুখোরিত বকশীগঞ্জে পুকুরে ডুবে ২ শিশু মৃত্যু, চিকিৎসকের উপর  হামলা আহত ৪

ছয় রানে অল আউট করে যেদিন ২৪৯ রানে জিতেছিল বাংলাদেশ

বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে অনেক ম্যাচেই আছে অন্যরকম অর্জন। সময়ের হিসেবে নারী ক্রিকেটে প্রাপ্তির পাল্লাটা তুলনামূলক ভারী। নারী দলের মাধ্যমেই নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রানের ব্যবধানে জয়ের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষকে মাত্র ৬ রানে অল আউট করে ২৪৯ রানের দুর্দান্ত জয় তুলে নিয়েছিলেন বাঘিনীরা।

সময়টা গত বছরের ডিসেম্বরের ৫ তারিখ। এসএ গেমস ক্রিকেটে মালদ্বীপের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ নারী দল। তবে খেলার বদলে সেদিন বলা যায় প্রতিপক্ষকে নিয়ে একপ্রকার ‘মেয়েখেলা’ করেছিল বাংলার নারীরা।

এস এ গেমসে এটা ছিল সালমা খাতুনের দলের তৃতীয় ম্যাচ। এর আগে প্রথম দুই ম্যাচে টস জিতে ফিল্ডিং নিলেও এদিন ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। শুরুটা আশানুরূপ হয়নি টাইগ্রেসদের। শুরুর দুই ওভারেই ২ উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় সালমার দল।

তবে এরপরই মালদ্বীপের ওপর ঝড় শুরু হয়। একের পর এক বল সীমানার ওপারে আছড়ে পড়তে থাকে। দুই ব্যাটার নিগার সুলতানা ও ফারজানা হকের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে চোখে সর্ষে ফুল দেখতে থাকে মালদ্বীপের বোলাররা। এই ম্যাচে ১৪ বাউন্ডারি ও তিনটি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ১১৩ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন নিগার। ৬৫ বলের মোকাবেলায় এ রান করেন তিনি।

অপরপ্রান্তে ফারজানা হকও ছিলেন আরো বিধ্বংসী রূপে। মাত্র ৫৩ বল খেলে দুইশ’র বেশি স্ট্রাইক রেটে অপরাজিত ১১০ রান করেন তিনি। তার ইনিংসে ছিল ২০টি চারের মার।

এই ম্যাচে নিগার ও ফারজানা তৃতীয় উইকেটে ২৩৬ রানের জুটি গড়েন, যা মেয়েদের ক্রিকেটে টি-টোয়েন্টিতে যেকোনো উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটি। এছাড়া এই দুজনের সেঞ্চুরির আগে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের মেয়েদের কোন সেঞ্চুরি ছিল না। এই দু’জনের টর্নেডো ইনিংসে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ২৫৫ রানে থামে বাংলাদেশ।

২৫৬ রানের বিশাল লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ‘ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি’ অবস্থায় পড়েন মালদ্বীপের ব্যাটাররা। প্রথম ওভারেই দুজন ব্যাটসম্যান রান আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান। মাত্র দুই রানেই হারায় ছয় উইকেট। শেষ পর্যন্ত ছয় রান করতেই মালদ্বীপের মেয়েরা অল আউট হয়ে যায়।

টাইগ্রেসদের বোলিং তোপে মালদ্বীপের মাত্র তিনজন ব্যাটসম্যান রানের খাতা খুলতে পারেন। বাকি আটজনের কেউই কোনো রান করতে পারেননি। দলের পক্ষে তিনটি করে উইকেট নেন রিতু মনি ও সালমা খাতুন।

বাংলাদেশের করা ২৫৫ রান মেয়েদের টি-টোয়েন্টিতে ইতিহাসে সর্বোচ্চ রানের তালিকায় তৃতীয়। প্রথম অবস্থানে রয়েছে আফ্রিকার দেশ উগান্ডা। তারা মালির বিপক্ষে ৩১৪ রান করেছিল। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দলীয় স্কোরও মালির বিপক্ষে। তানজানিয়া সেই ম্যাচে মাত্র এক উইকেট হারিয়ে করেছিল ২৮৫ রান।

ম্যাচটির সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২৫৫/২ (২০ ওভার)
নিগার ১১৩*, ফারজানা ১১০*
শাম্মা ৩৮/১

মালদ্বীপ: ৬/১০ (১২.১ ওভার)
শাম্মা ২, সাজা ১
রিতু ১/৩, সালমা ২/৩

ফলাফল: বাংলাদেশ ২৪৯ রানে জয়ী
ম্যান অফ দা ম্যাচ: নিগার সুলতানা

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone