মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
করোনায় ধস নেমেছে বৈদেশিক কর্মসংস্থানে এমসি কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যতো অভিযোগ বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা এক সফল রাষ্ট্রনায়কের প্রতিকৃতি জন্মদিনে দোয়া চেয়ে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী স্বজন ও আইনজীবীদের সাক্ষাৎ পাবেন না ওসি প্রদীপ এমপি রতন ও তার স্ত্রীর ব্যাংক হিসাব তলব তাজউদ্দিন আহমদের বোনের ইন্তেকাল, প্রধানমন্ত্রীর শোক ১২ নভেম্বর ভোট হবে ইভিএমে ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতিকে ক্যাম্পাসে দেখতে চায় না শিক্ষার্থীরা ঢাবি এলাকায় নুর, ড. কামাল ও আসিফ নজরুল অবা‌ঞ্ছিত তারুণ্যের অগ্রযাত্রার উদ্যোগে ব্যতিক্রমভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে বিরামপুরে বৃক্ষরোপণ ও দোয়া মাহফিল কর্মসূচি কক্সবাজারের চকরিয়ায় ২ শিশু ভাই-বোন কে জবাই করে ও হাত কেটে হত্যার চেষ্টা! দেশের গন্ডি পেরিয়ে শেখ হাসিনা এখন বিশ্ব নন্দিত নেতা: রেজাউল করিম চৌধুরী পশ্চিম সুন্দরবনের অভয়ারন্যে পাঁচ জেলে আটক

থানায় নিয়ে যুবলীগ নেতাকে মারধর, হাসপাতালে ভর্তি, ওসি প্রত্যাহার

নেত্রকোনায় যুবলীগ নেতা আলম তালুকদারকে (৩২) মারধরের অভিযোগে দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমানকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে মিজানুরকে দুর্গাপুর থানা থেকে সরিয়ে জেলা পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে। তাঁর স্থলে জেলা গোয়েন্দা বিভাগের ওসি শাহ নূর এ আলমকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

আহত যুবলীগ নেতা আলম তালুকদার দুর্গাপুর উপজেলার বাকলজোড়া ইউনিয়ন যুবলীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য। তিনি বাকলজোড়া এলাকার মৃত আলাল তালুকদারের ছেলে।

এলাকাবাসী ও নেত্রকোনা জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার সন্ধ্যায় আলম তালুকদার পৌর শহরের এমপির মোড় এলাকায় সড়কের পাশে অবস্থান করছিলেন। এ সময় মো. আবদুল কাইয়ুম নামের স্থানীয় এক ছাত্রদলকর্মীসহ তিনজন একটি মোটরসাইকেলে করে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে যাচ্ছিলেন। কাইয়ুম উপজেলার মেলাডহর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। বিষয়টি দেখে কাইয়ুমকে মোটরসাইকেল থামাতে বলেন আলম তালুকদার। কিন্তু কাইয়ুম তা না মেনে চলে যেতে চাইলে আলম তালুকদার ও তাঁর সঙ্গে থাকা কয়েকজন কিছুটা দৌড়ে গিয়ে কাচারী মোড় এলাকায় কাইয়ুমকে আটক করেন। এ সময় কাইয়ুমের সঙ্গে থাকা দুই সহযোগী দৌড়ে পালিয়ে যান।

আটক করার পর আলম তালুকদার ও কাইয়ুমের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে আলম কাইয়ুমকে পাশের একটি ঘরে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদসহ মারধর করেন। একই সঙ্গে পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে আলম ও কাইয়ুমকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

আলম তালুকদারের পরিবারের অভিযোগ, থানায় গিয়ে আলমের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ দেন কাইয়ুম। এ সময় আলম তালুকদারকে থানায় বেধড়ক মারধর করেন দুর্গাপুর থানার ওসি মিজানুর রহমান। এতে আলম গুরুতর আহত হলে পুলিশ ও তাঁর স্বজনরা দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাত ১০টার দিকে তাঁকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনার পর আজ মঙ্গলবার সকালে নেত্রকোনা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আকবর আলী মুন্সী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মুহাম্মদ ফকরুজ্জামান জুয়েল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেড কোয়ার্টার) মো. আল আমিন হোসাইন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে বিকেলে ওসি মিজানুর রহমানকে দুর্গাপুর থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়।

নেত্রকোনার এসপি মো. আকবর আলী মুন্সী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। ওসি মিজানুর রহমানের কিছু কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। তাঁকে থানা থেকে সরিয়ে পুলিশ লাইনসে যুক্ত করা হয়েছে। এ বিষয়ে আরো অধিকতর তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ রেঞ্জের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37516178
Users Today : 956
Users Yesterday : 7123
Views Today : 1770
Who's Online : 49
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone