শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:১৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
দায়মুক্তির জন্য গাইবান্ধায় সংবাদ সম্মেলন চরমোনাই মাহফিলে ১১ মুসল্লীর মৃত্যু আখেরী মোনাজাতে বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা প্রধান অতিথি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডাঃ মকবুল গাবতলীর সাবেকপাড়া’য় ডাঃ মকবুল হোসেন সড়ক উদ্বোধন আত্রাইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ডিজিটাল ম্যারাথন অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে চরাঞ্চলে সুর্যমুখী চাষ বৃদ্ধির লক্ষে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রাম শহরের ৫ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক পাকা করণের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান ফের খানসামায় ট্রাক্টর চাপায় মোটরসাইকেল চালক এক যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু আত্রাইয়ে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত রোগীকে চিকিৎসা সহায়তা প্রদান বড়াইগ্রামে নদী খননের অনিয়ম, কৃষকদের প্রতিরোধে বন্ধ কাজ নলছিটির রানাপাশা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি? খানসামায় আমের গাছে গাছে মুকুলের সমারোহ,বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা বিকাশের অর্থ সহায়তায় জড়িত থাকার তদন্তপূর্বক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন সড়ক দূর্ঘটনায় আহত বেনাপোলের এতিম লিটনকে বাঁচাতে দেশবাসীর কাছে সাহায্যের আবেদন চর লাঠিয়ালডাঙ্গা যেন মাদকের গ্রাম তানোরে কৃষকের আলু লুট !

জমিই মোর জন্য কাল হল… “পোলারা জাগা ল্যাইখ্যা নেছে এ্যাহোন মোরে কেউ জিগায় না”

বরগুনা প্রতিনিধিঃ’মোর পোলাপানে ব্যাবাক জাগাজমি লেইখ্যা নিয়ে মোরে রাস্তায় হালাইয়্যা থুইয়্যা গ্যাছে। মোরে খাওন-পরন দেয় না, মোরে মারে। মুই জাগা দেতে চাই নাই মোরে পোলারা মাইরা জাগা ল্যাইখ্যা লইয়্যা গ্যাছে। মাইঝ্যা পোলায়রে জাগা দিতে চাই নাই হেইয়্যার লইগ্যা মোরে মারছে। কাগোজে টিপ রাইখ্যা মোরে রাস্তায় থুইয়্যা গ্যাছে। সব পোলারা জাগা ল্যাইখ্যা নেছে এ্যাহোন মোরে কেউ জিগায় না। মুই এ্যাইয়্যার বিচার চাই।’

প্রতিবেদকের সাথে কথা বলছিলো ৯০ বছর বয়সী বৃদ্ধ আবদুল গনি হাওলাদার।

কান্না জনিত কণ্ঠে রবিবার  বিকেলে  হলদিয়া ব্রিজ সংলগ্ন স্থানে বসে এ কথা বলেছেন আমতলী উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের চন্দ্রা গ্রামের ৯০ বছর বয়সী বৃদ্ধ আবদুল গনি হাওলাদার।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা চাওড়া ইউনিয়নের চন্দ্রা গ্রামের এক সময়ের ধনাঢ্য ব্যক্তি আবদুল গনি হাওলাদার। তার ছিল ২৫ একর জমি। দুই স্ত্রীর পাঁচ ছেলে ও চার মেয়ে। বয়সের ভারে চোখে দেখেন না, কানে কম শোনেন ও ঠিকমত কথা বলতে পারেন না।

এ সুযোগে দুই স্ত্রীর পাঁচ ছেলে ইসমাইল, শাহজাহান, নুরুল হক, জামাল ও হেলাল বাবাকে ভালোবাসার অভিনয় করে যখন যেভাবে পেরেছে জমিজমা লিখে নিয়েছে। সম্প্রতি মেঝ ছেলে শাহজাহান হাওলাদার বাবাকে চিকিৎসা করানোর নাম করে তার আমতলী পৌরসভার বাসায় নিয়ে যায়। ওই বাসায় নিয়ে তার সমুদয় জমিজমা লিখে নেন। রবিবার সকালে শাহজাহান হাওলাদার ছেলে সোহেল রানা দাদাকে একটি গাড়িতে করে নিয়ে এসে উপজেলা হলদিয়া ব্রিজ সংলগ্ন স্থানে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়।

ওইদিন দুপুরে পেটের ক্ষুধায় কাতরাতে দেখে স্থানীয় লোকজন তাকে একটি দোকান ঘরে বসিয়ে পাউরুটি খেতে দেয়। আট ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও পাঁচ ছেলের কেউ তাকে নিতে আসেনি। খবর পেয়ে আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাশার ও এসআই মহিউদ্দিন গিয়ে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ আসার খবর পেয়ে ছেলেরা গা-ঢাকা দিয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, সাদা পাঞ্জাবি-টুপি পরিহিত বৃদ্ধ একটি দোকানে বসে আছেন। এক পাশে একটি পাউরুটি ও একটি মগে পানি। অন্য পাশে একটি ব্যাগে তার কাপড়-চোপড়। হাউমাউ করে কান্না করে বলতে থাকেন মোর জমিই মোর জন্য কাল হল। সব জমি ছেলেরা লিখে নিয়ে এখন কেউ খোঁজ নেয় না। এই বয়সে আমি কোথায় যাব। কেন মোর মরণ হয় না? ঠিকমতো কথা বলতে পারেন না। কাউকে দেখলে ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে থাকেন আর কাঁদেন।

হলদিয়া ব্রিজ সংলগ্ন গ্রামের চিকিৎসক রুহুল আমিন বলেন, ‘শাহজাহানের ছেলে সোহেল রানা শনিবার সকালে তার দাদা বৃদ্ধ আবদুল গনি হাওলাদারকে রাস্তায় ফেলে রেখে চলে যায়। ক্ষুধায় কাতরাতে দেখে আমরা রাস্তা থেকে তুলে একটি দোকানে বসিয়ে পাউরুটি খেতে দিয়েছি। দুপুর গড়িয়ে গেলেও কেউ তাকে নিতে আসেনি।’

বৃদ্ধ আবদুল গনি হাওলাদারের ভাইপো ফারুক হাওলাদার বলেন, ‘চাচার ২৫ একর জমি পাঁচ ছেলে তাদের প্রয়োজনমত বাবার কাছ থেকে জোরপূর্বক লিখে নিয়ে গেছে। এখন চাচার খোঁজ-খবর নেয় না।’

তিনি আরো বলেন, ‘চাচা জমি দিতে চায়নি কিন্তু পাঁচ ছেলে মারধর করে জোরপূর্বক জমি লিখে নেয়। তার সমুদয় জমি লিখে নেয়া শেষে নাতি সোহেল রানা রাস্তায় ফেলে রেখে গেছে।’

স্থানীয় আমজেদ মৃধা বলেন, ‘এই বৃদ্ধ বয়সে ছেলেরা সব জমি লিখে নিয়ে ভরন-পোষণ দেয় না। এর উপযুক্ত বিচার দাবি করছি।’

এ বিষয়ে বৃদ্ধের মেঝ ছেলে শাহজাহান ও সেজ ছেলে জামালের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তারা ফোন ধরেননি।

আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাশার জানান, ‘বৃদ্ধকে উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। তার ছেলেদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন  বলেন, ‘বিষয়টি দেখার জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে বলেছি।’###

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38333826
Users Today : 3929
Users Yesterday : 6494
Views Today : 13533
Who's Online : 58
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/