বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
ঋণের জন্য ব্যাংকে উপেক্ষিত ছোট উদ্যোক্তারা করোনার সংক্রমণ ১৪ এপ্রিল থেকে যেভাবে পাওয়া যাবে ব্যাংকিং সেবা বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ডাবের খোসায় গর্ত ভরাট‍! নিয়মিত পর্নো ভিডিও দেখতেন শিশুবক্তা রফিকুল আইপিএল নিয়ে জুয়ার আসর থেকে আটক ১৪ কারাগারে কেমন কাটছে পাপিয়ার দিনকাল এক ঘুমে কেটে গেলো ১৩ দিন! কেউ ‘কাজের মাসি’, কেউবা ‘সেক্সি ননদ-বৌদি’ ৬৪২ শিক্ষক-কর্মচারীর ২৬ কোটি টাকা ছাড় করোনায় আরো ৬৯ জনের মৃত্যু, আক্রন্ত ৬০২৮ বাংলাদেশে করোনা টানা তিনদিন রেকর্ডের পর কমল মৃত্যু, শনাক্তও কম করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপি শো-রুম থেকে প্যান্ট চুরি করে ধরা খেলেন ছাত্রলীগ নেতা করোনা নিঃশব্দ ও অদৃশ্য ঘাতক,সতর্কতাই এ থেকে মুক্তির একমাত্র পথ ——-ওসি দীপক চন্দ্র সাহা তানোরে প্রণোদনার কৃষি উপকরণ বিতরণ

মরাখালে ফিরে আসছে যৌবণ *পাউবো’র বৃহত প্রকল্পে বাঁধা হয়েছে বন বিভাগ

 

 

মনির হোসেন,বরিশাল \ “বরিশালে সেচ সঙ্কটে ৩৭টি বোরো বøকের জমি
তিন বছর অনাবাদি” থাকার খবর সম্প্রতি সময়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকের
মাধ্যমে জানতে পেরে সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয় ও
পানি উন্নয়ন বোর্ডের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা। অবশেষে তারা প্রকাশিত
সংবাদের সত্যতা পেয়ে জনগুরুত্বপূর্ণ খাল খননের জন্য বৃহত একটি প্রকল্প
গ্রহণ করেন। সেমতে অতিসম্প্রতি “৬৪ জেলার অভ্যন্তরস্থ ছোট নদী, খাল এবং
জলাশয় পুনঃখনন (১ম পর্যায়)” প্রকল্পের আওতায় খাল খনন কাজ শুরু করা হয়।
শনিবার সকালে পাউবো’র অফিস সূত্রে জানা গেছে, ওই প্রকল্পের মাধ্যমে
জেলার প্রবেশদ্বার গৌরনদী উপজেলার পালরদী নদীর সংযোগস্থল আমানতগঞ্জ খালের
মুখ থেকে ভুরঘাটা হয়ে গৌরনদীর মেদাকুল ও মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার
মধ্যদিয়ে প্রবাহিত শশিকর পর্যন্ত প্রায় ১৯ কিলোমিটার খাল খননের কাজ শুরু
করা হয়। ছয় কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ে খাল পুনঃখননের জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়ার
মাধ্যমে গত এক মাস ধরে মাদারীপুর জেলার প্রথম শ্রেনীর ঠিকাদার মোঃ
সাহাবুদ্দিন মোল্লার অধীনে খালের বিভিন্ন অংশে খনন কাজ চলমান রয়েছে।
সরেজমিনে ভুরঘাটা এলাকার বাসিন্দা ও সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ কামাল
ফকির বলেন, জনগুরুত্বপূর্ণ এ খালের পানির ওপর প্রায় দু’শতাধিক বোরো
বøকের হাজার-হাজার হেক্টর জমি নির্ভরশীল। তিনি আরও বলেন, খাল কাটার পর
থেকে কোনদিনই পুনঃখনন করা হয়নি। ফলে একসময়ের খরা¯্রােতা খালটি
পলিজমে মরে যাওয়ার উপক্রম হয়ে পানির অভাবে বোরো বøকগুলো বন্ধ হয়ে যায়। এ
কারণে বোরো চাষের ওপর নির্ভরশীল এসব বøকের আওতাধীন কয়েক হাজার চাষী
পরিবার চরম খাদ্য সংকটে পরেন। দীর্ঘদিন পরে হলেও বর্তমান সরকারের মহতি
উদ্যোগে খালটি পুনঃখননের কাজ শুরু করা হয়েছে। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে
যতটুকু খাল পুনঃখনন করা হয়েছে তাতেই এখন এলাকাবাসী মরা খালে যৌবণ
ফিরে আসার স্বপ্ন দেখছেন।
আমানতগঞ্জ থেকে মেদাকুল ভায়া ভুরঘাটার ১০ কিলোমিটার খাল পুনঃখননের
অংশে মূল ঠিকাদারের কাছ থেকে ক্রয় করে নেয়া সাব ঠিকাদার এইচএম
মহসিন বলেন, খালের ভুরঘাটা ব্রিজের পশ্চিম অংশে ভুরঘাটা, বাদুরতলা, সালথা
মৌজার প্রায় আড়াই কিলোমিটার অংশে খাল খনন করা যাচ্ছেনা। কারণ
হিসেবে তিনি বলেন, ওই অংশে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের রিভার সাইড ও কান্ট্রি
সাইডে সমিতি কর্তৃক বনায়ন করা হয়েছে। যেকারণে গাছের জন্য ওই
অংশে খনন কাজে ব্যবহৃত এস্কাভেটর ব্যবহার ও খালের পাড়ে খননকৃত মাটিও রাখা
যাচ্ছেনা। ফলে একমাত্র গাছের জন্য ওই অংশে খাল খনন কাজ বন্ধ হয়ে আছে।
পাউবো’র বরিশালের নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর গত ৩ জানুয়ারি মাদারীপুর
পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী পার্থ প্রতিম সাহার দেয়া একটি
অফিসিয়াল পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, খাল পুনঃখননের পর উল্লেখিত অংশে

বৃক্ষরোপন করা হবে, তাই জনগুরুত্বপূর্ণ খাল পুনঃখননের জন্য গাছ অপসারন
অতিব জরুরি। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করা হয়। ওই চিঠির
আলোকে পাউবো’র বরিশালের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক রঞ্জন দাশ গত ৭
জানুয়ারি অপর একটি পত্রে আড়াই কিলোমিটার অংশের বন্ধ হয়ে যাওয়া খাল
পুনঃখননের জন্য জরুরি ভিত্তিতে ছোট ছোট গাছগুলো অপসারনে
প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কাছে অফিসিয়ালভাবে
চিঠি প্রেরণ করেন।
সূত্রমতে, বন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের চরম উদাসিনতার কারণে
গত দেড় মাসেও খালের পাড়ের গাছগুলো অপসারন করা হয়নি। ফলে উল্লেখিত
আড়াই কিলোমিটার অংশের খাল পুনঃখননের কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে।
জরুরি ভিত্তিতে বন বিভাগ থেকে এসব গাছ অপসারন করে দেয়া না হলে
উল্লেখিত আড়াই কিলোমিটার অংশে খাল পুনঃখনন করা সম্ভব হবেনা।
পাশাপাশি বন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উদাসিনতার কারণে খাল
পুনঃখননের জন্য সরকারের নেয়া মহতি উদ্যোগ ভেস্তে যাওয়া উপক্রম হয়ে
দাঁড়িয়েছে।
এ ব্যাপারে বরিশালের জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দিন হায়দার বলেন, যেহেতু খাল
পুনঃখননের পর উল্লেখিত অংশে পুনঃরায় বৃক্ষরোপন করে দেয়া হবে, সেহেতু
এখানে কারো কোন আপত্তি থাকার কথা নয়। কোন কর্মকর্তার দায়িত্বে
অবহেলার কারণে সরকারের নেয়া উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ হয়ে যাবার কোন সুযোগ
নেই। বিষয়টি খতিয়ে দেখে জরুরি ভিত্তিত্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা
হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38444912
Users Today : 526
Users Yesterday : 1341
Views Today : 5459
Who's Online : 28
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone