বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৭:০২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
ধর্ষণের ঘটনা মীমাংসায় সালিশ কেন অপরাধ নয়: হাইকোর্ট সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ দেশে ফেরামাত্র পি কে হালদারকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ করোনায় আরো ২৪ মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৪৫ নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের জন্য গণচাঁদা চাইলেন নুর নিয়ন্ত্রণহীন নিত্যপণ্যের বাজার, দায় এড়াচ্ছে কর্তারা নির্বাচন কমিশন আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনে পরিণত হয়েছে: ফখরুল চট্টগ্রামে এসিল্যান্ডের গাড়িতে ককটেল হামলা বন্ধুর স্ত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও পর্নোসাইটে, বিএনপি নেতা গ্রেপ্তার সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা নিবে ঢাবি উপ-নির্বাচনে জিতলেন ওবায়দুল কাদেরের ‘স্বাক্ষর জালের আসামি’ মাদকে ক্রসফায়ার, ধর্ষণে পুরষ্কার ইসলামপুরে ব্যবসায়ীদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের মত বিনিময় কুষ্টিয়ার যে বাজারে দুই কোটি টাকার সবজি কেনাবেচা প্রতিদিন আলুর দর -৩০  রৌমারীতে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সেলিমের বিরুদ্ধে অপপ্রচার : এলাকাবাসীর প্রতিবাদ  বিশ্ববিদ্যালয় কেন খোলা হবে না ?

প্রেমিক রিফাত গ্রেফতার: বেরিয়ে এলো দুই বোন হত্যার রহস্য

রংপর নগরীর মধ্য গনেশপুর এলাকায় বাসা থেকে স্কুল ছাত্রী দু বোনের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় রংপুর মেট্রোপলিটান পুলিশের কোতয়ালী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ তদন্ত করতে গিয়ে নিশ্চিত হয় দু বোন আত্মহত্যা করেনি তাদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

এদিকে মেট্রোপলিটান পুলিশের মিডিয়া বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডিবির অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার উত্তম প্রসাদ পাঠক সন্ধ্যা পৌনে ৭ টার দিকে স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রধান আসামী রিফাতকে গ্রেফতার করার বিষয়টি জানানো হয়। এবং তিনি নিজেও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ইসলাম বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নম্বর ৩১ তারিখ ১৯/৯/২০ইং।

মেট্রোপলিটান পুলিশের মিডিয়া শাখার পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শনিবার বিকেল ৩ টা ১০ মিনিটে রংপুর নগরীর মধ্য বাবুখাঁ মহল্লা থেকে দু বোন হত্যার মুল নায়ক মাহফুজার রহমান ওরফে রিফাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বাবার নাম এমদাদুল ইসলাম। পুলিশ জানায়, আসামীকে সু কৌশলে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার বিষয়ে তথ্য প্রদান করে।

যেভাবে দুবোনকে হত্যা করা হয়ঃ
পুলিশের বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, নগরীর মধ্য গনেশপুর এলাকায় মমিনুল ইসলামের মেয়ে জান্নাতুল মাওয়া নবম শ্রেনীর ছাত্রী এবং মোকসেদুল ইসলামের মেয়ে সুমাইয়া আখতার মীম এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। তারা দুজনেই চাচাতো জেঠাতো বোন। তারা একই বাসায় পাশাপাশি ঘরে থাকতো। জান্নাতুল মাওয়ার বাবা মা তাদের স্বজনদের বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুরে গিয়েছিলো।

তবে মীমের বাবা মা বাসাতে থাকলেও তারাও বাইরে ছিলো। ঘটনার দিন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নিহত সুমাইয়া আখতার মীমের প্রেমিক মাহফুজার রহমান রিফাত মীমকে ফোন করে তাদের বাসায় আসে। তারা দুজনেই মীমদের থাকার ঘরে অবস্থান করে।

এদিকে মীমের চাচাতো বোন জান্নাতুল মাওয়া হঠাৎ করে মীমদের ঘরে ঢুকে মীম ও তার প্রেমিক রিফাতকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে সে বিষয়টি তার বাবা-মাকে বলে দেবে বলে জানায়। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে মীম ও তার প্রেমিক রিফাত জান্নাতুল মাওয়ার ঘরে প্রবেশ করে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এবং আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেবার জন্য মুখে বিষ ঢেলে দেয় এবং গলায় ব্লেড দিয়ে কিছু অংশ কেটে ফেলে। এ ঘটনার পর রিফাতের সাথে মীমের কথা কাটাকাটি হয় রিফাত যখন বুঝতে পারে মীমও হয়তো জান্নাতুল মাওয়াকে মেরে ফেলার ব্যাপারে তার নাম বলে দিতে পারে। সে কারণে রিফাত মীমকে হত্য করার পরিকল্পনা করে। সাথে সাথে মীমকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে তার লাশ ঘরের মধ্যে সিলিং ফানের মধ্যে ঝুলিয়ে দিয়ে রিফাত তাদের বাসা থেকে বের হয়ে যায়।

দুপুর দেড়টার দিকে ঘরের মধ্যে সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না পেঁচানো অবস্থায় মীমের লাশ দেখে এবং জান্নাতুল মাওয়াকে অন্যঘরে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে আশে পার্শ্বের লোকজন জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নাইনে ফোন করে জানায়। এরপর পুলিশ এসে তাদের দু বোনের লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ জানায় জান্নাতুল মাওয়ার গলায় ব্ল্ডে দিয়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

তবে কেন কিভাবে তারা আত্মহত্যা করলো বা কেউ তাদের হত্যা করেছে কিনা নিহত হবার কোন কারন তাৎক্ষনিকভাবে পুলিশ নিশ্চিত করতে পারেনি। খবর পেয়ে মেট্রোপলিটান পুলিশের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) মারুল আহাম্মেদ উপ কমিশনার শহিদুল্লা কাওছার কোতয়ালী থানার ওসি আব্দুর রশিদ সহ উর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এসে হিহত হবার কারণ উদঘাটন করার চেষ্টা করেন।

পরে দু বোনের লাশ উদ্ধার করে এ্যাম্বুলেন্সে করে রংপুর মেডিকেল কলেজে ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনায় শুক্রবার নিহত মীম ও জান্নাতুল মাওয়ার বেশ কয়েকজন স্বজনসহ ১০/১২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ থানায় নিয়ে আসে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে দু বোনের সাথে কারো প্রেমের সম্পর্ক ছিলো কিনা বিভিন্ন বিষয় তাদের সাথে কথা বলেন।

তবে মীমের মোবাইল ফোনে পাওয়া রিফাতের নম্বরে বিভিন্ন সময়ে কথা বলা এবং হত্যাকান্ডের আগে তাদের বাসায় আসার আগেও কথা হবার বিষয়টি তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে নিশ্চিত হয়ে পুলিশ নগরীর মধ্য বাবু খা মহল্লা থেকে রিফাতকে গ্রেফতার করে। তবে রিফাতের সাথে আরো কেউ ছিল কিনা আরো কোন ঘটনা নেপথ্যে আছে কিনা পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে।

এ ব্যাপারে মেট্রোপলিটান পুলিশের মিডিয়া শাখার উপ পুলিশ কমিশনার উত্তম প্রসাদ পাঠকের সাথে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমরা রিফাতকে গ্রেফতার করেছি তার কাছ থেকে বিভিন্ন তথ্য পাচ্ছি। পুরো বিষয় রোববার সংবাদ সম্মেলন করে জানানো হতে পারে বলে জানান তিনি।

তবে মেট্রোপলিটান পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার শহিুল্লা কাওছার ও কোতয়ালী থানার ওসি আব্দুর রশিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37634484
Users Today : 2604
Users Yesterday : 5388
Views Today : 8859
Who's Online : 18
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone