বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড় আসছে, ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত করোনায় দেশে মৃত্যু ও শনাক্ত কমেছে কাল থেকে চলবে গণপরিবহন, মানতে হবে যেসব নির্দেশনা ৫০ হাজার টন চাল আসছে ভারত থেকে গণপরিবহনের জন্য বিআরটিএ’র ৫ নির্দেশনা পার্বতীপুরে হেরোইনসহ একাধিক মাদক মামলার এক আসামি গ্রেফতার গোদাগাড়ীতে বৃত্তি ও শিক্ষাপোকরণ বিতরণ বড়াইগ্রামে ৪ হাজার ২’শ জনকে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা ইউনাইটেড খানসামা’র উদ্যোগে দুঃস্থ ও অসহায় নারী-পুরুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জে সরকারিভাবে ২৭ টাকা কেজি দরে ধান ক্রয়ের উদ্বোধন ১৬ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন চরম অর্থ সংকটে ভাড়াটিয়ারা, ভালো নেই বাড়িওয়ালারাও ৬ মে থেকে গণপরিবহন চালুর বিষয়ে প্রজ্ঞাপনে যা আছে ঈদের ছুটিতে কর্মজীবীদের কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ

ঝিনাইদহে বঙ্গমাতার ৮৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহঃ
৮ই আগষ্ট বৃহস্পতিবার বাদ আছর ঝিনাইদহ জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি হায়দার আলীর উদ্দোগে বঙ্গমাতার ৮৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বাদ আছর স্থানীয় কচাতলা মোড়ে হায়দার আলীর নিজ বাসভবনে বঙ্গমাতার জীবণীর উপর বিষদ আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। শহরের আদর্শপাড়া আওয়ামীলীগের সভাপতি রমজান আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে আলোচনা রাখেন জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি হায়দার আলী। আলোচনা রাখেন আদর্শপাড়া কচাতলা মোড় মসজিদ কমিটির সভাপতি রমজান আলী, ইমাম আব্দুর রশীদ, মসজিদ কমিটির নেতা গোলজার হোসেন প্রমূখ। আলোচনা শেষে হায়দার আলীর উদ্দোগে আদর্শপাড়া কচাতলা মোড়ে স্থানীয় মসজিদে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের আত্মার শান্তি কামনা করে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুর রশীদ মরহুমা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করেন। এছাড়াও বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় বঙ্গমাতার ৮৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি হায়দার আলী বঙ্গমাতার ৮৯তম জন্মবার্ষিকী তার জীবণীর উপর প্রধান অতিথির বক্তব্য ও আলোচনায় বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্ম ১৯৩০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে। বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মাত্র ৩ বছর বয়সে পিতা ও পাঁচ বছর বয়সে মাতাকে হারান। তাঁর ডাক নাম ছিল রেনু। পিতার নাম শেখ জহুরুল হক ও মাতার নাম হোসনে আরা বেগম। বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের স্মৃতিশক্তি অত্যন্ত প্রখর ছিল। মনেপ্রানে একজন আদর্শ বাঙ্গালী নারী ছিলেন। অত্যান্ত বুদ্ধিমত্তা, শান্ত, অসীম ধৈর্য ও সাহস নিয়ে জীবনে যে কোন পরিস্থিতি দৃঢ়তার সঙ্গে মোকাবেলা করতেন। তাঁর কোন বৈষরিক চাহিদা ও মোহ ছিল না। তিনি ছিলেন অত্যন্ত দানশীল। ইতিহাসে তাই বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কেবল একজন রাষ্টনায়কের সহধর্মীণীই নন;বাঙ্গালীর মুক্তি সংগ্রামে অন্যতম এক স্মরণীয় অনুপ্রেরণাদাত্রী। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর পরিবারের অপরাপর সদস্যদের সঙ্গে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কেও মানবতার শত্রু, ঘৃণ্য,ঘাতক দুশমনের দল নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে।

Please Share This Post in Your Social Media


বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

https://twitter.com/WDeshersangbad

© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone