বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
মাদ্রাসা প্রধানদের জন্য সুখবর প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতি শুরু হাজারবার কুরআন খতমকারী আলী আর নেই তানোরে আওয়ামী লীগ মুখোমুখি উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন জানিয়ে পাবনা জেলা ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল দিনাজপুর বিরামপুর পৌরসভায় ১১ মাসপর বেতন পেলেন কর্মকর্তা ও কর্মচারী গণ করোনার টিকা নিলেন মির্জা ফখরুল ও তার স্ত্রী রাজনীতিতে সামনে আরও খেলা আছে ইসিকে অপদস্ত করতে সবই করছেন মাহবুব তালুকদার: সিইসি ৪ অতিরিক্ত সচিবের দফতর বদল এ সংক্রান্ত আদেশ জারি রাজারহাটে কৃষক গ্রুপের মাঝে কৃষিযন্ত্র বিতরণ জামালপুরে কিশোরীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার পত্নীতলায় জাতীয় ভোটার দিবস পালিত পত্নীতলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত প্রফেসর মোঃ হানিফকে শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বরিশালের সর্বস্তরের মানুষ।

লালপুরের চাঁদপুর ১ নং উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি ফরম পূরণে দ্বিগুণ টাকা আদায়! ইউএনও-ডিসিকে জানিয়ে লাভ নেই, জানালেন প্রধান শিক্ষক

নাটোর প্রতিনিধি:
নাটোরের লালপুর উপজেলার কদিমচিলান ইউনিয়নের চাঁদপুর ১ নং উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এসএসসি ফরম পূরণের নির্ধারিত টাকার চেয়ে অতিরিক্ত টাকা বাধ্যতামূলকভাবে আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই সাথে ফেসবুকে এ সংক্রান্ত ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে এ অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজমল সেখ এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রায় দ্বিগুণ টাকা নিজেই আদায় করেছে বলে শিক্ষার্থীরা ক্যামেরার সামনে তথ্য দিয়েছে। এ সব টাকার কোন রশিদ প্রধান শিক্ষক কাউকে দেননি। এদিকে স্বেচ্ছাচারিতার মধ্য দিয়ে মোটা অংকের টাকা আদায়ের বিষয়ে ইউএনও বা ডিসি বরাবর অভিযোগ দিয়েও কোন লাভ হবে না বলে সাংবাদিকদের প্রকাশ্যে জানিয়েছেন ওই প্রধান শিক্ষক। পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকেরা জানিয়েছেন, বিজ্ঞান শাখায় ২৫ জন পরীক্ষার্থীদের কাছে থেকে নির্ধারিত ১৯৭০ টাকার স্থলে ৩১৫০ টাকা ও মানবিক শাখার ৭৮ জন পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ১৮৭০ টাকার স্থলে ৩০৫০ টাকা আদায় করেছেন প্রধান শিক্ষক। এছাড়া ফরম পূরণের তারিখ শেষ হওয়ার পরে অতিরিক্ত সময়ের জন্য জরিমানা সহ ৩৫৫০ টাকা আদায় করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা ওই প্রধান শিক্ষক অতিরিক্ত টাকা আদায় করেছে।
বিজ্ঞান শাখায় এবারের পরীক্ষার্থী ও ঘাটচিলান গ্রামের দরিদ্র কৃষক মুকুল হোসেনের মেয়ে রাহিমা আক্তার মনি জানান, ফরম পূরণের সময় হেড স্যার পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন ৩১৫০ টাকা দিতে হবে। এ ব্যাপারে কোন কথা বলা যাবে না। টাকা দিলে ফরম পূরণ হবে, অন্যথায় হবে না। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সরকারের অতিদ্ররিদ্র পরিবারের জন্য বরাদ্দকৃত ঘর পেয়েছেন ওই পরীক্ষার্থীর পিতা। অতি দরিদ্র পরিবারের এই মেয়েটির কাছ থেকে এভাবে বাধ্যতামূলক অতিরিক্ত ফি আদায় করায় ক্ষুদ্ধ হয়েছেন প্রতিবেশীরা। পরীক্ষার্থী আশা খাতুনের পিতা আছেদ আলী জানান, অন্যের জমি বর্গা নিয়ে চাষ করে কোন মতে সংসার চালান তিনি। মেয়েকে শিক্ষিত করে ভালো ঘরে বিয়ে দেয়ার স্বপ্ন দেখেন তিনি। সমিতি থেকে সুদে টাকা এনে মেয়ের ফরম পূরণের ৩১৫০ টাকা দিয়েছেন তিনি। ঠিক এরকমই পরীক্ষার্থী সুমাইয়া, নুজবা, আবৃত্তি, আমিরুল, জিতু, মেহেদি ফরম পূরণে অতিরিক্ত ১১৮০ টাকা, সাথী আক্তার লতা ও হোসনে আরা অতিরিক্ত ১৬৮০ টাকা করে প্রধান শিক্ষককে প্রদানের কথা স্বীকার করেছেন।
এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আজমল সেখ জানান, যে সকল পরীক্ষার্থী ভিডিওতে অতিরিক্ত টাকা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে তা সত্য নয়। তবে টাকা নেওয়ার রশিদ কেন শিক্ষার্থীরা পেলো না জানতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। পক্ষান্তরে তিনি জানান, এ ব্যাপারে শিক্ষা অফিসার, ইউএনও বা ডিসি সাহেবের কাছে অভিযোগ করে আপনাদের (সাংবাদিকদের) কোন লাভ হবে না।
কদিমচিলান ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম রেজা মাস্টার জানান, আমি নিজে একজন অতি দরিদ্র পরীক্ষার্থীর জন্য মানবিক শাখার নির্ধারিত ১৮৭০ টাকা নিতে প্রধান শিক্ষককে অনুরোধ করেছিলাম। কিন্তু এই অনুরোধও তিনি রাখেননি। তিনি ৩০৭০ টাকা থেকে ১টি টাকাও কম নেননি।
লালপুরের ইউএনও উম্মূল বাণী দ্যুতি জানান, অতিরিক্ত টাকা আদায় করলে অবশ্যই প্রধান শিক্ষক অন্যায় করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।
জেলা শিক্ষা অফিসার রমজান আলী আকন্দ জানান, এ বিষয়ে অভিযোগের সত্যতা মিললে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38346212
Users Today : 1715
Users Yesterday : 2774
Views Today : 10757
Who's Online : 31
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/