Breaking News
Home / জাতীয় / হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব গোবিন্দ প্রামানিক বহিস্কার: নতুন মহাসচিব মৃত্যুঞ্জয় রায়

হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব গোবিন্দ প্রামানিক বহিস্কার: নতুন মহাসচিব মৃত্যুঞ্জয় রায়

 

স্টাফ রিপোর্টার:
বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিকের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা বিরোধী সহ জামায়াত বিভিন্ন অভিযোগ এনেছে সংগঠনটির একাংশ। শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতিতে সংবাদ সম্মেলনে হিন্দু মহাজোটের এই নেতারা তার বহিষ্কারের ঘোষণাও দেয়। এ কারণে তার বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়ম ও ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার অভিযোগে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। আর সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা. মৃত্যুঞ্জয় কুমার রায়কে নতুন মহাসচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে হিন্দু জোটের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব উত্তম কুমার দাস বলেন, গোবিন্দ প্রামাণিক সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ‘কটূক্তি করায় তারা বিব্রত’। গোবিন্দ প্রামাণিক সর্বদা স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির প্রশংসা করে ও আওয়ামী লীগের বিপক্ষে কথা বলে। বিষয়টি নিয়ে কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা বিভিন্ন সময়ে বিরক্তি প্রকাশ করেছে।’ তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি স্বরূপ এমন উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠীর সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের অভিযোগও রয়েছে। আমাদের অজান্তে সংগঠনের কর্মসূচিতেও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির লোকজন এসে উপস্থিত হতো। পরে জানতে পেরে নেতাকর্মীরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।
এছাড়াও সংগঠনের মাসিক চাঁদার পরিমাণ, আয়-ব্যয়ের হিসাব প্রকাশে গোবিন্দ নানা সময়ে ‘অস্বীকৃতি’ জানায় বলে অভিযোগ করেন হিন্দু মহাজোট নেতারা। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির অনুমোদন ছাড়া সদস্যপদ প্রদান, পদায়ন এবং জেলা-উপজেলার কার্যকরী কমিটি ‘ভেঙে নতুন কমিটি দেয়ায়’ গোবিন্দ প্রামাণিকের বিরুদ্ধে ক্ষুদ্ধ অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ।
আর ভারতের জাতীয় নাগরিকপঞ্জি-এনআরসি, রাম মন্দির ইস্যুতে বিতর্ক তৈরি করায় গোবিন্দ প্রামাণিক ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করেছেন’ বলে অভিযোগ করা হয়।
উত্তম কুমার দাস আরও বলেন, এই সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন মাত্র ব্যক্তির একগুয়েমি, স্বেচ্ছাচারিতা, ব্যবসায়ী মনোভাব, ব্যক্তিস্বার্থকেন্দ্রিক চিন্তার কারণে আজ পর্যন্ত এই সংগঠনটি শক্তিশালী অবস্থানে দাঁড়াতে পারেনি। মাত্র একজন নেতার স্বেচ্ছাচারিতা, নৈতিকস্খলন ও এক কর্মীর বিরুদ্ধে অন্য একজনকে লাগিয়ে দেয়া, অর্থ নিয়ে পদায়ন করা ইত্যাদি কারণে সংগঠনটি বারবার ভাঙনের মুখে পড়েছে।
‘এসবের পেছনে মাত্র একজন লোকই বরাবর দায়ী সে গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক। সে প্রতিষ্ঠাতাকালীন সময় থেকে এ বছরের ১৬ জানুয়ারি অবধি সংগঠনের মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছে।’
গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিকের ‘ব্যর্থ নেতৃত্বের’ কারণে ২০১৫-১৬ সময়কালে হিন্দু মহাজোটে ভাঙন দেখা দিলে সংগঠনের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে বলে জানান উত্তম। তখন জয়ন্ত কুমার সেন সভাপতির পদ ছেড়ে যান। গত বছরের ৬ ডিসেম্বর কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে গোবিন্দ প্রামাণিককে ডেকে আনা হয় জানিয়ে উত্তম বলেন, সেখানে তিনি তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের ‘জবাব দিতে পারেননি। এসব অভিযোগ খতিয়ে দেখতে হিন্দু মহাজোট নেতা তারক পদ রায়, বিমল কৃষ্ণ শীল, রাম কৃষ্ণ বিশ্বাস, ডা. হেমন্ত কুমার দাসকে নিয়ে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। গোবিন্দ প্রামাণিকের স্থলে নতুন মহাসচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে মৃত্যুঞ্জয় কুমার রায়কে।
এ ব্যাপারে হিন্দু মহাজোটের যুগ্ম মহাসচিব ডা. হেমন্ত দাস বলেন, “গোবিন্দ প্রামানিকের বহিস্কারের মধ্য দিয়ে হিন্দু মহাজোট সকল কলঙ্কমুক্ত হলো।”
তবে এসব বিষয়ে গোবিন্দ চন্দ্রের সাথে বারবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Please follow and like us:
error

About jahir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

নড়াইলবাসী কুরিরডোব মাঠে লাখো প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে ভাষা শহীদদের স্মরণ করবে

উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধিঃ মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় লাখো মোমবাতি জ্বেলে ...