মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৫:০১ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
নোয়াখালী সুবর্ণচরের বিএনপি নেতা এনায়েত উল্লাহ বি কম এর ইন্তেকাল নওগাঁর মহাদেবপুরে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গণকবর প্রাচীর দিয়ে সংরক্ষণের দাবি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের শিক্ষা জাতীয় করন নিয়ে মনের কষ্ট ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যক্ত করলেন অধ্যক্ষ এস এম তাইজুল ইসলাম কুলিয়ারচরে দিনব্যাপী ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন ২৫ ও ২৬ মার্চ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল জিয়া মমতাকে ছেড়ে আসা মিঠুন এখন মোদির দলে সন্তান কোলে নিয়েই দায়িত্ব সামলাচ্ছেন নারী ট্রাফিক পুলিশ স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদ মিয়ানমারে রাস্তায় হাজারো হাজার লোকের বিক্ষোভ স্কুল শিক্ষককে বিয়ে করলেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী প্রতারণার মামলায় ডা. সাবরিনার জামিন আবেদন নামঞ্জুর চট্টগ্রামে প্রবাসী হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড সামাজিক মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ লেখা সতর্ক করলেন প্রধান বিচারপতি নিবন্ধনধারীদের এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ ১৫ দিনের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনধারীদের নিয়োগ

৩০ বছর ধরে ভাঙ্গাচুরা ঘরে বসবাস ও আফিস করছেন কর্মকর্তা কর্মচারী মধ্যপাড়া বনবিভাগের বাসা বাড়িতে বসবাসের অনুপযোগী \

দিনাজপুর প্রতিনিধি
দিনাজপুরের পূর্বাঞ্চলের মধ্যপাড়া রেঞ্জের বনবিভাগের বাসাবাড়িতে বসবাসের অনুপযোগী। ৩০ বছর ধরে ভাঙ্গাচুরা ঘরে বসবাস ও অফিস করছেন কর্মকর্তা কর্মচারী। দিনাজপুরের পূর্বাঞ্চলের মধ্যপাড়া রেঞ্জের আওতায় বেশ কয়েকটি এলাকায় তদারক করেন মধ্যপাড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা খন্দকার মকছুদ আলী। এখানে ২০ জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী বসবাস করেন। সরকার বনবিভাগ থেকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করলেও মধ্যপাড়া বনবিভাগের বাসাবাড়ি ও অফিস সংস্কার করার কোন প্রয়োজন মনেকরছেনা। ফলে তারা ৩০ বছরে পুরাতন কাঁচা পাকা ভবনে বসবাস করছেন এবং অফিস করছেন। এই এলাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা মধ্যপাড়া রেঞ্জের আবাসিক এলাকায় ৩ একর জমি রয়েছে। সেই সরকারি জমিতে আবাসিক ভবন, রেস্টহাউজ নির্মান করলে দূরদুরান্ত থেকে শতশত মানুষ এখানে এসে রাত্রীযাপন সহ সময় কাটাতে পারেন। এতে সরকার বিপুল পরিমান রাজস্ব আয় করবেন। এই এলাকায় একটি বিশাল পাথর খনি রয়েছে। দূরদুরান্ত থেকে লোকজন এলে এখানে কোন থাকার জায়গা নেই। দিনাজপুর শহর থেকে মধ্যপাড়ার দূরত্ব প্রায় ৭০ কি.মি. মিঠাপুকুর থেকে ফুলবাড়ী মাঝামাঝি স্থানে মনরোম পরিবেশ রয়েছে। মধ্যপাড়া রেঞ্জের কর্মকর্তা কর্মচারীরাও অনেক কষ্টে এখানে বসবাস করছেন ভাঙ্গাবাড়ীতে । সরকারি ভাবে বাসা বাড়ি ও অফিস সংস্কার করা না হলে দিন দিন বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়বে।
এ ব্যাপারে মধ্যপাড়া রেঞ্জের বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকার্তা খন্দকার মোকসুদ আলীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, প্রায় ৩০ বছর ধরে এখানকার বাসা বাড়ীগুলি সংস্কারের অভাবে পড়ে আছে। আমরা বহুবার উদ্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানালেও তাঁরা কোন পদক্ষেপ গ্রাহন করেন নি। তাই আমাদের করনীয় কিছু নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38375302
Users Today : 2022
Users Yesterday : 4902
Views Today : 12314
Who's Online : 28
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/