বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৪:৫২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড় আসছে, ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত করোনায় দেশে মৃত্যু ও শনাক্ত কমেছে কাল থেকে চলবে গণপরিবহন, মানতে হবে যেসব নির্দেশনা ৫০ হাজার টন চাল আসছে ভারত থেকে গণপরিবহনের জন্য বিআরটিএ’র ৫ নির্দেশনা পার্বতীপুরে হেরোইনসহ একাধিক মাদক মামলার এক আসামি গ্রেফতার গোদাগাড়ীতে বৃত্তি ও শিক্ষাপোকরণ বিতরণ বড়াইগ্রামে ৪ হাজার ২’শ জনকে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা ইউনাইটেড খানসামা’র উদ্যোগে দুঃস্থ ও অসহায় নারী-পুরুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জে সরকারিভাবে ২৭ টাকা কেজি দরে ধান ক্রয়ের উদ্বোধন ১৬ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন চরম অর্থ সংকটে ভাড়াটিয়ারা, ভালো নেই বাড়িওয়ালারাও ৬ মে থেকে গণপরিবহন চালুর বিষয়ে প্রজ্ঞাপনে যা আছে ঈদের ছুটিতে কর্মজীবীদের কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ

২৮ বছর ধরে দেওয়ানী আদালত না থাকায় দু’উপজেলার বিচার প্রার্থীদের চরম ভোগান্তি

সাইফুল্লাহ নাসির, দেশের সংবাদ, ৯ সেপ্টেম্বর, জেলা প্রতিনিধি, বরগুনা।
২৮ বছর ধরে দেওয়ানী আদালত না থাকায় বরগুনার আমতলী-তালতলী উপজেলার বাসিন্দাদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। তিন কিলোমিটার প্রস্থ পায়রা নদী (বুড়িশ্বর) পাড়ি দিয়ে মামলা-মোকদ্দমার জন্য বরগুনা সদরে অবস্থিত সহকারী জজ আদালতে যেতে হয়। ২০১২ সালে বরগুনার তৎকালীন জেলা জজ আমতলীতে দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপনের পক্ষে আইন মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দিলেও গত সাত বছরে তা আলোর মুখ দেখেনি।
জানাগেছে, এরশাদ সরকার ১৯৮২ সালে আমতলী-তালতলীকে নিয়ে আমতলী উপজেলা গঠন করার পর থেকেই আমতলীতে মুনসেফ আদালত স্থাপিত হয়। ১৯৯১ সালে রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের ফলে কোনো কারণ ছাড়াই মুনসেফ আদালত প্রত্যাহার করে বরগুনা জেলা সদরের সঙ্গে সংযুক্ত করেন। বর্তমানে বরগুনায় দেওয়ানী আদালতে আমতলী-তালতলী উপজেলার প্রায় দুই হাজার মামলা চলমান রয়েছে বলে আদালত সূত্রে জানাগেছে।
গত ২৩ এপ্রিল ২০১১ সাথে আমতলী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের আইজীবীরা আমতলীতে দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপনের জন্য আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেন। এ আবেদনের প্রেক্ষিতে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয় স্বারক নং বিচার-৪/০৫/সিটি-১/২০১১-১২৬৫, তারিখ ২৬/১২/২০১১ ইং চিঠিতে জেলা ও দায়রা জজ, বরগুনাকে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ করেন। মন্ত্রনালয়ের উল্লেখিত চিঠির আলোকে তৎকালীন জেলা ও দায়েরা জজ মোঃ আখতার হোসেন আদালত ভবন, এজলাস কক্ষ, বিচারকের বসার কক্ষ, অফিসকার্য পরিচালনার প্রয়োজনীয় কক্ষ এবং বিচারকের থাকার বাসস্থান ইত্যাদি ভৌত অবকাঠামো পূর্বেই বিদ্যমান থাকায় আমতলীতে দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপনের পক্ষে সুপারিশ করে আইন মন্ত্রনালয় পাঠিয়ে দেয়। তিনি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন তৎকালীন সময়ে ১২৪৯টি দেওয়ানী, ১৮৮টি মিস, ৫৩টি পারিবারিক ও ৭৩টি জারী মোকদ্দমাসহ সর্বমোট ১৫৬৮টি বিচারাধীন ছিল। বর্তমানে মামলার সংখ্যা প্রায় ২ হাজারে উন্নীত হয়েছে। দীর্ঘ সাত বছরেও আদালত পুনঃস্থাপন হয়নি।
আমতলীতে দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপনের দাবীতে জাতীয় সংসদ সদস্য এ্যাড. ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভূ বলেন, আমতলী- তালতলীর অসহায় দরিদ্র জনগনের পক্ষে জেলা সদরে আসিয়া মোকদ্দমা পরিচালনা করা যেমনি ব্যয়বহুল তেমনি কষ্টকর। অতি দ্রুত দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপন দরকার।
ঢাকা বার আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও আমতলীর কৃতি সন্তান অ্যাডভোকেট গাজী শাহআলম মুঠোফোনে বলেন, বরগুনার আমতলীতে দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপন একান্ত দরকার। আমতলী- তালতলী উপজেলার মানুষের দূর্ভোগের কথা বিবেচনা করে দ্রুত আমতলীতে দেওয়ানী আদালত পুনঃস্থাপন করা একান্ত প্রয়োজন।
সাইফুল্লাহ নাসির
বরগুনা।

Please Share This Post in Your Social Media


বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

https://twitter.com/WDeshersangbad

© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone