Breaking News
Home / শিক্ষা / কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে কচাকাটা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মৌমাছি আতংকে শিক্ষক-শিক্ষার্থী

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে কচাকাটা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মৌমাছি আতংকে শিক্ষক-শিক্ষার্থী

আনোয়ার হোসেন, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : তারিখ- ১১.১২.১৯ইং
কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মৌচাকের মৌমাছির আঘাত আতংকে আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থী ও শিক্ষক। এ নিয়ে কিছুদিন যাবত ভয় ও আতংক চলছে স্থানীয়রাসহ বিদ্যালয়ের সকলের মাঝে। জানা গেছে, উপজেলার উত্তর কচাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২২টি মৌচাকের মধ্যে রয়েছে অসংখ্য মৌমাছি। মাঝে মাঝেই এসব মৌচাক থেকে মৌমাছি উড়ে এসে আকস্মিকভাবে হুল ফোটায় মানুষের শরীরে। স্কুলে যাওয়া আসার পথে একই অবস্থার শিকার হতে হচ্ছে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের। আতংকিত কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ভয়ে স্কুল যাওয়া প্রায় বন্ধ করে দিয়েছেন। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, তাদের স্কুলে ২শ’ ৪০জন ছাত্র-ছাত্রী অধ্যায়ন করছে। বিদ্যালয় সংলগ্ন বিস্তৃত মাঠ জুড়ে এখন সরিষা ক্ষেতে হলদে রঙ্গে রঙ্গিন হয়ে গেছে চারপাশ। প্রকৃতির অপরূপ বৈচিত্র্য যেনো ঘিরে রেখেছে পুরো বিদ্যালয়। সেখানে নেচে নেচে মধু সংগ্রহ করে বিদ্যালয় ভবণের তিনদিকে কার্ণিশে ও সিড়িতে ২২টি মৌচাকে বাস করছে অসংখ্য মৌমাছি। আশে পাশের এলাকায় পাখি উড়ে গেলে অথবা হালকা বাতাস উঠলেই এসব মৌমাছিরা ভনভন শব্দে উড়তে থাকে এদিক সেদিক। দ্রুত বেরিয়ে এসে হুল ফোটায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীর গায়ে অথবা শরীরের যেকোন অঙ্গে। এসব মৌমাছির বিষাক্ত হুলের আক্রমন থেকে বাঁচতে দরজা জানালা বন্ধ করে কিছুদিন ধরে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকাগণ ক্লাস নিচ্ছেন। এখন চলছে ১ম শ্রেণি থেকে ৪র্থ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা। সে পরীক্ষাও নেয়া হচ্ছে জানালা দরজা বন্ধ করে অনেক আতংকে থেকে। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা খুশি রাণী সাহা জানান, গত শনিবার একটু বাতাসে বেশকিছু মৌমাছি উড়ে এসে তাকে ও আর একজন সহকারী শিক্ষক নজরুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে কামড় দিলে অনেক শিক্ষার্থী আহত হয়। হুল ফোটায় তাদের মুখসহ ও শরীরে। এতে অসুস্থ হয়ে পড়ে ৪র্থ শ্রেণির সুমাইয়া খাতুন, জয়নব খাতুন, মনির হোসেন, দ্বিতীয় শ্রেণির বিউটি খাতুনসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কোহিনুর খাতুন জানান, প্রথমে মৌমাছির সমস্যায় আমনা ধোঁয়ার সাহায্যে সেগুলো তাড়ানোর চেষ্টা করেও লাভ হয়নি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সতর্ক থাকতে বলা হলেও পাখি বা অন্য কোনভাবে তারা আঘাতপ্রাপ্ত হলেই আক্রমন চালায়। গত সোমবার একটু বাতাস উঠলেই অনেক মৌমাছি উড়ে এসেছিল কিন্তু জানালা দরজা বন্ধ রাখায় কাউকে হুল ফোটাতে পারেনি। এখন আমাদের বাধ্য হয়ে খরকুটো জ্বালিয়ে ধোঁয়া উৎপন্ন করে দরজা জ্বানালা বন্ধ করে অন্ধকার কক্ষে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা নিতে হচ্ছে।

Please follow and like us:
error

About jahir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রাজারহাটে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নবীনবরণ অনুষ্ঠিত

এ.এস লিমন,রাজারহাট প্রতিনিধি।। কুড়িগ্রামের রাজারহাটে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের স্টুডেন্টস্ কেবিনেট এর ...