শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
আত্রাই বাঁধ উচ্ছেদে ঋণগ্রস্ত মৎস্যচাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত শার্শায় ছিনতাইকৃত টাকা একটি পিস্তল সহ তিন ছিনতাইকারী আটক আঁখি আলমগীরের স্ট্যাটাসটি কার সাথে কার পরকীয়া এসব ভেবে মাথা নষ্ট করবেন না বুক চিতিয়ে গুলি খাবার জন্য পুলিশকে অস্ত্র দেয়নি সরকার: বেনজীর অসহায় রোগীদের নিজের টাকায় সেবার ব্যবস্থা করে প্রশংসিত হয়েছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কনস্টেবল শওকত- রাজধনীতে চলছে ৫থেকে ৭ হাজার টাকায় ঝমঝমাট স্বামী বাণিজ্য! লিঙ্গান্তর ঘটিয়ে পুরুষ থেকে নারীতে রূপান্তরিত হলেন দুই জমজ ভাই আমা’র মে’য়ে কোন ভুল করেনি, এত বাড়াবাড়ি করছেন কেন: তামিমা’র মা তামিমার মুখোশ খুলে লাভ আমার একার না, সমগ্র পুরুষ জাতির : রাকিব নারীর ৮টি গো*পন অঙ্গভঙ্গি যা একজন পুরুষকে পাগল করে স্বামীর ম’রদেহের সঙ্গে রাত কাটিয়ে সকালে অফিসে! দেশের প্রথম ‘ছেলে সতীন’ হিসেবে গিনিস বুকে নাম লেখাতে চান নাসির হোসাইন! এবার প্রবাসীদের ব্যাগেজ রুলে আসছে পরিবর্তন, শুল্কছাড়ে যত ভরি স্বর্ণ আনতে পারবে প্রবাসীরা যে চার ধরনের শা’রীরিক মিলন ইসলামে নি’ষিদ্ধ !!বিজ্ঞানী বু-আলী ইবনে সীনা নারীদের যে ৮টি কথা বললে তারা আপনাকে মাথায় তুলে রাখবে…

শিবগঞ্জে আমনে বাম্পার ফলন সিন্ডিকেট নিয়ে শঙ্কা

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় এবার রোপা আমন চাষে আবহাওয়া অনুকূলে থাকা, সময়মত প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাত হওয়া ও উপজেলা কৃষি অফিসের সু পরামর্শ প্রদান করায় কৃষক বাম্পার ফলন আমন ধান ঘরে তোলার স্বপ্ন দেখছেন। তবে সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীর কারসাজির কারনে চাষীরা তাদের উৎপাদিত ধানের দাম নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। জানা যায়, অত্র উপজেলার ১২ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভায় মোট ২০ হাজার ১ শ ৫০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষের টার্গেট রয়েছে। ৪ লক্ষ ৪৪ হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপানের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, এবার কৃষি অফিস থেকে সঠিক পরামর্শ নেওয়া ও সঠিক সময়ে প্রয়োজনীয় বৃষ্টি পাত হওয়ায় আমন ক্ষেতে রোগ বালাই কম থাকায় ধান ভাল হয়েছে। ধানের ক্ষেত দেখে চাষীরা বাম্পার ফলনের আশা করেছেন। তবে শেষ দিকে নি¤œ চাপের গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হওয়ার কারণে ধান মাটিতে পড়ে যাওয়ায় ক্ষতির আশংকা করেছেন কেউ কেউ। তবে কিছু চাষী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমরা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ফসল ফলাই। কিন্তু কোন ফসলের সঠিক দাম পাইনা। এ কারনে লোকসানের হিসাব গুনতে গুনতে আমাদের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। তারা বলেন ইরি-বোরো ধান কেটে বাজারে বিক্রি করে যখন কৃষকের গোলার ধান শেষ সেই মুহুর্তে সরকার ধান কেনা শুরু করে। ফলে সিন্ডিকেটের চাতাল ব্যবসায়ীরা কম মূল্যের ধান ডাবল দামে বিক্রি করে। টাকা আলারা আরো বেশী টাকার মালিক হন। কারন এসব চাতাল মালিকরা সরকার দলের রাজনৈতির সাথে জড়িত। কিন্তু কৃষকের পক্ষে কেউ নেই। তাই এবার আমান ধান চাষীরা প্রথম থেকেই যেন ন্যায্য মূল্য পায় এমন দাবী করছেন কৃষকরা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ আল-মুজাহিদ বলেন- কৃষকদের নিয়ে কাজ করাই আমাদের কাজ। কৃষক তার উৎপাদিত ফসল সঠিক দামে বিক্রি করে লাভবান হোক এটাই আমাদের কাম্য। তাছাড়া সরকারি বিধিমত আমি সব সময় কৃষকদের পাশে থেকে তাদের সাহায্যে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করি। এ বিষয়ে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ কামাল উদ্দিন সরকার বলেন, সরকার যখন কৃষকদের নিকট থেকে ধান কেনার নির্দেশনা দিবেন তখনই দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করব। তিনি বলেন আমি চাই কৃষক তার উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য পাক। কিন্তু অনেক সময় কৃষকরা সরকারি বিধি মেনে গোডাউনে ধান বিক্রি করতে সমস্যা মনে করে ধান দিতে চায় না। এবার আমন ধান কেনার নির্দেশনা আসলে কৃষকদের কে বিধি মত যে কোন ধরনের সহযোগিতা করার চেষ্টা করব।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38325802
Users Today : 2399
Users Yesterday : 3953
Views Today : 6391
Who's Online : 96
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/