দেশের সংবাদ l Deshersangbad.com » বাংলাদেশে ঢুকছে আরাকানিরা



বাংলাদেশে ঢুকছে আরাকানিরা

১০:২৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রু ০৮, ২০১৯ |জহির হাওলাদার

47 Views
মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির (এএ) মধ্যকার তীব্র লড়াইয়ের ফলে চিন রাজ্যের পালেতওয়া টাউনশিপ থেকে বিতাড়িত প্রায় আড়াই শ’ সদ্য বাস্তুচ্যুত আরাকানি ও জাতিগত চিন প্রতিবেশী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। উদ্বাস্তুরা খাবার, পোশাক ও আশ্রয়ের সঙ্কটে রয়েছে। অনেক উদ্বাস্তু শিশু মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছে বলে সাহায্য কর্মীরা জানিয়েছেন।
মেডিক্যাল ও অন্যান্য সাহায্যকর্মীরা গ্রুপটির কাছে যাওয়ার চেষ্টা করলেও দুর্গম এলাকা হওয়ায় তা কঠিন মনে হচ্ছে।
বাংলাদেশের বান্দরবান জেলার মানবাধিকার কমিশনের সদস্য উইন থিন ইরাবতীকে বলেন, তিনি সপ্তাহান্তে উদ্বাস্তুদের সাথে সাক্ষাত করেছিলেন। তারা থুইসা পারা নামে পরিচিত ঘন বনে একটি গ্রামে অবস্থান করছে। স্থানটি রেমাক্রি বিজেপি ক্যাম্প থেকে প্রায় ১১ কিলোমিটার দূরে।
তিনি বলেন, উদ্বাস্তু লোকজন জানিয়েছে যে মিয়ানমার সামরিক বাহিনী খা মং ওয়া গ্রাম ও কিন থা লিন গ্রামে অগ্নিসংযোগ করেছে গত সপ্তাহে। রোববার ১২৪ জন জাতিগত চিন বান্দরবান জেলার রুমা টাউনশিপে উপস্থিত হয়েছে। পরদিন ১২৬ জন আরাকানি একই এলাকার বিভিন্ন গ্রামে এসে পড়ে।
উইন থিন বলেন, আমরা গাড়ি বা নৌকায় করে তাদের কাছে যেতে পারছি না। একমাত্র উপায় হলো ট্রেকিং। রুমা থেকে সেখানে যেতে প্রায় এক দিন লেগে যায়।
রুমার প্রাথমিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেখানে ত্রাণ পৌঁছানো খুবই কঠিন কাজ। তারা বেশ কষ্টকর অবস্থায় রয়েছে।
উইন থিন বলেন, গ্রুপটির সাথে ৬০টি শিশু রয়েছে। এদের কয়েকজন সদ্য ভূমিষ্ট হওয়া। শীতের মধ্যেও তাদের কাছে কম্বল বা গরম পোশাক নেই।
রুমার আরেক অ্যাক্টিভিস্ট আয়ে তুন বলেন, তিনি রেমাক্রি অঞ্চলে আরাকানি ও চিন লোকদের কাছে গিয়েছিলেন। উদ্বাস্তুরা যাতে সাময়িক আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করতে পারে, সেজন্য কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, স্থানীয় মার্মারা তাদের খাবার দিয়ে সহায়তা করার চেষ্টা করছে। তবে কর্তৃপক্ষ তাদের কোনো ধরনের সহায়তা করছে না। তবে তাদেরকে মিয়ানমারে তাড়িয়েও দেয়া হচ্ছে না।
তুন বলেন, স্থানীয় মার্মা ও পাহাড়ি লোকজন আরকানি ও চিনাদের পরিচিত। তারা উদ্বাস্তুদের সহায়তা করছে।
তিনি বলেন, আরাকানি গ্রামবাসীরা প্রথমে কিয়াততাও ও পেলেতওয়া গ্রামে গিয়েছিল। কিন্তু লড়াই অব্যাহত থাকায় তারা বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়।
ইরাবতী অবশ্য বাংলাদেশের মানবাধিকার কর্মীদের প্রতিবেদন যাচাই করতে পারেনি। ইরাবতী কমান্ডার-ইন-চিফের অফিসে ব্রিগেডিয়ার জেনারেলকে ফোন করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তাতে সাড়া পাওয়া যায়নি।
মানবাধিকার কর্মী আয়া থিন সহায়তা পাঠানোর কার্যক্রম বন্ধ না করার জন্য মিয়ানমার ও বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
Spread the love

১১:১৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রু ২২, ২০১৯

এবার কুমিল্লা মুন হাসপাতালে আগুন...

6 Views

১১:১৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রু ২২, ২০১৯

মুচলেকা নিয়ে সানাইকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ...

4 Views
7 Views
18 Views

৮:৪১ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রু ২২, ২০১৯

ছোট ভাইকে পাগলের মতো খুঁজছেন বড় ভাই...

27 Views

১০:৩৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রু ২১, ২০১৯

সর্বকালের সেরা বিশ্বকাপ একাদশে আশরাফুল...

1015 Views

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উপদেষ্টা পরিষদ:

১। ২।
৩। জনাব এডভোকেট প্রহলাদ সাহা (রবি)
এডভোকেট
জজ কোর্ট, লক্ষ্মীপুর।

৪। মোহাম্মদ আবদুর রশীদ
ডাইরেক্টর
ষ্ট্যান্ডার্ড ডেভেলপার গ্রুপ

প্রধান সম্পাদক:

সম্পাদক ও প্রকাশক:

জহির উদ্দিন হাওলাদার

নির্বাহী সম্পাদক
উপ-সম্পাদক :
ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলাম সবুজ চৌধুরী
বার্তা সম্পাদক :
সহ বার্তা সম্পাদক :
আলমগীর হোসেন

সম্পাদকীয় কার্যালয় :

১১৫/২৩, মতিঝিল, আরামবাগ, ঢাকা - ১০০০ | ই-মেইলঃ dsangbad24@gmail.com | যোগাযোগ- 01813822042 , 01923651422

Copyright © 2017 All rights reserved www.deshersangbad.com

Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com

Translate »