Breaking News
Home / অপরাধ / গোবিন্দগঞ্জে বাঁধ নির্মাণে সরকারী অর্থ লোপাট প্রশাসনের নজরদারী নেই।

গোবিন্দগঞ্জে বাঁধ নির্মাণে সরকারী অর্থ লোপাট প্রশাসনের নজরদারী নেই।

 

 

বায়েজীদ (গাইবান্ধা)  :

 

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের চরবালুয়ায় ১ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যায়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম সহ সরকারী অর্থ লোপাটের অভিযোগ উঠলেও প্রশাসনের নজরদারী নেই।

 

জানা গেছে, পানি উন্নয়নের বোর্ডের অধিনে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণের কাজ পায় বগুড়ার নাভানা কনট্র্যাকসন্স। ৩২০ মিটার বাঁধের জিওব্যাগ, স্যামসিমেন্ট বস্তা ও হার্ড মাটির কাজে ব্যাপক অনিয়মের মাধ্যমে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এবং গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের যোগসাজসে সরকারী অর্থ লোপাট করছে বলে ওই এলাকার স্থানীয় জনসাধারণেরা অভিযোগ করেন।

 

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২৫ জানুয়ারী (শনিবার) বিকেলে ওই বাঁধে কাজ পরিদর্শণে গিয়ে দেখা যায়, ঢালাই মেশিন দিয়ে জিওব্যাগের কাজ চলছে। ৬-১ ভাগের কাজের স্থলে ১০-১ ভাগের কাজ চলছে। প্রতিবস্তা জিওব্যাগের ওজন হতে হবে ৭৫ কেজি, সেখানে ৬০ থেকে ৬৫ কেজি ওজনের জিওব্যাগ ভরানো হচ্ছে। ডিজিটাল মেশিন দ্বারা প্রতি বস্তা ওজন করার কথা থাকলেও সেখানে কোন প্রকার ডিজিটাল মেশিন ছিল না।

 

এ বিষয়ে গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে ওই বাঁধের কাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা ওয়ার্ক এ্যাসিসটেন্ট আনিছুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওজনের মেশিনটি খারাপ হয়ে আছে। বিষয়টি পানি উন্নয়ণ বোর্ডের কর্মকর্তাদের অবহিত করে কাজ চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। জিওব্যাগের কাজে বালু ও সিমেন্ট ব্যবহারে অনিয়মের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে কোন উত্তর দিতে পারেননি।

 

তবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বরত সাইড ম্যানেজারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত ২২ জানুয়ারী থেকে জিওব্যাগের কাজ চলছে। ওই দিন সন্ধ্যায় ওজনকৃত ডিজিটাল মেশিনটি নষ্ট হয়ে গেছে। এরপর জিওব্যাগ ওজন না করেই বাঁধে লাগানো হচ্ছে। কাজের অনিয়মের বিষয়ে তিনি বলেন, উর্দ্বর্ত্বণ কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে জিওব্যাগ ঢালাইয়ের কাজ অব্যাহত আছে।

 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিভাগীয় উপ-প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, জিওব্যাগের ওজন হতে হবে ৭৫ কেজি এর নিচে হওয়ার কথা নয়, ৬-১ এর ভাগে কাজ করার কথা, আমার লোক আছে ওইখানে তার সাথে আমি কথা বলতেছি। বাঁধের পারের ভুক্তভোগি মানুষেরা জানান, বাঁধের কাজের শুরু থেকেই পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগসাজস করে নাম সর্বস্ব বাঁধ নির্মাণ করে সরকারের অর্থ লোপাট করে পকেটস্থ করছে। তাই সরকারী মাল, দরিয়ায় ঢাল, প্রশাসনের কেউ নেই, যে নজরদারী রাখবে।

Please follow and like us:
error

About jahir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

নড়াইল স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রী ছটপট করছে হাসপাতালে

উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধিঃ  স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রী জখমের অভিযোগ। হাসপাতালে ভর্তি স্বামী-স্ত্রী একে ...