Home / জাতীয় / লিচুতে সরগরম আখাউড়া

লিচুতে সরগরম আখাউড়া

রসাল ও মিষ্টি ফল লিচু। এবারের মৌসুমে লিচুতে সরগরম ব্রাহ্মবাড়িয়ার আখাউড়া। এ উপজেলার বাজারগুলোতে জমে উঠেছে লিচু বেচাকেনা। এখানকার লিচু রসাল, মিষ্টি ও সুস্বাদু হওয়ায় সারা দেশেই এর প্রচুর চাহিদা। বিভিন্ন জেলা থেকে লিচু কিনতে ছুটে আসছেন ব্যবসায়ী ও পাইকাররা।

অনুকূল আবহাওয়া ও পরিচর্যার কারণে এবারের মৌসুমে লিচুর ভালো ফলন হয়েছে। এছাড়া ভাল দাম পাওয়ায় খুশি চাষিরাও। লিচু চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন আখাউড়ার তিনটি ইউপির ২০টি গ্রামের মানুষ।

নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে লিচু চাষে বিপ্লব এনেছেন আব্দুল্লাহ, আল-আমিন, শাহিন, লিয়াকত, বিল্লাল, শামসু, ফজলু, আবুলসহ আখাউড়ার ২০ গ্রামের শতাধিক চাষি। তারা বাণিজ্যিকভাবে লিচু চাষের পাশাপাশি বাড়ির আঙিনাতেও ৮-১০টি করে লিচু গাছ লাগিয়েছেন। প্রতিটি গ্রাম লিচু গাছে ভর্তি। গাছগুলোতে ঝুলছে থোকায় থোকায় বাহারি লিচু।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আখাউড়া পৌর এলাকার দুর্গাপুর, উত্তর ইউপির রামধননগর, চাঁনপুর, আমোদাবাদ, রাজাপুর, আনোয়ারপুর, মনিয়ন্দ ইউপির ঘাঘুটিয়া, খারকোট, মিনার কোট, নিলাখাতসহ অসংখ্য গ্রামে লিচু সংগ্রহ, পরিচর্যা ও বাজারজাত করণে ব্যস্ত সময় পার করছে চাষিরা। দেশীয়, চায়না, পাটনাইয়া ও বোম্বাই লিচুর ফল এসব গ্রামে বেশি হয়েছে।

বাহারি লিচু সাজিয়ে বসে আছেন এক বিক্রেতা

বাহারি লিচু সাজিয়ে বসে আছেন এক বিক্রেতা

কম পুঁজি ও শ্রমে বেশি লাভ হওয়ায় ধানি জমিগুলোও ধীরে ধীরে লিচু বাগানে রূপান্তরিত হচ্ছে। চাষিরা জানান, মৌসুমের প্রথম দিকে কালবৈশাখী ঝড়ে কিছু লিচুর ক্ষতি হলেও সব মিলিয়ে ফলন ভালো হয়েছে। খুচরা বাজারে ১শ’ লিচু বিক্রি হচ্ছে ২২০-২৫০ টাকায়। ভাল দাম পাওয়ায় তারা খুবই খুশি।

যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল থাকায় নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে প্রতিদিন সড়কপথে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, আশুগঞ্জ, কসবা, কিশোরগঞ্জের ভৈরব, নরসিংদী, কুমিল্লা, হবিগঞ্জের মাধবপুর, শায়েস্তাগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানের পাইকাররা এসে লিচু নিয়ে যাচ্ছেন।

ভৈরবের পাইকার মো. বিল্লাল বলেন, আখাউড়া থেকে লিচু নিয়ে ১০-১২ বছর ধরে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করছি। ভালো দাম পাচ্ছি। এ মৌসুমে তিনটি বাগান ইজারা নিয়েছি।

আখাউড়া উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী, এবার আখাউড়ায় ২৭০ হেক্টর জমিতে লিচু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। এরমধ্যে উত্তর, দক্ষিণ ও মনিয়ন্দ ইউপির ৩০টি গ্রামে লিচু চাষ হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহানা বেগম বলেন, এখানকার মাটি লিচু চাষের জন্য খুবই ভাল। আবহাওয়া অনুকুল ও পরিচর্যার কারণে চলতি মৌসুমে উপজেলায় লিচু বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলন ভালো করতে সার্বিকভাবে চাষিদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এ মৌসুমে ৫০-৬০ লাখ টাকার লিচু বিক্রি করা যাবে।

নিউজটি লাইক দিন ও আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

About jahir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও দুর্ভোগ কমেনি

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: নদ-নদীর পানি কমায় গাইবান্ধার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি ...