সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৩১ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
অভিযোগ প্রমাণ হলেই বাদ যাবে নাম হাজী সেলিমের হাতে জিম্মি লালবাগ? হাজী সেলিমের ঘটনায় ক্ষুদ্ধ সরকার! অপরাজিত এক মুসলিম ফাইটারের অশ্রুসিক্ত বিদায় মর্গ্যানের বিপক্ষে টস জিতল রাহুল, কলকাতা হারলেই বাদ চরমোনাই পীরের নেতৃত্বে ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাওয়ের ঘোষণা প্রোটিয়া ক্রিকেট থেকে সবার পদত্যাগের সিদ্ধান্ত আমি মুহাম্মাদকে (সা.) ভালোবাসি, লেখা মাস্ক পরে ঘুরছেন এমপি বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের সেরা ‘পাঁচ’ ব্যাটসম্যানের তালিকায় আছেন যারা গাবতলী কাগইলে বিভিন্ন দূর্গাপূজা মন্ডপে আর্থিক অনুদান দিলেন আ’লীগ নেতা রশিদ রৌমারী সীমান্তে ৪০প্যাকেট ধানবীজ আটক বকশীগঞ্জে আলহাজ গাজী আমানুজ্জামান মডার্ন কলেজে একাডেমিক ভবনের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন বকশীগঞ্জে অনলাইন ক্লাসের সুবিধা পেতে শিক্ষার্থীদের মাঝে স্মার্ট ফোন বিতরণ বিরামপুরে সারদীয় দূর্গা পূঁজা মন্ডপ পরিদর্শনে মাস্ক,শাড়ী লুংঙ্গি ও আর্থিক সহযোগিতা প্রদানে মালেক মন্ডল সাঁথিয়ায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ইছামতি নিউজ২৪.কম’র উদ্বোধন করলেন এমপি

তানোরে চিকিৎসার নামে প্রতারণা

 

তানোর(রাজশাহী)প্রতিনিধি
রাজশাহীর তানোরে চক্ষু চিকিৎসার নামে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে,চলতি বছরের ২৪ সেপ্টেম্বার বৃহস্প্রতিবার তালন্দ এএম উচ্চ বিদ্যালয়ে দিনব্যাপী দৃস্টি চক্ষু সেবা কেন্দ্রের উদ্যোগে চক্ষু ও মাথার চিকিৎসা ক্যাম্প স্থাপন করে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ডাঃ মোঃ আমিনুর রশিদ আকন্দ (এমবিবিএস,বিসিএস স্বাস্থ্য,
এমএস চক্ষু) এর নামে লিফলেট দিয়ে রোগী প্রতি ৫০ টাকা ফি নিয়ে চক্ষু পরীক্ষা ও স্বল্প মুল্য চমশা দেয়ার কথা বলা হয়। এদিন তিনি প্রায় ৩০০ রোগীর চক্ষু পরীক্ষা করেন। কিন্ত্ত রোগীদের চিকিৎসার নামে রাজশাহীর আমানা হাসপাতালে (অপারেশন)চিকিৎসা করানোর পরামর্শ দিয়ে ডাক্তার ফি ৫০ টাকা ও ভর্তি ফি ১০০ টাকা করে নিয়ে আমানা হাসাপাতালে ভর্তি করেন তাদের প্যাকেজ মুল্য ৩ হাজার ৬০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়।
এভাবে তিনি চিকিৎসার নামে রোগী ধরছেন। এর আগেও এই ডাক্তার একই কায়দায় মাদারীপুর বাজারে পল্লী চিকিৎসক বাবুর দোকানে ক্যাম্প করে প্রায় দু”শতাধিক রোগীকে আমানা হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন। এদিকে কথিত চিকিৎসা ক্যাম্প খুলে এভাবে রোগী ধরা হলেও এর জন্য স্বাস্থ্য বিভাগ বা উপজেলা প্রশাসনের কোনো অনুমতি নেয়া হয়নি। আবার রোগী দেখার সময় সামাজিক দুরুত্ব বজায় রাখা হয়নি অনেক রোগীকে গাদাগাদি করে বসিয়ে চক্ষু পরীক্ষা করে আমানা হাসপাতালে ভর্তি করায়।
স্থানীয়রা, জানান আসলে চিকিৎসার নামে এই ডাক্তার আমানা হাসপাতালের রোগী ধরা দালাল হিসেবে কাজ করছে।এদিকে তারা রোগী ধরার জন্য রাজশাহী অঞ্চলে বিশাল নেট ওয়ার্ক গড়ে তুলেছেন। এরা একেক দিন একেক এলাকায় কথিত চিকিৎসা ক্যাম্প খুলে রোগী ধরে আমানা হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছেন। এবিষয়ে জানতে চাইলে চিকিৎসক বলেন, তার নাম ডাঃ মেহেদী হাসান তিনি আমানা হাসপাতালে বসেন। তিনি বলেন, ডাঃ আকন্দ স্যার না আশায় তিনি রোগী দেখে পরামর্শ দিচ্ছেন, যাদের অপারেশন করাতে হবে তাদের আমানা হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে, তবে রোগী চাইলে যেকোনো জায়গায় চিকিৎসা করতে পারেন। তিনি আরো বলেন, আমানা হাসপাতালে ডাঃ আকন্দ স্যার অপারেশন করাবেন। এবিষয়ে ডাক্তারের সহকারী বলেন, তার নাম শাহিন আলম তিনি সেটেলম্যান হিসেবে কাজ করছেন। এবিষয়ে জানতে চাইলে তালন্দ এএম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলতাব হোসেন বলেন, স্কুলের সভাপতির নির্দেশে তাদের চিকৎসা ক্যাম্প খোলার জায়গা দেয়া হয়েছে এর সঙ্গে তাদের কোনো সম্পৃক্ততা নাই। এব্যাপারে তানোর উপজেলা  স্বাস্থ্য কর্মকর্তা(টিএইচও) ডা, রোজীআরা বলেন, এমন ক্যাম্পের কথা তার জানা নাই।#

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37677835
Users Today : 8543
Users Yesterday : 8769
Views Today : 23850
Who's Online : 73
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone