দেশের সংবাদ l Deshersangbad.com » ” বিষবৃক্ষ ” র বিষ নিধনে সম্মিলিত ওঝা প্রয়োজন! – – – সাফাত বিন ছানাউল্লাহ



” বিষবৃক্ষ ” র বিষ নিধনে সম্মিলিত ওঝা প্রয়োজন! – – – সাফাত বিন ছানাউল্লাহ

৯:৪০ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৫, ২০১৯ |জহির হাওলাদার

21 Views

বনের অনেক প্রাণী হিংস্র হয়। তাদের শক্তি আছে! তেজ আছে! ওরা অন্যকে চিবিয়ে খেতেও কুণ্ঠিত হয়না। বনবাদাড়ে তাদের শক্তিমত্তা ও ছোট প্রাণীদের ভয়ভীতি দেখানোতে কোন তুলনা হয়না।
তেমনি মানুষরূপী এক ভয়ঙ্কর জন্তু আছে আমাদের এই পৃথিবীতে। ওরা আবার ধর্ম নামের পবিত্র একটি জিনিষের লেবাসে বসবাস করে দেশে দেশে। ওরা এতটাই বিপদজনক ও ভয়ানক সারা ভ্রম্মান্ডকে অস্থির ও অশান্ত করে রেখেছে। ওদের দলও বেশ ভারী। সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, কুকর্ম, সমকাম ওরা করেই চলেছে একের পর এক। নিয়ন্ত্রণ করার কেউ কেই! রাষ্ট্রের পরিচালকরাও ওদের সঙ্গ দেয়, ডিগ্রী দেয়, সম্মান দেয়।
“কওমী” নামের দেশের জঞ্জাল ও আগাছারা প্রতিনিয়ত বেড়ে উটছে ছোট ছোট ছানার মত। তাদের মোল্লার বেশধারীরা পবিত্র ধর্মকে যেমন করে অপব্যবহার করছে তেমনিভাবে (আলেম) নামের সম্মানীয় মহাপবিত্র শব্দটিকে কলঙ্কিত করছে বারবার। মাদ্রাসা নামের জঙ্গিদের আতুরঘর থেকে নতুন নতুন সন্ত্রাস সৃষ্টি হয়ে দেশ নিয়ে গভীর ষরযন্ত্রের ছক কষছে। ইদানিং কওমী মোল্লারা ছোটছোট বাচ্চাদের পড়াবার নামে সমকামীতা নির্যাতন শুরু করেছে নতুন করে। ছোট ছোট মাছুম শিশুদের নির্মমভাবে মারধর এমনকি নির্যাতনের ফলে হত্যার ঘটনাও ঘটছে অহরহ। বাংলাদেশের বিভিন্ন টিভি চ্যানেল সরেজমিনে প্রমাণ সহ রিপোর্ট তৈরি করে জনসম্মুখে তুলে ধরে তাদের মুখোশ খুলে দিচ্ছে। চট্টগ্রাম ও বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় সম্প্রতি ঘটে যাওয়া লোমহর্ষক ঘটনাগুলো এটাই প্রমাণ করে কী বার্তা দিচ্ছে ওরা ভবিষ্যৎের বাংলাদেশকে! এ কেমন পশুত্ব?  কেমন বর্বরতা!  সভ্য সমাজ ও দেশে এমন গর্হিত কাজ কখনও হতে পারেনা।  যারা এমন করেছে ওনা মানুষের কাতারে তো কখনোই পরেনা।
সারা দেশেই কওমী জানোয়ারদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা মাচুম অবুঝরা।  কারণ, ওদের গুরুদের শিক্ষা তো এরকম।  দেওবন্দীদের গুরুঠাকুর রশিদ আহমদ গাঙ্গুহী তার ফতোয়ায়ে রশিদিয়ায় লিখেছে – “আমি স্বপ্নে দেখেছি দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা কাসেম নানুতুবীকে নিকাহ করতে (নাউজুবিল্লাহ)।  সেই থেকে তাদের পুরুষ বলাৎকারের সূত্রপাত।
ইসলাম কী হাজার বছর ধরে এইসব শিক্ষা দিয়েছে?  কখনও না, কস্মিনকালে ও না। যারা বারবার কোমলমতি শিশুদের উপর নির্যাতন ও বলাৎকার করে ওরা দেও-শয়তান, বন্দ- স্থান= প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত।
শান্তির ধর্ম ইসলামকে খণ্ড খণ্ড করে ওরা কী নিজেদের নিজস্ব ধর্ম প্রচার করতে চায়? এই প্রশ্ন সচেতন সকল মহলের। ওয়াজ মাহফিলের নামে শব্দ দূষণ করে সাধারণ মানুষজনকে অতিষ্ঠ করে জানান দিচ্ছে দেশে আবার জঙ্গি বিস্তারের। একটা বাণী বহুল প্রচলিত –
” সব কওমী জঙ্গি নয়, কিন্তু সব জঙ্গি কওমী ” ওরা আবার ওয়াহাবি নামেও পরিচিত। সৌদি আরবের আব্দুল ওয়াহাব নজদীর অনুসারীরা” নজদী ওয়াহাবি ” আর ভারতের দেওবন্দী ঘরানার অনুসারীরা ” দেওবন্দী ওয়াহাবি “।  দুদলই আবার আপন খালাতো ভাই, ব্রিটিশদের টাকার গোলাম আর পাচাটা কুকুর। একমাত্র কওমী নামের দলটির জন্যই অন্য ধর্মাবলম্বীরা মুসলিমদের সন্ত্রাস বলার সাহস দেখাচ্ছে।  আল – কায়েদা, আইএস, জইস-ই-মোহাম্মদ, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, হুজি, জেএমবি, জামায়াত, আল্লাহর দল ইত্যাদি নামে ওরা শান্ত পৃথিবীটাকে অশান্ত রেখেছে যুগ যুগ ধরে।
প্রিয় জননেতা রাশেদ খান মেনন গভীর চিন্তাধারা থেকেই বলেছেন- সকল কওমী মাদ্রাসা বিষবৃক্ষ। মেনন সাহেবদের মতন মুক্তচিন্তার কয়েকজন মাত্র আছেন বলেই সত্যি কথাগুলো বলেন দুঃসাহসে। মুক্তচিন্তক দেরও মৌলবাদীরা নাস্তিক, মুরতাদ….. আরো কত ধর্মীয় উপাধীতে ভূষিত করে। কিন্তু, মুখোমুখি  টকশোতে সবাই যেন স্ট্যাচু অব লিবার্টি।
এই মুহূর্তে সবচেয়ে জরুরি আমরা যারা দেশ সচেতন, সমাজ সচেতনরা আছি আমরা কতদূর চিন্তা করছি?
রাষ্ট্রের দায়িত্বপ্রাপ্তরা তো নিজেদের স্বার্থ আর ভোট ব্যাংকের জন্য হারামকেও হালাল করতে পারে সংবিধানের অজানা অনুচ্ছেদের ….. ধারায়। আহমদ শফির কথাই বলি – মানুষটির অতীত জীবন এতই কুকর্মে ভরা যদি লিখতে যাই একটি বিশাল গ্রন্থ রচিত হবে। যৌবনের কথা নাই বললাম বৃদ্ধ লোকটি ৯০+ বয়সে এসে যা শুরু করেছে একজন বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ কোনদিন তাকে আলেম বলা তো দুরের কথা গভীর মানসিক রোগী আর বিকৃত মস্তিষ্কের বলতেও লজ্জা বোধ করবে।
সবার প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলছি – মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীরা লোকটিকে এতটাই উচ্চ আসনে সমাসীন করেছেন যে, আসমানের উপরতলার সিংহাসনে আরোহন করা এক রাজা আহমদ শফি। আমাদের বাঙালী জাতীর একটাই স্বভাব যার যতটুকু সম্মান বা গ্রহণযোগ্যতা তেলমশলা দিয়ে তার থেকেও উপারে তুলতে দ্বিধা করিনা। আহমদ শফির মত ঘৃণিত ব্যক্তিটিকে এত উপরে তোলার ফায়দা বা লাভ কাদের? যিনি আমাদের, এই বিশ্ব, কুল কায়েনাতের সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহকে নিয়ে যে কটুক্তি করতে পারে! পবিত্র ধর্মের দৃষ্টিতে যাদের মর্যাদা সবার সবার উর্ধ্বে করা হয়েছে মা, বোন, মেয়েদের জগন্য ও অশালীন ভাষায় যে নোংরামি করতে পারে তাকে তো মানুষদের দলে ধরাই উচিত না।
সবচাইতে জরুরি আমাদের সম্মিলিতভাবে শহরে – গ্রামে এসবের বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে, অভিভাবক দের সচেতন করতে হবে ওদের সন্তানদের কওমী (ওয়াহাবী) মাদ্রাসায় ভর্তি করিয়ে সোনালী ভবিষ্যৎ ধংস করা থেকে বিরত থাকতে। যেখানে অন্যায় সেখানেই অন্যায়কারীকে যথোপযুক্ত শাস্তি দিতে হবে। বিষবৃক্ষের বিষগুলো যদি আমরা এখনই ওঝা হয়ে শেষ না করি মরণ ছোবলে ওরা একদিন দেশটাকেই মৃত্যুর মুখে টেলে দিবে। সেই দিন বীণ গুলোর কার্যকারিতা শেষ হয়ে যাবে। আজকের শিশুরা আগামী দিনের বাংলাদেশ গড়ার কারিগর  ।।

সাফাত বিন ছানাউল্লাহ
কবি, প্রাবন্ধিক ও ছড়াকার
সদস্য : চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্র (সিএইচআরসি)
স্থায়ী ঠিকানা : সাতবাড়ীয়া, খন্দকার পাড়া, চন্দনাইশ, চট্টগ্রাম।

Spread the love
18 Views

১২:৪১ অপরাহ্ণ, ফেব্রু ০৫, ২০১৯

নারী ক্ষমতায়নে শীর্ষপর্যায়ে বাংলাদেশ...

85 Views

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উপদেষ্টা পরিষদ:

১। ২।
৩। জনাব এডভোকেট প্রহলাদ সাহা (রবি)
এডভোকেট
জজ কোর্ট, লক্ষ্মীপুর।

৪। মোহাম্মদ আবদুর রশীদ
ডাইরেক্টর
ষ্ট্যান্ডার্ড ডেভেলপার গ্রুপ

প্রধান সম্পাদক:

সম্পাদক ও প্রকাশক:

জহির উদ্দিন হাওলাদার

নির্বাহী সম্পাদক
উপ-সম্পাদক :
ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলাম সবুজ চৌধুরী
বার্তা সম্পাদক :
সহ বার্তা সম্পাদক :
আলমগীর হোসেন

সম্পাদকীয় কার্যালয় :

১১৫/২৩, মতিঝিল, আরামবাগ, ঢাকা - ১০০০ | ই-মেইলঃ dsangbad24@gmail.com | যোগাযোগ- 01813822042 , 01923651422

Copyright © 2017 All rights reserved www.deshersangbad.com

Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com

Translate »