শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:৩৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
মেয়ের খোঁজ নিতেন না তামিমা শাহবাগে লেখক মুশতাকের গায়েবানা জানাজা, জুতা মিছিল বনানীতে বিএনপির মশাল মিছিলে পুলিশের হামলার অভিযোগ অন্যের বিশ্বাসের প্রতি আঘাত করে লিখতেন মুশতাক: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রতি সোম ও বৃহস্পতিবার চলবে ঢাকা-নিউ জলপাইগুড়ি ট্রেন আতিকের প্রতারণার তথ্য পেল পুলিশ! কৃষকনেতা বি এম সোলায়মান মাষ্টার এর ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত গাবতলীর কাগইলে ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত গাবতলীর কাগইল করুণা কান্ত স্মৃতি ফুটবল টুনামেন্ট উদ্বোধন গাইবান্ধায় আটক ঘড়িয়ালটি যমুনা নদীতে অবমুক্ত সাঁথিয়ার একমাত্র মহিলা বীর মুক্তিযোদ্ধা ভানু নেছা আর নেই বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন এর সাধারণ সভা ও জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনা সরকার ক্ষতায় থাকলে অদুর ভবিষ্যতে দেশে অনুদান নেয়ার লোক থাকবেনা ……………………খাদ্য মন্ত্রী বরিশালে মহাসড়কের পাশে গড়ে উঠছে অবৈধ স্থাপণা জেলে মুশতাকের মৃত্যুর দায় সরকারের : মোমিন মেহেদী

রাজশাহী আওয়ামী লীগে বির্তকিতদের কপাল পুড়ছে

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আগামী কাউন্সিল সামনে রেখে আগামী ৮ নভেম্বর শুক্রবার ঢাকায় মাননীয় প্রধানমস্ত্রী ও দলের সভাপতি শেখ হাসিনা রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। এদিকে বৈঠক ঘিরে কি হয় না হয় তা নিয়ে আওয়ামী লীগের একশ্রেণীর নেতার মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। একাদ্বশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে দলের শৃংঙ্খলা ভঙ্গ ও দলীয়কোন্দল সৃষ্টির অভিযোগে রাজশাহীর অধিকাংশ এমপি ঐক্যবদ্ধ ভাবে বিপদগামী টেন্ডারবাজ-চাঁদাবাজ-দখলবাজখ্যাত একশ্রেণীর নেতার বিরুদ্ধে দলের নীতিনির্ধারক মহলে অভিযোগও করেছে। আর দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিভিন্ন সভা-সমাবেশে প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়েছেন বির্তকিতদের কেনো ভাবেই সাংগঠানিক পদে রাখা হবে না। এসব বিবেচনায় নব্য কোটিপতি টেন্ডারবাজ-চাঁদাবাজ-দখলবাজসহ নানাভাবে বির্তকিত হয়েছে এমন বিতর্কিতদের কপাল পুড়ছে এটা প্রায় নিশ্চিত। আর বির্তকিতরা নিজেদের টলমল অবস্থা বুঝতে পেরে এবার আদর্শিক কর্মী-জনবান্ধব নেতাদের নেতৃত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে একের পর এক তারা তাদের বিরুদ্ধে প্রগান্ডা ও মিথ্যা প্রচারণায় জড়িয়ে পড়েছে। তাদের উদ্দেশ্যে একটাই তারা কমিটিতে থাকতে না পারলে আদর্শিক নেতৃত্বকেও তারা থাকতে দেবে না বলে মনে করছে তৃণমূল।
সূত্র জানায়, দলের দায়িত্বশীল সাংগঠনিক পদে থেকেও যারা দলের দায়িত্বশীল নেতার নেতৃত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে প্রকাশ্যে সভা-সমাবেশে মিথ্যা প্রচারণা বা প্রগান্ডা ছগিয়েছে, স্থানীয় নির্বাচনে যারা দলের মনোনিত প্রার্থীদের বিজয়ী করতে সক্রিয় না হয়ে গোপণে দল, নেতা ও নেতৃত্বের সঙ্গে বেঈমানী করে দলের মনোনিত প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল, জেলা পরিষদ, একাদ্বশ জাতীয় সংসদ, উপজেলা ও ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জয়ে কোনো ভূমিকা রাখতে পারেনি অবস্থান ছিল প্রশ্নবিদ্ধ, যারা জামায়াত-বিএনপির আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতায় নিজের আখের গোছাতে আওয়ামী লীগের চাদর গায়ে তাদের বি-টিম হয়ে কাজ করেছে, আবার যারা ২০১০ সালেও সাধারণ জীবনযাপন করেছে কিšত্ত দলীয় কর্মসূচির নামে চাঁদাবাজী, দখলবাজী, টেন্ডারবাজী ইত্যাদি অনৈতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে ২০১৯ সালে এসে তারা নব্য কোটিপতি হয়ে এমপির বিরোধীতা করার নামে পৃথক বলয় ও দলীয়কোন্দল সৃষ্টি করেছে এমন নেতাদের ছুড়ে ফেলে আদর্শিকদের হাতে নেতৃত্ব তুলে দেয়া হবে। অথচ এরা কেউ শিল্পপতি নয়, নয় বড় ব্যবসায়ী বা ঠিকাদার,নয় সরকারী আমলা বা কর্মকর্তা তাহলে তাদের আয়ের উৎস্য কি এতো অল্প দিনের মধ্যেই তারা কিভাবে এমন বিত্তশীল বা নব্য কোটিপতি হলেন এসব দলের হাইকমান্ড পাশপাশি তৃণমূলের নেতাকর্মীরাও তাদের অনেকটা ক্ষুব্ধ হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। আওয়ামী লীগ নিজের ঘন ঠিক রাখতে ও দলীয় স্বার্থ রক্ষায় বির্তকিত যে কাউকে যেকোনো সময় ছুড়ে ফেলতে পারেন সেই সক্ষমতা আওয়ামী লীগের রয়েছে কেননা আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল এমন কথাও নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনা হচ্ছে। আর এসব খবর প্রচারের পরপরই আওয়ামী লীগের একশ্রেণীর টেন্ডারবাজ-দখলবাজ-চাঁদাবাজখ্যাত নেতারা চরম টেনশানে পড়েছে, তাদের চোখে-মূখে ফুটে উঠেছে হতাশার ছাপ রয়েছে ছাঁটাই আতঙ্কে বলেও একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।
জানা গেছে, রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) ভিআইপি এই সংসদীয় আসনে একটানা তিন বারের নির্বাচিত আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও রাজশাহী চেম্বর অব কমার্সের সভাপতি, সিআইপি, রাজশাহীর সর্বোচ্চ স্বচ্ছ আয়কর দাতা, বৃক্ষরোপণে বিশেষ অবদান রাখায় রাস্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পদক অর্জনকারী, আদর্শীক ও পরীক্ষিত নেতৃত্ব বিলাস-প্রচার বিমূখ, সৎ রাজনৈতিকের প্রতিকৃতি, কর্মী ও জনবান্ধব রাজনৈতিক তথা গণমানুষের নেতা সবার প্রিয় আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরী আবারো জেলা সভাপতি হচ্ছেন এটা প্রায় নিশ্চিত। কারণ রাজশাহী বিভাগীয় শহর ও জামায়াত০বিএনপির ঘাঁটি এখানে আওয়ামী লীগের মতো এতো বড় একটি রাজনৈতিক দলের নেতৃত্ব দিতে নেতার যেই ধরণের রাজনৈতিক দূরদর্শীতা, কর্মী-বাহিনী, আর্থিক স্বচ্ছলতা, পারিবারিক-সামাজিক পরিচিতি ও অবস্থান, সাহসীকতা ও আদর্শিকতা প্রয়োজন সেটা কেবলমাত্র এমপি ফারুক চৌধূরীর রয়েছে। সকলকে মনে রাখতে হবে বিএনপির হেভিওয়েট নেতা প্রয়াত ব্যারিস্টার আমিনুল হককে পরাজিত করে এমপি ফারুক চৌধূরী আসনটি আওয়ামী লীগকে উপহার দিয়েছেন এসব বিবেচনায় তিনি আবারো জেলার সভাপতি হচ্ছেন এটা প্রায় নিশ্চিত। এব্যাপারে একাধিকবার যোগাযোগের চেস্টা করা হলেও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল কারো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38330470
Users Today : 573
Users Yesterday : 6494
Views Today : 1178
Who's Online : 42
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/