বুধবার, ১২ অগাস্ট ২০২০, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
প্রাচীন কালের এই নিয়মগুলি মেনে চলুন, সেক্স লাইফ উপভোগ করুন ভালোবাসা কতটা প্রকাশ পাবে চুম্বনে গর্ভাবস্থায় যৌনমিলন? এই বিষয়গুলি অবশ্যই মাথায় রাখবেন পর্নোগ্রাফিতে নারীদের আগ্রহ বেশি শ্রমিক থেকে দুলাল ফরাজী ফ্যাক্টরীর মালিক  সুন্দরবনে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ শিকার ৯ জেলে আটক প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ভুমিহীনদের জমি দখলের চেষ্টা বন্ধের দাবিতে গাইবান্ধায় মানববন্ধন গাইবান্ধার ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙনে ১৫৫টি বসতবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন গাইবান্ধায় করোনা আক্রান্ত -৭৪৬ সুস্থ্য -৪১৬ ,মৃত্যু- ১৩ পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট দিনব্যাপী নানা কর্মসূচী পালন বাংলাদেশের সাবমেরিন ক্যাবল কুয়াকাটার দ্বিতীয় ল্যান্ডিং কাটার অপরাধে গ্রেফতার২। প্রথম আলো পত্রিকায় প্রকাশিত “আবুল বারকাতের প্রতিবাদ ও প্রতিবেদকের বক্তব্য” সস্পর্কে আমার বক্তব্য প্রকাশ প্রসঙ্গে পতœীতলায় শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসব পালিত বকশীগঞ্জে কিন্ডার গার্টেন শিক্ষকদের মানবেতর জীবনযাপন চাই রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন ও দুর্নীতি নির্মূল: টিআইবির আহŸান

পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত পুঁজিপতিদের হাতে পাট শিল্পকে তুলে  দেওয়ার গভীর চক্রান্ত

বাসদ (মার্কসবাদী)

কেন্দ্রীয় কার্য  পরিচালনা কমিটি

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: ৪ জুলাই ’২০

 

বাসদ (মার্কসবাদী) -এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী এক বিবৃতিতে বলেন–
“গত ৩ জুলাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিনা নোটিসে অযৌক্তিকভাবে ২৫টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়। কারণ হিসেবে বলা হয়েছে পাটকলগুলো বছরের পর বছর লোকসান গুনে যাচ্ছিলো। সরকার আর লোকসান দিতে পারবে না। এবং এর দায় যথারীতি চাপানো হয় শ্রমিকদের ওপর। কিন্তু সত্য হলো, এর জন্য দায়ী সরকারের দুর্নীতি-ভুলনীতি, বিজেএমসি’র ( বাংলাদেশ জুট মিলস কর্পোরেশন) কর্মকর্তাদের অবাধ লুটপাট। আওয়ামী সরকার পাবলিক -প্রাইভেট পার্টনারশিপের কথা বলে পাটকল বন্ধ ঘোষণা করলো। এর মূল কথা হলো জনগণের প্রতিষ্ঠান পাটশিল্পকে বেসরকারি পুঁজিপতিদের হাতে ছেড়ে দেওয়া। এর মধ্য দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে পাটকলের সঙ্গে যুক্ত ৫২ হাজার শ্রমিক, তাদের পরিবার। এছাড়া  উৎপাদন -বিপণনসহ  পাট সম্পর্কিত বিভিন্ন কাজের সাথে যুক্ত প্রায় ৪ কোটি মানুষ।
করোনা মহামারীতে বিপর্যস্ত মানুষের জীবন- জীবিকা । এসময় দরকার ছিলো শ্রমজীবী মানুষের জন্য রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে অধিক কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা। তা না করে উল্টো পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো।

বলা হচ্ছে, শ্রমিক ছাঁটাই হবে না। ‘গোল্ডেন হ্যান্ডশেক’-এর মাধ্যমে শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে দেওয়া হবে। এতে খরচ হবে ৫ হাজার কোটি টাকা। আমাদের প্রশ্ন, সরকার ১২০০ কোটি টাকা ব্যায় করে পুরনো যন্ত্রগুলো মেরামত করে উৎপাদনে যেতে পারতো। এতে পাটকলগুলো রক্ষা পেতো, শ্রমিকদের  কর্মসংস্থান কিছুটা হলেও নিশ্চিত হতো। তা না করে যে ‘গোল্ডেন হ্যান্ডশেক’-এর  কথা বলার মানে হলো- শ্রমিকদের ঠকানোর জন্য, আন্দোলন যেন গড়ে না ওঠে তা সামাল দেওয়ার  বুর্জোয়া চালাকি মাত্র।

গোটা পৃথিবীতে কৃত্রিম তন্তুর চাহিদা কমছে, বিপরীতে বাড়ছে পাট ও পাটজাত দ্রব্যের চাহিদা। দেশের বেসরকারি পাটশিল্পগুলোও  লাভজনক অবস্থানে আছে। আমরা দেখেছি- কোন পাবলিক খাতকে বেসরকারিকরণের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে  প্রথমে খাতগুলোকে লোকসান দেখানো হয়। এরপর বলা হয় এভাবে তো চালানো যায় না এবং সবশেষে বন্ধ করা হয় বা ব্যবসায়ীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। পুরো প্রক্রিয়ার পেছনে কাজ করে গভীর চক্রান্ত।

দেশের স্বাধীনতার পর বিজেএমসি’র নিয়ন্ত্রণে মোট পাটকল ছিলো ৭৬টি। কমতে কমতে সর্বশেষ ছিলো ২৫টি।  তাও বেসরকারি মালিকানায় তুলে দেওয়া হচ্ছে। বিগত বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার বন্ধ করে আদমজী জুট মিল। বর্তমান আওয়ামী সরকারও এ ধরনের গণবিরোধী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভিন্ন দল,ভিন্ন সময় কিন্তু শাসকশ্রেণির চরিত্র অভিন্ন।”

পাটকল বন্ধের যে গণবিরোধী সিদ্ধান্ত তা বাতিলের দাবিতে  পাটকলের শ্রমিক, শ্রমজীবী মানুষ ও জনগণকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone