মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৪:০১ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
ছাতক পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নতুন মুখ আব্দুল কদ্দুছ শিবলুর মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা।। দূর্গা পূজায়- ফুলবাড়ী পৌরসভার প‌্যা‌নেল মেয়র মামুনুর র‌শিদ চৌধুরী(মামুন) এর নগদ অর্থ বিতরন ইসলামপুরে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো দূর্গাপুজা ইসলামপুর বেলগাছা আওয়ামীলীগের সম্মেলন সফল করার লক্ষে সভাপতি প্রার্থী সামছুল আলমের আনন্দ মিছিল হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে একটি ব্যাঙ্গাত্মক নাটক মঞ্চস্থ করার ঘোষণা দেয় চোখে দেখতে না পায়না তবুও শুনে শুনে মুখস্ত করলো পবিত্র কোরআন শরিফ কেন আত্মহত্যা করলেন ঢাবি ছাত্রী রুম্পা কক্সবাজারে ট্রাক-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৪ আইপিএলের ৮ দলের মালিকের নাম জেনে নিন ‘৩৬৫ দিনে এক বছর’ আবিষ্কার করেন এই মুসলিম বিজ্ঞানী স্বামীর অজান্তে একই বাড়িতে প্রেমিককে লুকিয়ে রাখেন ১৭ বছর ‘হু আর ইউ? অ্যাম আই এ ক্রিমিনাল? উইল ইউ অ্যারেস্ট মি? পাঞ্জাবের বোলিং তান্ডবে অল্প রানেই শেষ কলকাতা বালিশ আর কম্বল এমপি পুত্রের সম্বল নব দিগন্তের সূচনা সীমানা পেরিয়ে বাংলাদেশের পরীক্ষামূলক রেল ইঞ্জিন ভারতে যাচ্ছে আজ

স্বাভাবিকভাবে বাঁচতে চায় রিপন

 

মোঃ ইমরান মাহমুদ :
একটু সহানুভূতিই পারে রিপনকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে। জামালপুরে মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নের ছবিলাপুর গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে।
পঞ্চম শ্রেণি পড়–য়া রিপন হঠাৎ করে তার একটি মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় হাতটি ভেঙ্গে যায়। প্রায় ছয় মাস ময়মনসিংহ ও জামালপুর চিকিৎসা করালেও কোনো লাভ হয়নি। ক্রমশ ব্যথা বৃদ্ধি পেতে থাকে। অসুস্থতার কারণে সে আর স্কুলেও যেতে পারে না।
এদিকে ছেলের অসুস্থতায় পিতার চিন্তার শেষ নেই। চিকিৎসকরা জানান, অপারেশন করলে তার হাত স্বাভাবিক হবে, অপারেশন করাতে অনেক টাকা লাগবে। রিপনের পিতা দিশেহারা হয়ে গেছেন। এত টাকা কোথায় পাবেন সে। টাকা যোগাড় করতে না পেরে অসহায়ের মতো ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসেন। বর্তমানে রিপনের অবস্থা খুবই করুণ। অসহ্য ব্যথায় দিনাতিপাত করছে রিপন। নিজের হাত দিয়ে খেতেও পারছে না রিপন।
জামালপুরে মেরান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নের ছবিলাপুর গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে মোঃ রিপন (১১)। সে স্থানীয় ছবিলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন মেধাবী ছাত্র।
তার পিতা পেশায় একজন দিনমজুর। তিনি অন্যের বাড়ি, খেতখামারে কাজ করেন। তিনিই সংসারের একমাত্র উপার্জনকারী। যে কয়টাকা পায় এই সামান্য টাকায় স্ত্রী, ছেলে রিপনসহ তিন মেয়ে ও চার ছেলে নিয়ে কোনো রকমে সংসার চালান। জায়গা-জমি ও অন্যান্য সম্পদ বলতে তার মাথা গোজার ঠাঁই বাড়ি টুকু ছাড়া আর কিছুই নেই। রিপনকে নিয়ে তার পিতার চোখে মুখে অনেক স্বপ্ন।
ছেলেকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে আদর্শবান হিসেবে গড়ে তুলবেন। পিতার সেই স্বপ্ন পূরণ করতে ভর্তি হন স্থানীয় ঐ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
এদিকে ছেলের এ অবস্থায় মজনু মিয়া মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন। এ পর্যন্ত চিকিৎসার জন্য পঞ্চাশ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এখন সমাজের দানশীল ব্যক্তিরা এগিয়ে আসলে ছেলেটিকে বাঁচানো সম্ভব। মেধাবী এই ছাত্রকে বাঁচাতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে চাইলে উল্লেখিত তার পিতার বিকাশ- ০১৩০০-৬২৫৬৭৯ (পার্সোনাল) নম্বরে সাহায্য পাঠানো যাবে। অথবা সরাসরি ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নের ছবিলাপুর গ্রামের এসে সাহায্য করতে পারেন।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

37689548
Users Today : 10761
Users Yesterday : 9494
Views Today : 29972
Who's Online : 94
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design & Developed BY Freelancer Zone