শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:২২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বড়াইগ্রামে ৪৮ লাখ টাকার হেরোইনসহ ট্রাক মালিক আটক রাজারহাটে কালবৈশাখী ফসলের ব্যাপক ক্ষতি দক্ষিণাঞ্চল জুড়ে ডায়রিয়ার ভয়াবহ বিস্তার ★ মৃত ৩ গরীব পরিবারের মাঝে ইফতার সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে ফেসবুক প্রিয় খানসামা’র সে¦চ্ছাসেবকগণ সামগ্রিক চেষ্টায় আমরা এই ক্রান্তিলগ্ন থেকে মুক্তি পাব-ওসি আবুল কালাম আজাদ মধুখালীতে মুক্তিযোদ্ধার জমি দখলের চেষ্টা শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদ কবিতা,,,,, বলির পাঁঠা -বিচিত্র কুমার বাংলাদেশ কৃষি বিশ^বিদ্যালয় গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরামের নতুন কমিটি প্রত্যাখান নেত্রকোণার আওয়াল নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে ৯ বছর ধরে ঘুরছে কাদের মির্জার বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ একটি আইসিইউ বেড পেতে অন্তত ৫০টা হাসপাতাল খোঁজা হয়েছে বাংলাদেশে করোনা আজও ১০১ জনের মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত গৃহহীনদের ঘর দেয়ার কথা বলে অর্থ নেয়ার অভিযোগে সাঁথিয়ায় আ’লীগ নেতাকে শোক’জ

বাগেরহাটে ১০ টাকা কার্ডের চাল নিয়ে ডিলারের জালিয়াতি

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
বাগেরহাটের ফকিরহাটে সরকারের দেওয়া বিশেষ খাদ্য সহায়তায় তালিকায় নাম থাকা স্বত্তেও বর্তমান সময়ে কোন প্রকার সহযোগীতা পাচ্ছে না এমন খবর পাওয়া গেছে।জেলার ফকিরহাট উপজেলার ২নং লখপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে সরেজমিনের অনুসন্ধ্যানে  ভুক্তভোগীদের বাড়ী গিয়ে জানা গেছে,  সরকার কতৃক বিশেষ খাদ্য সহায়তা সল্পমূল্যের রেশন কার্ডের তালিকায় নাম আছে কিন্তু ভুক্তভোগী জানেন ও না। কারো কার্ড নিয়ে গেছে ডিলার ,  আবার কারো কার্ড হারিয়ে গেছে। এসব ভুক্তভোগীদের নামে খাদ্য নিয়ন্ত্রকের দপ্তর থেকে ঠিকমত চাল উত্তোলন হচ্ছে,  কিন্তু পাচ্ছেনা ওই তালিকা ভুক্তরা। জনমনে প্রশ্ন উঠেছে তাহলে এদের চাল টা যাচ্ছে কোথায়?  চাল না দিয়ে কি তাহলে  ডিলার কালো বাজারি করে বিক্রি করছে?
উপজেলার ২ নং লখপুর ইউনিয়নের জাড়িয়া কাহার ডাঙ্গা গ্রামের ভুক্তোভোগী ফরহাদ এর সাথে কথা হলে জানা যায় ,  বর্তমান অবস্থায় সরকার যে নিয়ম করিছে,  তা মাইনে চলতিছি,  ঘরে ত্তে বাইর হচ্চিনা। চারিদিক এত ত্রান দিতিছে কিন্তু এক দানা চালও আমি পালাম না। সামান্য একখান ভ্যানের পরে ৫জন মানুষ খায়,  এই অবস্থায় বাড়ীর বাইরে বাইর হওয়া নিষেধ,  কিন্তু পরিবার নিয়ে বাচবো কি ভাবে। আমার স্ত্রীর নামে ১০ টাকা কেজির একখান কার্ড ছেলো তাও নিয়ে গেছে। শুনলাম ওই কার্ড দিয়ে আর একজন চাল উঠয়ে খায়। আমার স্ত্রী সুলতানার নাম এখনো তালিকায় আছে,  কিন্তু কার্ড খান নেই। তিন সন্তান ও নিজেরা দুই জন এই ৫ জনের সংসার,  এক মাত্র ভ্যানে আয়ের উপর নির্ভরশীল। ওই কার্ডে ৩০ কেজি চাল পাইতাম। এখন সে কার্ড খান নিয়ে গেছে,  এই অবস্থায় যদি সাহায্য সহযোগীতা কেউ না করে বাচবো কিভাবে।
 বর্তমান পরিস্থিতিতে গৃহ বন্দি  ভ্যান চালক ফরহাদ আপসোসের সাথে কথা গুলি বললেন। স্বল্প মুল্যের রেশনের তালিকায় নাম আছে,  কার্ড নেই এমন আরো কয়েক জনের খোজ পাওয়া গেছে ওই ইউনিয়নে। শাহানাজ,  স্বামী রুহুল আমিন(কার্ড নং-৮১৫),  মন্টু দের নাথ,  পিতা মনিন্দ্র দেব নাথ(কার্ডনং৭৪৬)। লক ডাউনে কাজ কর্ম বন্ধ খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে এসব দরিদ্রদের।
 সকলের ওই একই কথা সরকারের নিয়ম মেনে আমরা ঘরে থেকে না খেয়ে মরতে বসেছি,  অথচ
৩০ কেজি চালের রেশনের তালিকায় আমাদের নাম আছে কিন্তু আমরা চাল পাচ্ছি না। ৭৪৬ নং কার্ডে মন্টু দেব নাথের নাম থাকলেও সে জানে না তার নামে কার্ড হয়েছে। এই মন্টু দেব নাথ একজন ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী,  হাটে হাটে দোকান করেন লক ডাউনে হাট বাজার বন্ধ,  এখন কর্মহীন গৃহ বন্দি। সরকারের সহযোগীতার তালিকায় নাম আছে,  কিন্তু সুবিধা ভোগের সুযোগ নেই।
৮১৫ নং কার্ডে শাহনাজের নাম রয়েছে , তার স্বামী একজন জেলে, ডিলার ছল চাতুরী করে নিয়ে
গেছে তার কার্ড। অদৃশ্য দানবী করোনার ছোবলে স্থবীড় হয়ে গেছে সারা বিশ্ব। এ ছোবলের হাত থেকে দেশ ও জনগন কে রক্ষা করতে সরকার দেশব্যাপী লক ডাউন ঘোষনা করেছে। সরকারের নির্দেশনা মেনে শ্রমজীবি, পেশা জীবি সকলেই গৃহ বন্দি হয়েছে। চলমান সংকট মোকাবেলায় গৃহ বন্দি থেকে দিনমজুর,  গরীব,  নিন্মবিত্ত,  এমন কি মধ্যবিত্তরা যাতে না খেয়ে থাকে সে জন্য প্রধান মন্ত্রীর ব্যাবস্থায় জেলায় জেলায় ত্রান কার্য্যক্রম চালু করেছে। ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে স্বল্পমুল্যে ১০ টাকা কেজি দরে কর্ডের মাধ্যমে চাল সরবরাহ করছে। সরকার ভর্তুকি দিয়ে চাল সরবরাহ করছে শুধু জনগন যাতে না খেয়ে থাকে। দেশ ও জনগন বাচিয়ে রাখার আপ্রাণ চেষ্টা করছে প্রধানমন্ত্রী,  অথচ এক শ্রেণীর স্বার্থন্বেষী অসাধু ডিলার সুযোগ গ্রহন করে গরীবের চাল আত্যসাৎ করেছে। জানা গেছে অত্র ইউনিয়নে ডিলার মেসার্স এস এস ট্রেডার্স প্রোঃ মোঃ সেলিম শেখ এই কার্ডের চাল সরবরাহ করছেন। তার সাথে ০১৭১৮৯৭৩৩২১ নং মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করলে বন্ধ পাওয়া গেছে।
এ বিষয়ে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হোসেন এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন,  কিছু কার্ড আমরা যাচাই বাছাই করে পরিবর্তন করে একেবারে হতদরিদ্রদের মাঝে দিয়েছি। তার পরও যদি কেউ না পেয়ে থাকে তাহলে পরিষদে এসে আমার সাথে যোগা যোগ করলে সে নিঃশ্চয় সহযোগীতা পাবে।
এদিকে আরো জানা গেছে,যে সকল দরিদ্র ব্যাক্তিরা প্রথম থেকেই এই কার্ডের আওতায় ছিল তাদের অনেককেই চাল দিচ্ছেনা এই স্বার্থান্বেশী ডিলার। যার ফলে অনকেই অনাহারে ও কষ্টে জীবন যাপন করছে।
এসব ভুক্তভোগী পরিবারে দাবী অবিলম্বে সুস্থ তদন্তের মাধ্যমে ওই ডিলার বিরুদ্ধে কঠিন ব্যাবস্থা নেওয়া হোক এবং তাদের ন্যায্য পাওনার অধিকার ফিরিয়ে দেওয়া হোক।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38449376
Users Today : 1000
Users Yesterday : 1193
Views Today : 7721
Who's Online : 28
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone