মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৮:০৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
৭টি বৈশাখী ছড়া জঙ্গিনেতা মামুনুল হককে  গ্রেফতার – হেফাজতে ইসলামকে নিষিদ্ধ ও জঙ্গি সংগঠন ঘোষণা করুন: কমিউনিস্ট পার্টি(মার্কসবাদী) বিশেষ প্রয়োজনে ব্যাংক খোলা রাখার নির্দেশ সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত ব্যাংক খোলা চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে রোজা ঢাবি মেডিকেল সেন্টার আধুনিকায়ন করে শহীদ বুদ্ধিজীবী ডা. মোর্তজার নামে নামকরণের দাবি পণ্য বিপণনে সমস্যা হলে ফোন করুন জরুরি সেবায় ধর্মীয় নেতাকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় উত্তাল পাকিস্তান, গুলিতে নিহত ২ সাংবাদিকদের ‘মুভমেন্ট পাস’ লাগবে না খাদ্যপণ্যের বিজ্ঞাপনে একগুচ্ছ নিষেধাজ্ঞা আসছে, থাকছে জেল-জরিমানা হাতে বড় একটি ট্যাবলেট ফোন নিয়ে ডিজিটাল জুয়ার আসরে ব্যস্ত তরুণ-তরুণী রমজানের নতুন চাঁদ দেখে বিশ্বনবী যে দোয়া পড়তেন ফরিদপুরে চাের সন্দেহে গণপিটুনীতে একজন নিহত এটিএম বুথ থেকে তোলা যাবে এক লাখ টাকা যৌবন দীর্ঘস্থায়ী করে যোগ ব্যায়াম ‘শশাঙ্গাসন’

বিএনপি কেবল সমালোচনায় কেনো, সারাদেশে নেতারা কই?

???????? ???-?–??????? (??????)

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সেদিন দুঃখ করে বলেছেন, ‘বিরোধী দলের নেতারা কেবল সরকারের সমালোচনা করে কথা বলতে পারেন, কিন্তু দুর্যোগের এই সময়টাতে মানুষের পাশে এসে দাঁড়াচ্ছেন না, কোন ভূমিকা রাখছেন না।’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যদিও তাকে পারফেক্ট জেন্টলম্যান বলে বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন তবু ওবায়দুল কাদেরের এই কথাটির যুক্তির ধার বা সত্যতা কেউ এড়াতে পারবেন না।

সরকারের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের এমপি মন্ত্রী নেতারাও সারাদেশে মহামারীর এই দুর্যোগ পূর্ণ সময়ে নিজেদের সামর্থ অনুযায়ী ত্রাণ বন্টন করছেন। দলের সভানেত্রীর কার্যালয়ে ত্রাণকমিটি কাজ করছে। বিত্তবানরাই নয়, সাধারণ মানুষও মানুষের পাশে মানবতার ডাকে নেমেছেন। কিন্তু বিরোধীদল বিএনপি অতীতে দীর্ঘদীন ক্ষমতায় ছিলো। আজ এই মহাদুর্যোগের সময় মানুষের পাশে কতটা দাঁড়িয়েছে, সেটি কি দেশ দেখছে না? মানুষের বিপদে কতোটা দাঁড়িয়েছে বিএনপি সেটি বিচার না করে যখন সরকারের অবিরাম সমালোচনার পাল্লাকেই ভারি করছে তখন সবার কাছেই দৃষ্টিকটু লাগে। মানুষকে বলতে হয় এখন দুর্যোগ মোকাবেলার সময়,রাজনীতির সময় নয়।

রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দৃঢ়তার সঙ্গে অমিত সাহসে বৈশ্বিক মহামারী করোনার বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে জনগনের অকুন্ঠ সমর্থন পাচ্ছেন। লাখ কোটি টাকার উপরে প্রণোদনা দিয়ে সব শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষা করেছেন। আমাদের কৃষকের বাম্পার ফলনের ধান ঘরে তুলে দিয়েছেন। তার নেতৃত্বের যাদুকরি শক্তিকে কি অস্বীকার করা যায়? তিনি ভবিষ্যৎ কি কঠিন তার চিত্র তুলে ধরে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। কৃষকের ধান কাটায় দলের কিছু মন্ত্রী এমপি নেতা নাটক করেছেন, কিন্তু ছাত্রলীগ ধানকাটা থেকে লবনচাষী এমনকি মৃতদের দাফন ও মানুষকে সেনিটাইজার বিতরণে এবং জীবানু মুক্তির যে লড়াই করেছে তাতো প্রশংসিত। এই যুদ্ধে দেশের সকল শ্রেণীপেশার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লড়ছে।আক্রান্তও হচ্ছেন।অনেকে মারাও যাচ্ছেন।

দলীয়ভাবে আওয়ামী লীগ বিপুল অর্থ ও খাদ্য সাহায্য দিচ্ছে। বিএনপি কতটা কিভাবে দিচ্ছে? সরকার প্রধান শেখ হাসিনা কেউ যেনো খাবার অভাবে না মরে সে পদক্ষেপ নিয়ে কর্মহীন,দরিদ্র পাচকোটি মানুষের ঘরে খাবার পাঠাচ্ছেন। অর্থসহায়তা দিচ্ছেন। ১০টাকা কেজির চাল দিচ্ছেন। টিসিবির পন্য পাঠাচ্ছেন। এখানে দলের এমপি মন্ত্রীকেও যুক্ত হতে দেননি। সচিবরা সমন্বয় করছেন। ডিসি, ইউএনও ইউপি চেয়ারম্যান মেম্বারদের দিয়ে তালিকাধরে বন্টন করছেন। দলের পরিচয় না দেখতে বলেছেন। বিএনপির চেয়ারম্যান মেম্বাররাও মানুষকে দিতে পারছেন। যেখানে ত্রাণচুরি সেখানেই বরখাস্ত গ্রেফতার চলছে।

ভারতে সব দলই নেমেছে কোমড়বেধে। সরকারের সমালোচনার আগে নিজেরা মানুষের পাশে। লকডাউনে বিভিন্ন রাজ্যে আটকে পড়া শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে সরকার রেল চলতে দিয়েছে। কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী বলেছেন টিকেটের টাকা তার দল দেবে। বিএনপির এখন সমালোচনা আর সমালোচনার সময় নয়,এখন সরকার আর দলের বিষয় নয়। মানুষের দু:সময়ে মানুষকে এক কাতারে যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে লড়ার সময়। আমাদের স্বাস্থ্য খাতের দায়িত্বশীলদের ব্যর্থতা,সীমাবদ্বতা অনেক। সেটিও ক্রমশ কাটিয়ে উঠছে সরকার। বাড়ছে টেস্ট ল্যাব চিকিৎসক নার্স হাসপাতাল। যুক্তরাষ্ট্রের মতোন প্রতাপশালীদের চিকিৎসক নার্স পিপিই মাস্ক হাসপাতাল বেড লাশের প্যাকেট কত সংকট! বৃটেনে পলিথিন গায়ে চিকিৎসক দল লড়ছে। ইউরোপের অবস্থাও ভয়াবহ।অজানা অচেনা এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে ধ্বংসলীলা। বিএনপি রাষ্ট্রপরিচালনা করে এসে আজ নির্মম সত্যকে মেনে না নিয়ে কেনো খালি রাজনীতির জন্য সমালোচনা আর সমালোচনা! এতে লাভতো হবেনা। তারচেয়ে মানুষের জন্য দরদ নিয়ে লড়লে, পাশে দাঁড়ালে মানুষের মন জয় করতে পারবে।ঢাকায় ইশরাক হোসেন পাশে দাড়িয়েছেন। সিলেটের মেয়র বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী পাশে দাড়িয়েছেন। মানুষ বলছে। সারাদেশে বিএনপির এতো নেতা কর্মি আজ কোথায়? কোথায় এমপি প্রার্থীরা? সাবেক মন্ত্রীগণ? কোথাও বিরোধী দলের কোন নেতা নেত্রীকে চোখে পড়ছে না। এমন কি যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, যেখানে বেশিরভাগ মানুষ আত্মপ্রচারে পোস্ট দেয় সেখানেও কাউকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের ও যারা নেই মানুষই না কর্মিরাও সমালোচনা করছে।সব দলের কর্মীরাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা করে নিজ নিজ এলাকার নেতাদের নিখোঁজ সংবাদের বিজ্ঞপ্তি দিচ্ছেন, কখনো বা কোয়ারেন্টাইন বা আইসলেসনে আছেন বলে উপহাস করছেন।

এই মুহূর্তে নারায়ণগঞ্জের সাধারণ একজন ওয়ার্ড কমিশনার মাকসুদুল আলম খোরশেদ নিজের জীবনকে বিপন্ন করে করোনায় মৃত হিন্দু মুসলমান সকল রোগীদের সৎকার কিংবা কাফন দাফনের ব্যবস্থা করে মানবদরদী নায়ক হয়ে উঠেছেন। দল মত নির্বিশেষে দেশের সকলের মনোযোগ এবং দোয়ার কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্থান করছেন। এমপি সেলিম ওসমানের ত্রাণের জন্য দেওয়া ১০লক্ষ টাকা না নিয়ে তিনি আবারও সৎ উদ্দেশ্যের স্বাক্ষর রাখলেন ।

আমাদের দেশের এমপি প্রত্যাশী এক সিটের বিপরীতে বিভিন্ন দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী কম পক্ষে ৩০জন। উপজেলা চেয়ারম্যান, চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান, মেম্বার বিভিন্ন স্তরে জনপ্রতিনিধির কোন অভাব নেই। সবাই যদি সাধারণ একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর থেকে শিক্ষা নিতো অনেক সমস্যাই সহজ সমাধান হয়ে যেতো।

কথায় বলে সময়ের এক ফোঁড় অসময়ের দশ ফোঁড় । সমস্ত দলের নেতাদের বলবো কাউন্সিলর খোরশেদ তাঁর নিজের যতসামান্য অর্থ কিন্তু বিশাল হৃদয় নিয়ে জনমনে জায়গা করে নিচ্ছে, সুখে-দুঃখে, প্রয়োজনে মানুষের পাশে থাকছে। আপনিও সুযোগ নিন, এই দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ান। এখন দলাদলির, সমালোচনার হিংসার সময় নয়।এখন দেশ প্রেমের সময়। এখন মানবতার অগ্নিপরীক্ষার সময়। বিএনপিকে বুঝতে হবে। সরকারের সমালোচনাই জনপ্রিয়তা আনবেনা, মানুষের প্রতি উজার করা সেবাই দিতে পারে।

লেখক:সম্পাদক পূর্বপশ্চিম বিডি

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38444180
Users Today : 1135
Users Yesterday : 1256
Views Today : 14889
Who's Online : 34
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone