Breaking News
Home / রাজশাহীর সংবাদ / অবৈধ ইট ভাটা এইচএম-২০০০ ?

অবৈধ ইট ভাটা এইচএম-২০০০ ?

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি
রাজশাহীর তানোরের সীমান্তবর্তী ঘাষিগ্রাম ইউপির বড়াল মাঠে চার ফসলিতে জমিতে (এইচএম২০০০) নামের অবৈধ ইটভাটা স্থাপনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয়রা অবৈধ ওই ইটভাটা বন্ধের দাবিতে ডাকযোগে রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ও আঞ্চলিক পরিবেশ অধিদপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।নাম পরিচয় গোপণ রাখার স্বার্থে ভাটায় কর্মরত এক ব্যক্তি বলেন, রাজশাহী জেলা, মোহনপুর উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের অলিখিত অনুমতিতে তারা এই ভাটা স্থাপন করেছেন, তার ভাটার বিষয়ে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন অবগত রয়েছেন এটাকে অবৈধ ভাটা বলা অনৈতিক। তিনি আরো বলেন, স্থানীয় এমপি আয়েন উদ্দীনের ভাই ও ঘাষিগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল হোসেন বাবলু তার ভাটার সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছেন, তিনিই জ্বালানি হিসেবে কাঠ পোড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন। মোহনপুর উপজেলা কৃষি বিভাগের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, অবৈধ এই ইট ভাটার কারণে বড়াল মাঠের প্রায় দেড় থেকে দুশ’ বিঘা আলুর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বলেন, দ্রুত এই ভাটা বন্ধ করা না হলে এই মাঠে সব ধরণের ফসলহানি হবে।
এদিকে লোকালয় ও চার ফসলি জমিতে অবৈধ ইট ভাটা নির্মাণের ফলে আশপাশের জমিতে ফসল উৎপাদন ব্যাহত ও প্রাকৃতিক পরিবেশের ওপর বিরুপ প্রভাব পড়েছে। সরকারের সব নিয়মনীতি লঙ্ঘন করে জ্বালানী হিসেবে কয়লার পরিবর্তে কাঠ দিয়ে ইট ভাটায় প্রকাশ্যে ইট পোড়ানো হচ্ছে। আর ইট ভাটায় পোড়ানো জ্বালানী কাঠের প্রচন্ড কালো ধোয়ায় লোকালয়ের জনজীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। সংশ্লিষ্ট এলাকার ডাব, আম ও কাঠাল গাছের ব্যাপক ক্ষতির পাশপাশি ফসলহানি হচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম ও বাবু বলেন, ইট ভাটার কালো ধোয়ার কারণে তাদের আলুখেতে রোগ ও ফলন হানির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তারা বলেন, ইট ভাটার কারণে আশপাশের প্রায় ১০০ বিঘা জমির আলুচাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে, কিšত্ত প্রভাবশালীরা তাদের বাধা-নিষেধ উপেক্ষা করেই ভাটায় কাঠ পোড়াচ্ছেন। প্রভাবশালীরা চার ফসলি প্রায় ১০ বিঘা জমির ওপর অবৈধ ইট ভাটা স্থাপন করেছেন। স্থানীয়রা অবৈধ এই ইট ভাটা স্থাপনে বাধা দিলে তাদের মামলা-হামলার ভয়ভীতি প্রদর্শন ও প্রায় জিম্মি করে অবৈধ ইট ভাটা স্থাপন করা হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ পরিবেশ অধিদপ্তরের জারি করা পরিপত্র (২০ অক্টোবর ২০০৩) অনুযায়ী ইট ভাটায় ১২০ ফুট উঁচু চিমনি স্থাপন বাধ্যতামুলক। অথচ অবৈধ এই ইট ভাটায় মাত্র ২০ ফুট উচু মানধাত্তা আমলের টিনের চিমনি স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়াও ইট পোড়ানো নিয়ন্ত্রণ আইন (৪ ধারার ৫ উপ-ধারা) অনুযায়ী আবাসিক এলাকা, উপজেলা সদর ও ফল বাগানের আশপাশের ৩ কিলোমিটার এলাকার মধ্যে ইট ভাটা স্থাপন সম্পূর্ণ অবৈধ। কিšত্ত লোকালয় ও চারফসলী জমিতে এই ইট ভাটা স্থাপন করা হয়েছে। এতে ইট ভাটার নির্গত ধোঁয়া অতি সহজেই লোকালয় ও খেত-খামারে ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে বিপর্যস্ত হচ্ছে পরিবেশ জনজীবন হয়ে উঠেছে দুর্বিষহ। স্থানীয়রা অবৈধ এই ইট ভাটা বন্ধের জন্য ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যম প্রশাসনের অভিযান পরিচালনার দাবি করে সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এব্যাপারে মোহনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সানওয়ার হোসেন বলেন, এবিষয়ে বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এব্যাপারে রাজশাহী পরিবেশ অধিদপ্তর-এর উপ-পরিচালক বলেন, পরিবেশের ক্ষতি করে কোনো ইট ভাটা চালাতে দেয়া হবে না। তিনি বলেন, এ বিষয়ে খোজখবর নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এব্যাপারে (এইচএম ২০০০) ইট ভাটা মালিক হাজী আজিজুল ইসলাম বলেন, তার ইট ভাটা অবৈধ সেটা ঠিক তবে তারা অনুমোদন নেয়ার চেস্টা করছেন। #
তানোর প্রতিনিধি

Please follow and like us:
error

About jahir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

তানোরে এতিমদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি রাজশাহীর তানোরে বাঙালি জাতির জনক ও মহান স্বাধীনতার স্থপত্তি ...