বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৩৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
ঋণের জন্য ব্যাংকে উপেক্ষিত ছোট উদ্যোক্তারা করোনার সংক্রমণ ১৪ এপ্রিল থেকে যেভাবে পাওয়া যাবে ব্যাংকিং সেবা বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ডাবের খোসায় গর্ত ভরাট‍! নিয়মিত পর্নো ভিডিও দেখতেন শিশুবক্তা রফিকুল আইপিএল নিয়ে জুয়ার আসর থেকে আটক ১৪ কারাগারে কেমন কাটছে পাপিয়ার দিনকাল এক ঘুমে কেটে গেলো ১৩ দিন! কেউ ‘কাজের মাসি’, কেউবা ‘সেক্সি ননদ-বৌদি’ ৬৪২ শিক্ষক-কর্মচারীর ২৬ কোটি টাকা ছাড় করোনায় আরো ৬৯ জনের মৃত্যু, আক্রন্ত ৬০২৮ বাংলাদেশে করোনা টানা তিনদিন রেকর্ডের পর কমল মৃত্যু, শনাক্তও কম করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপি শো-রুম থেকে প্যান্ট চুরি করে ধরা খেলেন ছাত্রলীগ নেতা করোনা নিঃশব্দ ও অদৃশ্য ঘাতক,সতর্কতাই এ থেকে মুক্তির একমাত্র পথ ——-ওসি দীপক চন্দ্র সাহা তানোরে প্রণোদনার কৃষি উপকরণ বিতরণ

তৃষ্ণা মেটাতে ডাবের কদর বেড়েছে বরিশালে 

মনির হোসেন বরিশাল ব্যুরো :
আর মাত্র এক সপ্তাহ পরে আসবে চৈত্র। ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করেছে তাপমাত্রা। এসময় বরিশালে বিভিন্ন শরবত ও কোমল পানীয়র পাশাপাশি চাহিদা বেড়েছে ডাবের। নগরীর বিভিন্ন সড়কের পাশে কিছুদূর নপর পরই দেখা যায় ভ্যানে ডাব বিক্রির ভাসমান দোকান।
অন্যান্য পানীয়র তুলনায় ডাবের পানি শতভাগ নিরাপদ। দাম একটু বেশি হওয়ায় নিম্নবিত্তের তৃষ্ণার্ত মানুষ ডাবের পানির পরিবর্তে হাট-বাজারে বিক্রি হওয়া বেলের শরবত, আখের গুড়ের শরবত পান করছেন। গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডাবের চহিদা ও দাম। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ডাব কিনে তা ফেরি করে বিক্রির টাকায় সংসার চলছে অনেকের। গ্রামের কৃষকরা সাধারণত গাছের ডাব বিক্রি করতে বাজারে আসেন না। তাই পাইকারদের বাড়ি গিয়ে চড়াদামে ডাব কিনতে হচ্ছে।
বরিশাল নগরীর নাসির উদ্দিন, ইউনুস ও মোতালেবসহ বেশ কয়েকজন ডাব বিক্রেতা জানান, তারা বিভিন্ন এলাকা ঘুরে প্রতিটি ডাব গড়ে ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা করে কিনেন। বেশি পরিমাণে ডাব কিনতে পারলে তারা বরিশালের বিভিন্ন জেলা শহরে সরবরাহ করেন। আর কম সংখ্যক ডাব কিনলে নগরীর বিভিন্ন এলাকাতেই ভ্যানে ভরে ফেরি করে বিক্রি করেন তারা।
তারা আরো বলেন, আকার ও জাত ভেদে ১০০ ডাব এক হাজার ৫০০ টাকা থেকে দুই হাজার ৫০০ টাকা করে কিনতে হয়। আর প্রতিটি ডাব খুচরা হিসেবে বিক্রি করেন ৩০ টাকা থেকে ৫০ টাকা করে। এতে সারাদিনে গড়ে এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা লাভ হয়। এ টাকাতেই ছেলে-মেয়েদের পড়ালেখা ও সংসার খরচ চলে।
শনিবার (৬ মার্চ) নগরীর হাতেম আলি চৌমাথা এলাকায় ডাব কিনতে আসা ডাব ক্রেতা ইমাম হোসেন ও সাইদুর রহমান জানান, পৃথিবীতে প্রায় সব জিনিসে ভেজাল মিশ্রিত হচ্ছে। এমনকি কিছুদিন আগে মিনারেল ওয়াটারসহ পানি বিশুদ্ধকরণ কোম্পানিতে ও বিভিন্ন দোকানে অভিযান চালিয়ে ময়লা পানি দিয়ে বাজারজাত করার জন্য জরিমানা করা হয়। এ দেখে বাজারের বোতলজাত পানির প্রতিও আস্থা হারিয়ে গেছে। কিন্তু ডাবের পানিতে কোনো প্রকার ভেজাল মেশানো সম্ভব না। তাই ডাবের দাম একটু বেশি হলেও নিরাপদ ও অতি উপকারী এ পানি হাতের নাগালে পাওয়ায় আমরা খুশি।
তারা বলেন, দেশের সব বাজারে স্থায়ীভাবে ডাব বিক্রির দোকান থাকলেও বিশেষ প্রয়োজনে জনসাধারণ বা ক্রেতারা যেকোনো সময় খুব সহজে ডাব কিনতে পারতেন। পাশাপাশি ডাব গাছের মালিকরাও প্রয়োজনে ডাব বিক্রি করতে পারতেন। এতে ক্রেতা-বিক্রেতা সবাই লাভবান হতেন।
মনির হোসেন

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38444903
Users Today : 517
Users Yesterday : 1341
Views Today : 5361
Who's Online : 28
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone