মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
নোয়াখালী সুবর্ণচরের বিএনপি নেতা এনায়েত উল্লাহ বি কম এর ইন্তেকাল নওগাঁর মহাদেবপুরে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গণকবর প্রাচীর দিয়ে সংরক্ষণের দাবি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের শিক্ষা জাতীয় করন নিয়ে মনের কষ্ট ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যক্ত করলেন অধ্যক্ষ এস এম তাইজুল ইসলাম কুলিয়ারচরে দিনব্যাপী ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন ২৫ ও ২৬ মার্চ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল জিয়া মমতাকে ছেড়ে আসা মিঠুন এখন মোদির দলে সন্তান কোলে নিয়েই দায়িত্ব সামলাচ্ছেন নারী ট্রাফিক পুলিশ স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদ মিয়ানমারে রাস্তায় হাজারো হাজার লোকের বিক্ষোভ স্কুল শিক্ষককে বিয়ে করলেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী প্রতারণার মামলায় ডা. সাবরিনার জামিন আবেদন নামঞ্জুর চট্টগ্রামে প্রবাসী হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড সামাজিক মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ লেখা সতর্ক করলেন প্রধান বিচারপতি নিবন্ধনধারীদের এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ ১৫ দিনের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনধারীদের নিয়োগ

বড়াইগ্রামে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ পুলিশ কনস্টবলের বিরুদ্ধে

অমর ডি কস্তা, নাটোর প্রতিনিধি:
নাটোরের বড়াইগ্রামে যৌতুকের দাবি পূরণ না করায় স্ত্রীকে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। উপজেলার বাটরা গোপালপুর গ্রামের শাজাহান আলীর ছেলে পুলিশ কনস্টবল মনিরুল ইসলাম শ্বশুরবাড়ি একই উপজেলার জোয়াড়ি গ্রামে বেড়াতে এসে তার সদ্য বিবাহিত স্ত্রী তাসলি খাতুন (১৮)কে শারিরীক নির্যাতন ও পরে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা চালায়। ৫২ দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর শনিবার ভোরে তার মৃত্যু হয়। বড়াইগ্রাম থানা পুলিশ দুপুরে তাসলির মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। তাসলি জোয়াড়ি গ্রামের আবুল কাশেমের মেয়ে।
পরিবার সূত্রে জানা যায়, ১৪ মাস আগে পুলিশ কনস্টবল মনিরুলের সাথে বিয়ে হয় তাসলির। বিয়ের পর তাসলির শ্বশুরবাড়ির লোকজন ২ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি করে টাকা গোপনে শ্বাশুড়ির কাছে দেয়ার জন্য চাপ দেয়। কিন্তু এই টাকা দিতে অস্বীকার করে তাসলির পরিবার। তাসলির স্বামী মনিরুল ইসলাম বর্তমানে চাপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ লাইনে কর্মরত আছেন। বিয়ের ৩ মাস পর স্বামী মনিরুলের সাথে তাসলি চাপাইনবাবগঞ্জে ভাড়া বাসায় থাকতেন। কিন্তু যৌতুকের টাকা আদায়ের জন্য মনিরুলের চাচাতো ভাই শাহাদৎ হোসেনের প্ররোচনায় তাসলিকে তার বাবা বাড়ি জোয়াড়ি গ্রামে পাঠিয়ে দেয় মনিরুল। গত ১১ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টার দিকে মনিরুল শ্বশুরবাড়িতে এসে তাসলিকে টাকা দিতে বলে। এতে বাক-বিতন্ডা শুরু হলে তাসলিকে মারধোর করে ও পরে গলায় রশি দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা চালায় সে। তাসলি মারা গেছে এই ভেবে মনিরুল জানালা ভেঙ্গে পালিয়ে যায়। পরে পরিবারের লোকজন তাসলিকে উদ্ধার করে প্রথমে বনপাড়ায় একটি বেসরকারী হাসপাতালে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিরাজগঞ্জের খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে গলায় অপারেশন করার পর শনিবার ভোরে তার মৃত্যু হয়।
এ ব্যাপারে তাসলির স্বামী পুলিশ কনস্টবল মনিরুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি জানান, আমি শুনেছি আমার স্ত্রী মারা গেছেন। তবে আমার বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ সঠিক নয়।
নাটোরে সহকারী পুলিশ সুপার ফাতেমা-তুজ-জোহরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অভিযোগের সত্যতা মিললে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38375258
Users Today : 1978
Users Yesterday : 4902
Views Today : 11883
Who's Online : 28
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/