শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৫:১২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
উগ্র মৌলবাদীচক্রের বিভিন্ন মিডিয়ায় উষ্কানীমূলক, মানহানিকর ও ধর্মীয় বিদ্বেষমুলক বক্তব্য জাতীয় হিন্দু মহিলা মহাজোটের অবস্থান ধর্মঘট মিতু হত্যা: আসামিদের পালানো ঠেকাতে জারি হচ্ছে সতর্কতা বরিশালে বিএনপির পক্ষ থেকে ঈদ সামগ্রী বিতরণ তানোর উপজেলা চেয়ারম্যানের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের শ্যামনগর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন  বঙ্গবন্ধুর পূর্ব বংশধর আল্লাহর  ওলি ছিলেন- ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি প্রেসবিজ্ঞপ্তি -ফিলিস্তিনের হত্যাকান্ডের জন্য জংগী সন্ত্রাসী গোষ্ঠী  হামাস দায়ী- অবিলম্বে ইজরাইল”কে স্বীকৃতি দিন —কমরেড সামাদ  ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের হামলার প্রতিবাদে বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন ২০১৩ ও শাস্তি? ১২ বছর ভোগদখলে প্রতিকার না চাইলে তামাদি আইনে জমির মালিক তানোরে শিব নদী পাড়ে বিনোদন প্রেমীদের ভিড় ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী কুড়িগ্রামে ঐক্য যুব ফোরাম ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদের পোষাক বিতরণ বিশ্ব ঐতিহ্য ষাটগম্বুজ মসজিদে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত ঈদের দিনেও ইসরাইলি বর্বরতা থেকে রেহাই পায়নি ফিলিস্তিনিরা

যমুনায় গুপ্তধন বপনে ব্যস্ত কৃষক

মোঃ নাসির উদ্দিন, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ সম্প্রতি বন্যার পানি নেমে যাওযায় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদী চরাঞ্চলে চারদিকে জেগে উঠেছে বালু চর। এ চরাঞ্চলের বালু চরে বর্তমান সময়ে গুপ্তধন (বাদাম) চাষে বীজ বপনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে কৃষকরা। উপজেলার গাবসারা, রেহাইগাবসারা, রুলীপাড়া, বেলটিয়াপাড়া, জুঙ্গীপুর, সরইপাড়া, বলরামপুর, কুঠিবয়ড়া, বাসুদেবকোল, ভদ্রশিমুল, শুশুয়া, গোবিন্দপুর, নলছিয়া, চিতুলিয়াপাড়া, রামপুর, কালিপুর ও ডিগ্রিচরসহ প্রায় অর্ধশত গ্রামের এসব এলাকায় বাদাম চাষ হচ্ছে।

রেহাইগাবসারা গ্রামের বাদাম চাষি মো. আলম মিয়া বলেন, বিগত বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পুরোদমে বীজ বপন ও বাদাম ক্ষেতের পরিচর্যা শুরু করেছি। অল্প খরচ, কম সময় ও পরিশ্রমে অধিক লাভবান হওয়া যায়। বাদাম চাষে বিঘা প্রতি খরচ হয় প্রায় ৩ হাজার ৫’শ থেকে ৪ হাজার টাকা এবং বিঘা প্রতি ফলন পাওয়া যায় প্রায় ৭ থেকে ৮ মণ। হাট বাজারে বাদামের ভালো চাহিদা থাকায় খরচ বাবদ বিঘা প্রতি লাভ হয় প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা।

শুক্র ও শনিবার (১ ও ২ নভেম্বর) সরেজমিনে চরাঞ্চলের কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বাদাম চাষের জন্য কৃষকরা জমি প্রস্তুত করছে, কেউ বাদামের বীজ বপন করছে, কেউ লাঙল টানছে আবার অনেক চাষিরা বীজ রোপণ করা জমি পরিচর্যা করছে। অন্যদিক, চরাঞ্চলের গ্রামীণ নারীরাও বাদাম চাষে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। কাজ করছে স্কুল পড়–য়া ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরাও। ভোরের সূর্য না উঠতেই সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি চাষিরা চরাঞ্চলের বালুর মাঠে গুপ্তধন বপনে ব্যস্ত সময়ই পাড় করছে।

বাদাম চাষি মোসা: কোহিনুর বেগম বলেন, গত বছর আমি ৩ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করে ভালো ফলন এবং বাজারে ভালো দাম পাওয়ায় এ বছর প্রায় ৭ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবারও বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছি।

বাদাম চাষ বিষয়ে ইবরাহীম খাঁ সরকারি কলেজের শিক্ষক ও কৃষিবিদ প্রবাস কুমার চন্দ্র বলেন, যমুনা চরাঞ্চলে বাদাম ও অন্যান্য ফসল চাষের জন্য খুবই উপযোগী। তাই কৃষকরা তাদের বেলে মাটির জমিতে বাদাম চাষ করছেন। আশ্বিন-কার্তিক মাস বাদাম চাষের সঠিক সময়। আড়াই থেকে ৩ মাসের মধ্যে তা আবার কৃষকের ঘরে উঠে। তিনি বলেন, খরচ বিহীন এই ফসল কৃষককে দিচ্ছে প্রচুর অর্থ। সুস্বাদু, মুখোরচক ও ভিটামিনসমৃদ্ধ এই ফসল একদিকে যেমন খাদ্যে যোগান দিয়ে থাকে তেমনি তেলের চাহিদা পূরণ করে। বাদাম ক্ষেত থেকে কচি পাতা কেটে কৃষকরা তাদের গরু-ছাগলের খাওয়ান। এতে গরু-ছাগল তাড়াতাড়ি স্বাস্থ্যবান হচ্ছে। তাছাড়া অন্য ফসলের মতো বাদামের জমিতে সার ও কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয় না।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা এস.এম রাশেদুল হাসান বলেন, ইতিমধ্যে যমুনা চরাঞ্চলে বাদাম চাষ শুরু হয়ে গেছে। অনেক চরগুলোতে বাদামের চারাও গুজিয়েছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাদাম চাষি কৃষকদের সহযোগিতা করার জন্য হতদরিদ্র কৃষক পরিবারের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সরকারের বরাদ্দকৃত প্রণোদনা পেলে দ্রুত সময়ে কৃষকদের মাঝে তা বিতরণ করা হবে। অন্যদিকে এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে বিগত বছরগুলোর চেয়ে এ বছর বাদাম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media


বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

https://twitter.com/WDeshersangbad

© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone