সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ১০:১০ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
নোয়াখালী সুবর্ণচরের বিএনপি নেতা এনায়েত উল্লাহ বি কম এর ইন্তেকাল নওগাঁর মহাদেবপুরে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গণকবর প্রাচীর দিয়ে সংরক্ষণের দাবি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের শিক্ষা জাতীয় করন নিয়ে মনের কষ্ট ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যক্ত করলেন অধ্যক্ষ এস এম তাইজুল ইসলাম কুলিয়ারচরে দিনব্যাপী ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন ২৫ ও ২৬ মার্চ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল জিয়া মমতাকে ছেড়ে আসা মিঠুন এখন মোদির দলে সন্তান কোলে নিয়েই দায়িত্ব সামলাচ্ছেন নারী ট্রাফিক পুলিশ স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদ মিয়ানমারে রাস্তায় হাজারো হাজার লোকের বিক্ষোভ স্কুল শিক্ষককে বিয়ে করলেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী প্রতারণার মামলায় ডা. সাবরিনার জামিন আবেদন নামঞ্জুর চট্টগ্রামে প্রবাসী হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড সামাজিক মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ লেখা সতর্ক করলেন প্রধান বিচারপতি নিবন্ধনধারীদের এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ ১৫ দিনের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনধারীদের নিয়োগ

সাগরে ছয় দিনে ধরা দেড়শ মেট্রিক টন মাছ

প্রজনন মৌসুমে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে গত ছয় দিনে রূপালি ইলিশসহ ১৫১ মেট্রিক টন বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরা পড়েছে। এটি গত বছরের তুলনায় ৯৪ মেট্রিক টন বেশি। এই বিপুল পরিমাণ মাছের মধ্যে ২০ মেট্রিক টন বিদেশে রপ্তানির জন্য প্রক্রিয়াজাত করা হচ্ছে।

গেল অক্টোবরের ৯ থেকে ৩০ তারিখ অর্থাৎ ২২ দিন সব রকমের ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা ছিল। প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষায় সরকারের এ নিষেধাজ্ঞা কাজে আসছে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। নিষেধাজ্ঞার পর সাগরে গিয়ে মাছ নিয়ে তাড়াতাড়িই ফিরে আসছেন জেলেরা।

কারণ অল্প সময়েই তাদের জালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে রূপালি ইলিশসহ নানা প্রজাতির মাছ। জালে প্রচুর মাছ পাওয়ায় জেলে ও বোটমালিকসহ মৎস্য শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা আনন্দে ভাসছেন। আবার মাছের দামও অনেকটা নাগালে থাকায় ক্রেতারাও খুশি।

কক্সবাজার জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির নেতারা জানান, নিষেধাজ্ঞার দিনগুলোতে মৎস্য শিল্পে জড়িতদের খুবই কষ্ট হয়। ওই সময়টাতে সরকারি সহযোগিতা আরও বাড়ানো উচিত।

মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র সূত্র মতে, নিষেধাজ্ঞা শেষে মাত্র ছয় দিনেই ধরা পড়েছে ১৫১ মেট্রিক টন সামুদ্রিক মাছ। আর এর মধ্য থেকে ২০ মেট্রিক টন মাছ বিদেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।

কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে দেখা যায়, প্রাণ চাঞ্চল্য ভরপুর কেন্দ্রে সারি সারি ট্রলার থেকে মাছ নামানো হচ্ছে। এসব মাছ ঝুঁড়ি ভর্তি করে স্তূপ করে আড়তে রাখা হচ্ছে। দর-দাম ঠিক করে কিনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পাঠানোর জন্য ট্রাকে বরফ দিয়ে প্যাকেজিং করে চলছে বোঝাই। আর এসব কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কয়েক হাজার মৎস্য শ্রমিক।

এদিকে নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ের ক্ষতি পুষিয়ে উঠবে বলে আশাবাদী মৎস্যজীবীরা। তাদের অনেকেরই ভাষ্য, নিষেধাজ্ঞার সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত ২০ কেজি চাল পাননি। অনেকেরই সংসার চালাতে ধারদেনা করতে হয়েছে। এখন সেসব পুষিয়ে উঠবে বলে আশা তাদের।

কক্সবাজার ফিশারি ঘাটে মাছ কিনতে আসা মো. নাসির জানান, জেলেরা প্রচুর পরিমাণে ইলিশসহ বিভিন্ন মাছ নিয়ে ফিরছেন। দামও সহনীয়। তিনি ঘুরে ঘুরে বেশকিছু মাছ কিনেছেন।

মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রর বিপণন কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, ৩১ অক্টোবর ল্যান্ডিং হয়েছে ছয় মেট্রিক টন মাছ, ১ নভেম্বর ১১ মেট্রিক টন, ২ নভেম্বর ২৫ মেট্রিক টন, ৩ নভেম্বর ৫০ মেট্রিক টন। দিনে দিনে মাছ আহরণের পরিমাণও বাড়ছে।

কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের নিবার্হী প্রকৌশলী মোহাম্মদ ইসানুল হক বলেন, ‘গত ছয় দিনে ইলিশ ও রূপচাঁদাসহ ১৫১ মেট্রিক টন সামুদ্রিক মাছ আহরণ হয়েছে। গত বছরের একই সময়ে ধরা পড়েছিল মাত্র ৫৭ মেট্রিক টন। সে হিসাবে এবার গত বছরের তুলনায় ৯৪ মেট্রিক টন মাছ বেশি পাওয়া গেছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ২০ মেট্রিক টন মাছ বিদেশে রপ্তানি করা হবে।’

তিনি জানান, এই ছয় দিনে ধরা পড়া মাছের মধ্যে ইলিশ রয়েছে ২৮ মেট্রিক টন আর রূপচাঁদা ১৩ মেট্রিক টন। বাকিগুলো অন্যান্য সামুদ্রিক মাছ।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38372910
Users Today : 4532
Users Yesterday : 2978
Views Today : 14323
Who's Online : 52
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/