মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৯:৩৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নোয়াখালী সুবর্ণচরের বিএনপি নেতা এনায়েত উল্লাহ বি কম এর ইন্তেকাল নওগাঁর মহাদেবপুরে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গণকবর প্রাচীর দিয়ে সংরক্ষণের দাবি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের শিক্ষা জাতীয় করন নিয়ে মনের কষ্ট ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যক্ত করলেন অধ্যক্ষ এস এম তাইজুল ইসলাম কুলিয়ারচরে দিনব্যাপী ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন ২৫ ও ২৬ মার্চ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল জিয়া মমতাকে ছেড়ে আসা মিঠুন এখন মোদির দলে সন্তান কোলে নিয়েই দায়িত্ব সামলাচ্ছেন নারী ট্রাফিক পুলিশ স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদ মিয়ানমারে রাস্তায় হাজারো হাজার লোকের বিক্ষোভ স্কুল শিক্ষককে বিয়ে করলেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী প্রতারণার মামলায় ডা. সাবরিনার জামিন আবেদন নামঞ্জুর চট্টগ্রামে প্রবাসী হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড সামাজিক মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ লেখা সতর্ক করলেন প্রধান বিচারপতি নিবন্ধনধারীদের এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ ১৫ দিনের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনধারীদের নিয়োগ

ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহার  পেলেন ৩৮ ভূমিহীন পরিবার

গোপাল চন্দ্র রায়-ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় “জমি নাই, ঘর নাই” এমন ভূমিহীন ৩৮ অসহায় পরিবার পেলেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার  রঙ্গিন ঘর।
শনিবার (২৩ জানুয়ারী) উপজেলা পরিষদের আয়োজনে কাগজপত্র হস্তান্তরের লক্ষ্যে  ইউএনও র  সভাকক্ষে ডাকা হয় তালিকা ভুক্ত ৩৮ জন সুবিধাভোগী পরিবারকে। প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সে সরাসরি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদেন দেশের ৪টি জেলা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধনের পর জমির কবুলিয়ত দলিল এবং খাজনা খারিজের কাগজপত্র আনুষ্ঠানিক ভাবে গৃহহীনদের মাঝে হস্তান্তর করেন ইউএনও শাহিনা শবনম।
এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মনোয়ার হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক সরকার,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেগম রৌশন কানিজ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি খায়রুল আলম বাবুল, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ এবং উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তাবৃন্দ।
এসব ঘড় নির্মানকাজের তত্বাবধানে ছিলেন ইউএনও শাহিনা শবনম। তিনি জানান, মুজিব শতবর্ষে ডোমার উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন ‘ক’ শ্রেণীর দরিদ্র পরিবারের বাসস্থান নিশ্চিত করতে উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন কেতকীবাড়ী ইউনিয়নে ৬টি, গোমনাতী ইউনিয়নে ১১টি, বামুনিয়া ইউনিয়নে ৯টি, বোড়াগাড়ী ইউনিয়নে ৭টি এবং হরিনচড়া ইউনিয়নে ৫টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি ঘরের নির্মান ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লক্ষ ৭১ হাজার টাকা। প্রতিটি ঘরে থাকছে দুটি শয়নকক্ষ, ঘরসংলগ্ন একটি বাথরুম ও লেট্রিন, একটি রান্নাঘর এবং একটি করে বারান্দা। বাড়ীগুলোতে বিদুৎ ও পানির ব্যবস্থা করা হবে।
ঘড় পেয়ে উল্লোসিত ও আনন্দিত তালিকা ভুক্ত পরিবারগুলো। জমি ও ঘড় পাওয়া পাঙ্গা মটুকপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা ছফরত আলী স্ত্রী আমেনা বেগমকে সাথে নিয়ে আসেন। তিনি জানান,আমি দিন মজুরী করে জীবিকা নির্বাহ করি। আমার ৪সন্তান তারাও মানুষের বাড়ীতে কাজকর্ম করে খায়। আমার কোন জায়গা জমি নাই। ঘড় ও জমি পেয়ে খুবই ভালো লাগছে। কেতকীবাড়ী ইউনিয়নের বাসিন্দা মমিনুর রহমান জানান,আমার মা এবং আমার তিন সন্তানসহ ৬ সদস্যের পরিবার। জায়গা জমি না থাকায় সরকারী খাস জমিতে থাকতাম। সেখানে পাকা ঘড় এবং জমির মালিক হতে পেরে আমি খুবই খুশি। আল্লাহ যেন প্রধানমন্ত্রীকে দীর্ঘজীবি করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38374598
Users Today : 1318
Users Yesterday : 4902
Views Today : 6580
Who's Online : 39
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/