সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৪৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বেঁচে থাকলে পহেলা বৈশাখ-ঈদ অনেক পাবেন: ওমর সানী লক্ষ্মীপুরে বেড়িবাঁধ সড়ক সংস্কার কাজে অনিয়মের অভিযোগ লক্ষ্মীপুরে ব্যবসায়িদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করলেন এডভোকেট নয়ন সাকিবকে কলকাতার একাদশে রাখেননি বিশপ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ চলবে সপ্তাহে তিনদিন সৌদি আরবে মঙ্গলবার থেকে রোজা শুরু বাংলাদেশি শিক্ষকদের আমেরিকান ফেলোশিপের আবেদন চলছে ঘরের কোন জিনিস কতদিন পরপর পরিষ্কার করা জরুরি কিশোরকে গাছে বেঁধে নির্মম নির্যাতন, পায়ুপথে মাছ ঢুকানোর চেষ্টা পদ্মায় ভেসে উঠল শিশুর মরদেহ ভাইকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল বোনের ৭ দিনের সাধারণ ছুটির ঘোষণা আসতে পারে টার্গেট রমজান মাস তৎপর হয়ে উঠেছে ‘ভিক্ষুক চক্র’ মামুনুলের দ্বিতীয় স্ত্রীর ঘরে মিলেছে ৩ ডায়েরি এই ফলগুলো খেয়েই দেখুন!

বিজেপি প্রার্থী বাড়ি বাড়ি টাকা বিলি করছেন, ভিডিয়ো পোস্ট করে টুইটে অভিযোগ মহুয়ার

বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে দরজায় দরজায় টাকা বিলি করার অভিযোগ তুললেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। এই নিয়ে রাজ্য ও দিল্লির নির্বাচন কমিশনকে ট্যাগ করে টুইট করলেন তিনি। দাবি তুললেন তদন্তের। মহুয়া টুইটে লিখেছেন, ‘৯০ নম্বর কেন্দ্র রানাঘাট দক্ষিণের বিজেপি প্রার্থী মুকুটমনি অধিকারী ও তাঁর দল বাড়ি বাড়ি গিয়ে টাকা বিলি করছেন। ঘর ঘর মোদী-এর এটাই আসল মানে’। এরপরই রাজ্য ও দিল্লির নির্বাচন কমিশনকে ট্যাগ করে মহুয়া দাবি তুলেছেন তদন্ত করে যেন দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হয়। প্রমাণ হিসাবে একটি ভিডিয়ো টুইট করেছেন কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ। যদিও ভিডিয়োর সত্যতা যাচাই করেনি আনন্দবাজার ডিজিটাল।

পঞ্চম দফায় নদিয়া জেলার ৮টি কেন্দ্রে ভোট গৃহীত হবে। তার মধ্যে রয়েছে রানাঘাট দক্ষিণ কেন্দ্রটিও। ১৭ এপ্রিল এই কেন্দ্রে ভাগ্য নির্ধারিত হবে প্রার্থীদের। বিজেপি-র হয়ে এই আসনে লড়াই করছেন মুকুটমনি অধিকারী। এই আসনে তৃণমূলের প্রার্থী বর্ণালী দে। ভোটের মুখে এখন পুরোদমে চলছে প্রচার। দিন রাত এক করে জনসংযোগের কাজ করছেন প্রার্থীরা। তার মধ্যেই এই ভিডিয়ো নতুন করে বিতর্ক তৈরি করেছে।

মহুয়ার টুইট নিয়ে প্রতিক্রিয়ায় বিজেপি-র মুখপাত্র প্রণয় রায় বলেন, ‘‘ওই ভিডিয়োয় কী আছে আমি দেখিনি, তবে সত্যি যদি এমন কিছু হয়ে থাকে, তৃণমূল তা নিয়ে নির্বাচন কমিশনে যাক। অপপ্রচার করে কোনও লাভ হবে না।’’

বিবার দুপুর পর্যন্ত দুটি টুইট করেন মহুয়া মৈত্র। সকালের টুইটে তিনি নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। লেখেন, ‘বিজেপি নেতারা ক্ষমা চাইলেই তাঁদের প্রচারের উপরে থাকা নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় নির্বাচন কমিশন। কেন বিরোধী নেতা-নেত্রীদের ক্ষেত্রেও কমিশন একই মনোভাব দেখায় না? কমিশন যেন মনে রাখে, তারা নির্বাচন সদনে বসে আছেন, বিজেপি-র সদর দফতরে নয়। আপনার চেয়ারকে সম্মান করুন। দেশ দেখছে’।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38442360
Users Today : 571
Users Yesterday : 1265
Views Today : 7369
Who's Online : 34
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone