Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / উত্তর কোরিয়ায় করোনায় আক্রান্তকে গুলি করে হত্যা

উত্তর কোরিয়ায় করোনায় আক্রান্তকে গুলি করে হত্যা

কোয়ারেন্টাইন পয়েন্ট থেকে বেরিয়ে গণ-শৌচাগারে যাওয়ায় উত্তর কোরিয়ায় বাণিজ্য দফতরের এক কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। সম্প্রতি চীন সফর থেকে ফেরার পর করোনোভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে তাকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল।

দেশটির দৈনিক ডং-এ ইলবো এক প্রতিবেদনে বলছে, গণ-শৌচাগারে যাওয়ার কারণে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় সরকারি ওই কর্মকর্তাকে গ্রেফতারের পর তাৎক্ষণিকভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়।

উত্তর কোরিয়া এখনও করোনা ভাইরাসের কোনও ঘটনা নিশ্চিত করতে পারেনি। তবে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় পূর্ব-সতর্কতা হিসেবে উত্তর কোরিয়ায় সামরিক আইন জারি করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট কিম জং উন।

শরীরে করোনার উপস্থিতি না পাওয়া গেলেও চীনাদের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে অথবা সম্প্রতি চীন ভ্রমণ করেছেন; এমন যেকোনও ব্যক্তিকে সম্পূর্ণ আলাদা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

শীর্ষ নেতার এমন নির্দেশ যারা অমান্য করবেন; বিশেষ করে অনুমতি ছাড়া কোয়ারেন্টাইন থেকে বের হলে যে কাউকে সামরিক আইনে শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে বলে ডিক্রি জারি করা হয়েছে উত্তর কোরিয়ায়। এদিকে চীন ভ্রমণ শেষে কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে বাড়ি যাওয়ার চেষ্টা করায় এক ব্যক্তিকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে পিয়ংইয়ং।

উত্তর কোরিয়ায় সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করে চলা খুবই কঠিন। এছাড়া দেশটিতে প্রত্যেক বছর অনেকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হলেও তা যাচাই করা যায় না। গত বছর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কিম জং উনের ব্যর্থ সম্মেলনের পর উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ এই নেতার জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তাকে নির্বাসনে পাঠানো হয় বলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। তবে পরে ওই কর্মকর্তাকে জনসম্মুখে কিম জং উনের পাশে দেখা যায়।

বুধবার পিয়ংইয়ংয়ের এক ঘোষণায় করোনা মোকাবেলায় কোয়ারেন্টাইনের সময় বাড়িয়ে ৩০ দিন করা হয়েছে বলে জানানো হয়। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারা এই ভাইরাসে সন্দেহভাজন আক্রান্তদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।

গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহানের একটি সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এরইমধ্যে বিশ্বের ২৮টি দেশে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬০ হাজার ৩৬৩ জন। আর প্রাণ গেছে এক হাজার ৩৬৭ জনের।

এদিকে এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ প্রাণহানি ঘটেছে বুধবার। ওইদিন দেশটিতে করোনা আক্রান্ত কমপক্ষে ২৫৪ জন মারা গেছেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভাইরাসের নামকরণ করেছে কোভিড-১৯ নামে। আরও লাখ লাখ মানুষ এ ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সূত্র : ডেইলি মেইল।

Please follow and like us:
error

About jahir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মার্কিন সেনা ঘাঁটিতে ফের ভয়াবহ রকেট হামলা

ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় কিরকুক প্রদেশের একটি সেনা ঘাঁটিতে রকেট হামলা চালানো হয়েছে। ওই ...