শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
একই পরিবারের ৩ জনকে গলা কেটে হত্যা, নেপথ্যে ‘কালো জাদু’ বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জে কমিউনিটি পুলিশিং ডে পালিত সরতে শুরু করছে বন্দর থানা আ’লীগের আকাশে জমে থাকা কালো মেঘ বন্দর থানায় পুলিশিং ডে অনুষ্ঠিত বগুড়ায় হত্যা মামলার পলাতক আসামী ধরলো সিআইডি বগুড়ায় বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন এমপি মোশারফ বেনাপোল স্থলবন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিকদের মধ্যে পরিচয়পত্র বিতরন পতœীতলায় সওজ কর্মকর্তার উপর হামলা, থানায় মামলা দায়ের সাঁথিয়ায় মৎস্যজীবীদের সাংবাদিক সম্মেলন গাইবান্ধায় ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেফতার ছাতকে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে থানা পুলিশের আলোচনা সভা বরিশালে কমিউনিটি পুলিশিং ডে পালন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে ব্যঙ্গ চিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মির্জা ফখরুল, মঈন খান, মাহমুদুর রহমান মান্নার অংশগ্রহণ দুর্বৃত্ত রাষ্ট্র নয় জনগণের রাষ্ট্র চাই .…….আ স ম রব খানসামায় নতুন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তার সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

রায়হানের নখ উপড়ানো, শরীরে ভোঁতা অস্ত্রের আঘাত

ভোঁতা অস্ত্রের আঘাতেই সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে ‘হেফাজতে’ থাকা রায়হান আহমদের মৃত্যু হয়েছে। কবর থেকে মরদেহ উত্তোলন করে দ্বিতীয় দফায় ময়নাতদন্তে এ তথ্য মিলেছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ময়নাতদন্ত শেষে সিলেট ওসমানি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. শামসুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, রায়হানের শরীরে অনেকগুলো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তার দুই তিনটি নখ উপড়ানো ছিলো। নির্যাতনের কারণেই তার মৃত্যু হওয়ার আশঙ্কা বেশি। আমরা রিপোর্টে পূর্ণাঙ্গ তথ্য উল্লেখ করেছি, তবে তা অত্যন্ত গোপনীয়।

ময়নাতদন্তের পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট পেতে ২০ দিন সময় লাগবে বলেও জানান তিনি।

ময়নাতদন্ত শেষে বিকেল ৩টার দিকে রায়হানের মরদেহ ফের দাফন করা হয়। এর আগে সকাল ১১টার দিকে নগরের আখালিয়া নবাবী মসজিদ পঞ্চায়েত গোরস্থান থেকে তার মরদেহ উত্তোলন করা হয়। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজিব আহমেদ ও মেজবাদ উদ্দিন এবং পিবিআই’র তদন্ত কর্মকর্তা মাহিদুল ইসলাম সেসময় উপস্থিত ছিলেন।

লাশ উত্তোলনের পর পুলিশ পাহারায় অ্যাম্বুলেন্সে করে মরদেহ সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে পুনরায় ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হয়।

পিবিআই’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খালেদুজ্জামান জানান, হেফাজতে মৃত্যু আইনে মামলা হলে নিহতের ময়নাতদন্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে করার বিধান থাকলেও রায়হানের বেলায় ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি ছাড়াই ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করে কবর দেয়া হয়।

এ কারণে মামলা আগের তদন্ত কর্মকর্তা পুনরায় ময়নাতদন্তের জন্য কবর থেকে মরদেহ উত্তোলনের জন্য জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আবেদন করেছিলেন। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে অনুমতি প্রদান করেন জেলা প্রশাসক। পরে আজ মরদেহ উত্তোলন করে পুনরায় ময়নাতদন্ত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোববার (১১ অক্টোবর) ভোরে নগরের কাস্টঘর এলাকায় ‘ছিনতাইকারী’ সন্দেহে গণপিটুনিতে আহত হলে হাসপাতালে নিলে রায়হানের মৃত্যু হয় বলে জানায় পুলিশ। এরপরই তার পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে ফাঁড়িতে আটকে রেখে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ আনা হয়।

ওইদিন দিবাগত রাতে নগর পুলিশের কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন নিহতের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার। এছাড়া এসএমপির তিন সদস্যের একটি দল ঘটনার তদন্তে নামে। প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় সোমবার (১২ অক্টোবর) বিকেলে এসএমপির হেডকোয়ার্টারের আদেশে ওই ফাঁড়ি ইনচার্জসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বহিষ্কার এবং তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়।

সাময়িক বহিষ্কৃতরা হলেন- ফাঁড়ি ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) তৌহিদ মিয়া, কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাশ ও হারুনুর রশীদ। প্রত্যাহার করা তিন জন হলেন- সহকারী উপ-দর্শক (এএসআই) আশীক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজীব হোসেন।

নিহত রায়হান নগরের আখালিয়া নেহারিপাড়ার বাসিন্দা। তার বাবা মৃত রফিকুল ইসলাম। তিনি দুই মাসের এক কন্যা সন্তানের জনক। দুই বছর ধরে তিনি সিলেট জেলা স্টেডিয়াম মার্কেটের চিকিৎসক ডা. গোলাম কিবরিয়া ও ডা. শান্তা রাণীর চেম্বারে সহকারীর কাজ করতেন।

এদিকে এ মামলায় প্রধান অভিযুক্ত এসআই আকবরসহ কাউকে এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37724042
Users Today : 11445
Users Yesterday : 8809
Views Today : 36958
Who's Online : 99
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone