শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
মেয়ের খোঁজ নিতেন না তামিমা শাহবাগে লেখক মুশতাকের গায়েবানা জানাজা, জুতা মিছিল বনানীতে বিএনপির মশাল মিছিলে পুলিশের হামলার অভিযোগ অন্যের বিশ্বাসের প্রতি আঘাত করে লিখতেন মুশতাক: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রতি সোম ও বৃহস্পতিবার চলবে ঢাকা-নিউ জলপাইগুড়ি ট্রেন আতিকের প্রতারণার তথ্য পেল পুলিশ! কৃষকনেতা বি এম সোলায়মান মাষ্টার এর ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত গাবতলীর কাগইলে ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত গাবতলীর কাগইল করুণা কান্ত স্মৃতি ফুটবল টুনামেন্ট উদ্বোধন গাইবান্ধায় আটক ঘড়িয়ালটি যমুনা নদীতে অবমুক্ত সাঁথিয়ার একমাত্র মহিলা বীর মুক্তিযোদ্ধা ভানু নেছা আর নেই বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন এর সাধারণ সভা ও জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনা সরকার ক্ষতায় থাকলে অদুর ভবিষ্যতে দেশে অনুদান নেয়ার লোক থাকবেনা ……………………খাদ্য মন্ত্রী বরিশালে মহাসড়কের পাশে গড়ে উঠছে অবৈধ স্থাপণা জেলে মুশতাকের মৃত্যুর দায় সরকারের : মোমিন মেহেদী

ঝিনাইদহের মধুহাটি ইউপি নায়েবের বিরুদ্ধে ব্যাপক ঘুষ বানিজ্য ও কর পরিশোধ রশিদ ছিড়ে ফেলার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ২নং মধুহাটি ইউনিয়নের নায়েব ইলতুত মিসের বিরুদ্ধে কৃষকের ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ (স্থানীয় ভাষায় দাখলে) ছিড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার (২ডিসেম্বর) ইউনিয়নের বাজার গোপালপুরে অফিস সময়ে এই ঘটনা ঘটেছে। ভুক্তভোগি কৃষক ইউনিয়নের মামুনশিয়া গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে লাল মিয়া বলেন, প্রয়োজনীয় কাজে দাখলের (ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ) জন্য আমি ইউনিয়ন নায়েব অফিসের গিয়ে ছিলাম। দীর্ঘ কয়েক মাস ঘুরছি। এক পর্যায়ে নায়েব বলেন, বাড়ির জমির ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ আনলে অন্য জমিরটা দেয়া হবে। তিনি জানান (লাল মিয়া), আমি দীর্ঘ প্রায় ১৮ বছর মামুনশিয়া গ্রামের বাড়ির জমি বিক্রি করে ডাকবাংলা বাজারের বসবাস করছি। এরপরও নায়েব বলেন, তাহলে বিক্রির করা জমির দলিল দেখাতে হবে। এভাবে বিভিন্ন আজুহাতে ঘুরাতে থাকে। একপর্যায়ে গতকাল সোমবার (২ডিসেম্বর) বাজার গোপালপুর ভুমি অফিসে যাই এবং পূর্বের দাখলে (ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ) দেখে আমাকে নায়েব দাখলে দিতে রাজি হয়। তবে তিনি ৩’ হাজার ১’শ টাকা দিতে হবে দাবি করে। আমি তাকে ২’হাজার ৫’শ টাকা দিয়ে দিই। পরে মাত্র ১৬ টাকার (ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ) দাখলে আমাকে দেন। আমি বাকি টাকার কথা জানতে চাই। একপর্যায়ে তিনি পূর্বের (ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ) দাখলে ছিড়ে অফিসের পেছনের জানালা দিয়ে ফেলে দেয়। বিষয়টি আমি আমার ওয়ার্ড মেম্বরকে মোবাইল করে জানালে অবস্থা বেগতিক দেখে, তিনি (নায়েব) তড়িঘড়ি করে টাকা ফেরৎ দেন। পরে লোকজন আসলে ছিড়ে ফেলা সেই(ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ) দাখলেটি কুড়িয়ে মেম্বরসহ লোকজনের নিকট রাখি বলে জানান তিনি। তবে শুধু লাল মিয়ারই নয়, এই নায়েবের বিরুদ্ধে ইউনিয়নের একাধিক কৃষকের হয়রানির অভিযোগ রয়েছে বলে জানা গেছে। এবিষয়ে অভিযুক্ত ২নং মধুহাটি ইউনিয়নের অভিযুক্ত নাযেব ইলতুত মিশের নিকট মোবাইলে জানতে চাইলে তিনি, তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কারো ভুমি উন্নয়ন কর পরিশোধ রশিদ ছিড়িনি। আমার অফিসে দালাল মুক্ত করার জন্য কিছু লোকজনকে আমি বের করে দিয়েছি। আর কিছু লোক তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে বলেও তিনি অভিযোগ করে বলেন। তবে হয়রানি থেকে রেহাই পেতে জেলা প্রশাসকের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে একাধিক ভুক্তভোগি কৃষক।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38330747
Users Today : 850
Users Yesterday : 6494
Views Today : 2094
Who's Online : 29
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/