মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০২:১২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
কী কারণে মমতার নির্বাচনী প্রচারণায় নিষেধাজ্ঞা জারি লকডাউনের আওতায় থাকবে না যারা পাবজি গেম প্রেমীদের জন্য দেশের বাজারে এলো অপো এফ১৯ প্রো, পাবজি মোবাইল স্পেশাল বক্স ঝালকাঠিতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে গুলি, আহত-১, বন্দুক ও গুলি উদ্ধার, অাভিযুক্তের আত্মসমর্পন ঝালকাঠির নলছিটিতে সিটিজেন ফাউন্ডেশনের ইফতার সামগ্রী বিতরণ যখন টাইটানিক ডুবছিল তখন কাছাকাছি তিনটে জাহাজ ছিল। সেদিন আমি স্নানও করিনি, যদি ওই অবস্থায় দেখে ফেলে! সাকিবকে সাতে খেলানো ভালো লাগেনি হার্শার নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার সীমানা প্রাচীর হোসিয়ারী ব্যবসায়ীর দখলে আলীনগরে বৃদ্ধাকে বেদম পিটিয়েছে উচ্ছশৃঙ্খল মা-মেয়ে ও পুত্র ‘খালেদা জিয়ার মতো নেতাকে জেলে নিয়ে পুরলে তোমার মতো নুরুকে খাইতে ১০ সেকেন্ড সময়ও লাগবে না’ চুপি চুপি বিয়ে করে ফেললেন নাজিরা মৌ লকডাউনে বন্ধ থাকতে পারে শেয়ারবাজার কোরআনের ২৬ আয়াত বাতিলের আবেদন খারিজ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের ওপর হামলা

ব্রণের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎস

 

 

 

ব্রণ কি :-

ব্রণ (Acne vulgaris বা Acne) হচ্ছে আমাদের দেহেরের ত্বকের উপর যে অসংখ্য সুক্ষ্ম ছিদ্র (Follicle )থাকে তাদের একটি প্রদাহিক অবস্থা বা রোগ। সাধারণত মুখমন্ডল, গলা, বুক, পিঠের উপরিভাগ এবং হাতের উপরিভাগে ব্রণ হয়ে থাকে। এসব স্থানে ছোট ছোট দানা (Pimples), ছোট ছোট ফোড়া, Cyst এমনকি Nodule হতে পারে। ব্রণ সাধারণত মুখমন্ডলেই বেশি হয় বিশেষ করে গালে, নাকে, কপালে এবং থুতনিতে সবচেয়ে বেশী হয়ে থাকে।

ব্রণ কেন হয় :-

১). আমাদের দেহেরের ত্বকের উপর যে অসংখ্য সুক্ষ্ম Follicle বা ছিদ্র বা গর্ত আছে, এই গর্তের ভিতরে Sebaceous Glands নামক একপ্রকার গ্রহ্নি থাকে এবং এই গ্রহ্নি বা Gland  থেকে সব সময় Sebum নামক এক ধরনের তৈলাক্ত রস নিঃসৃত হয়। Hair Follicle বা লোমকূপ দিয়ে এই Sebum বের হয়ে ত্বকে ছড়িয়ে পড়ে বিধায় ত্বকে নরম, মসৃণ ও তৈলাক্ত ভাব আসে।

যদি কোনো কারনে Sebum-এর নিঃসরণ বেড়ে যায় এবং লোমের গোড়ায় থাকা Keratin (এক ধরনের প্রোটিনজাতীয় পদার্থ) , মৃত চামড়ার কোষ(Dead skin cell)ও ধুলাবালির সঙ্গে মিশে Hair Follicle বা লোমকূপের ছিদ্রপথ বা নির্গমনের পথ বন্ধ করে দেয়, তখন Sebum বের হতে না পেরে ভিতরে জমা হয়। এক সময় গ্রন্থিটা ফেটে যায় এবং Sebum বা তৈলাক্ত রস আশেপাশের টিস্যুতে ছড়িয়ে পড়ে। তখন, ব্যাকটেরিয়া এই তৈলকে ভেঙে টিস্যুতে ফ্যাটি এসিড উৎপাদন করে। এই ফ্যাটি এসিড ত্বকের ভেতরে প্রদাহ সৃষ্টি করে, ফলে চামড়ার মধ্যে দানার সৃষ্টি হয়। এটাই ব্রণ নামে পরিচিত।

 

২). টিনএজারদের ক্ষেত্রে Puberty বা বয়ঃসন্ধিকালে Androgen hormone উৎপাদন বেড়ে যায় এবং এই বাড়তি Androgen হরমোন  Sebaceous Gland কে আরো বেশী উদ্দিপ্ত করে আরো বেশী পরিমান Sebum বা তৈলাক্ত রস নিঃসরন বাড়িয়ে ব্রণ হওয়ার পথ তৈরি করে দেয়।

 

৩). মহিলাদের মাসিকের সময় Progesterone হরমোন উৎপাদন কমে যায় এবং Estrogen হরমোন উৎপাদন বেড়ে যায় এবং এই বাড়তি Estrogen হরমোন  Sebaceous Gland কে আরো বেশী উদ্দিপ্ত করে আরো বেশী পরিমান Sebum বা তৈলাক্ত রস উৎপাদন বাড়িয়ে ব্রণ হওয়ার পথ সুগম করে দেয়।

 

৪). মহিলাদের গর্ভাবস্থায় বিশেষ করে ১ম ও ২য় ষ্টেজ(Trimesters)- এ Androgen হরমোন উৎপাদন বেড়ে যায় এবং এই বাড়তি Androgen হরমোন  Sebaceous Gland কে আরো বেশী উদ্দিপ্ত করে আরো বেশী পরিমান Sebum বা তৈলাক্ত রস নিঃসরন বাড়িয়ে ব্রণ হওয়ার পথ তৈরি করে দেয়।

 

৫). অনেক সময় মহিলাদের ক্ষেত্রে স্বাভাবিকের চেয়ে Androgen হরমোন কমে গেলে এবং Testosterone হরমোন বেড়ে গেলেও ব্রণ দেখা যায়।

 

৬). অনেক ক্ষেত্রে জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি (Contraceptives pill) খেলেও ব্রণ হতে পারে কেননা জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি Progesterone ও Estrogen হরমোন  দ্বার তৈরী । সুতরাং দেহে বাড়তি Estrogen হরমোন  জমা হয়  আর এই বাড়তি Estrogen হরমোন  Sebaceous Gland কে আরো বেশী উদ্দিপ্ত করে আরো বেশী পরিমান Sebum বা তৈলাক্ত রস উৎপাদন বাড়িয়ে ব্রণ হওয়ার পথ সুগম করে দেয়।

 

৭). Corticosteroids হল এক ধরনের কৃত্রিম হরমোন যা বর্তমানে অনেক রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃৎহয়। এই Corticosteroids-ও Sebaceous Gland কে উদ্দিপ্ত করে Sebum বা তৈলাক্ত রস উৎপাদন বাড়িয়ে ব্রণ হওয়ার পথ তৈরী করে দেয়।

 

 

৮).  কসমেটিক, বিশেষ করে ঘন ঘন ময়েশ্চারাইজিং লোশন ব্যবহার বা কড়া মেকআপের প্রভাবে ব্রণ হতে পারে।

 

৯). এছাড়াও – অত্যধিক গরম বা বেশি ঘর্মাক্ত হওয়া, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাব, তেলতেলে চুল ও মাথার খুশকি, বেশি আবেগ,  মানসিক চাপ ও পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়া, একদিকে কাত হয়ে ঘুমানো বা হাতের ওপর মুখ রেখে ঘুমানো, বংশগত কারণ,অতিরিক্ত চকলেট এবং বাদাম খেলে , খিঁচুনি বা মানসিক রোগের ঔষধ ইত্যাদির প্রভাবে ব্রণ হতে পারে।

 

ব্রণ কাদের বেশী হয় :-

ব্রণ প্রথম দেখা দেয় বয়ঃসন্ধির সময়। ছেলেদের ১৬ থেকে ১৯ বছর বয়সে ও মেয়েদের ১৪ থেকে ১৬ বছর বয়সে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেশি দেখা যায়। তবে যে কোনো বয়সেই তা হতে পারে। ৮০ শতাংশের ক্ষেত্রে ২০ বছর বয়সের মাঝামাঝি সময় থেকে ব্রণ হওয়ার হার কমে যেতে থাকে। তবে অনেকের ৩০-৪০ বছর বয়স পর্যন্ত ব্রণ হওয়ার প্রবণতা থেকেই যায়।

 

ব্রণের ধরন :

১).সাদা মাথাযুক্ত দানা/ফুসকুড়ি – (Closed plugged pore/ follicle)

২).কালো মাথাযুক্ত দানা/ফুসকুড়ি – (Open plugged pore/ follicle)

৩).লালচে ছোট ছোট গোটা/Bump – (Papule)

৪).পুঁজপূর্ণ গোটা/Pimples – (Pustule)

৫).বড় বড় শক্ত ব্যথা যুক্ত Lump –  (Nodule)

৬).পুঁজপূর্ণ বড় বড় ব্যথা যুক্ত Lump – (Cystic lesion)

 

ব্রণের (Acne) প্রকারভেদ :

ব্রণ প্রধানত ২ প্রকার  যথা :-

ক). Acne vulgaris (সাধারন ব্রণ)

খ). Acne rosacea (সাধারনত ৩০-৫০ বৎসর বয়সে দেখা যায়)

 

ব্রণ হলে করনীয় :

ক).দিনে কমপক্ষে ২ বার হালকা সাবান বা ফেসওয়াশ দিয়ে ভাল করে মুখমন্ডল ধৌত করতে হবে।

খ).কখনোই ব্রণে হাত দেয়া যাবে না।

গ). তৈল ছাড়া ওয়াটার বেইসড কসমেটিকস বা মেকআপ ব্যবহার করা ভাল।

ঘ). মাথা খুশকিমুক্ত রাখতে হবে।

ঙ).চুলে এমন ভাবে তৈল দেওয়া যাবে না যাতে মুখটাও তেল তেলে হয়ে যায়।

চ). ব্যবহৃৎ তোয়ালে বার বার ধুয়ে ব্যবহার করতে হবে।

ছ). রাতে পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে।

জ). মানসিক চাপ ও অতিরিক্ত রাগ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে।

ঝ).প্রোটিন ও ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার বেশী করে খেতে হবে।

ঞ).প্রচুর পরিমাণে শাক-সবজি, ফল ও পানি পান করা ভাল।

ট).ঝাল, মশলাযুক্ত ও তৈলাক্ত খাবার পরিহার করা ভাল।

ঠ).ডেইরি প্রোডাক্ট পনির, দুধ এবং দই কম খেতে হবে।

ড).রৌদ্র এড়িয়ে চলতে হবে।

 

ব্রণের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা :

 

প্রথম পর্যায়ে Acne vulgaris –এর ঔষধ

 

১). Calcium Sulphuratum Hahnemanni – 200

      ৫বড়ি করে ১দিন পরপর।

২). Acidum Arsenicosum – 200

      ৫বড়ি করে প্রতিদিন।

৩). Acidum Hydrofluoricum – 200

       ব্রণ যদি Scar ষ্টেজ ধারন করে  তবে ৫বড়ি করে ১দিন পরপর ১ ও ২ নং ঔষধের

সাথে চলবে।

 

প্রথম পর্যায়ে Acne rosacea এর ঔষধ

 

১). Lycoperdon – 200

     ৫বড়ি করে সপ্তাহে ২দিন।

২). Stibium Crudum – 6

      ৫বড়ি করে প্রতিদিন ২ বার।

৩). Acidum Hydrofluoricum – 200

       ব্রণ যদি Scar ষ্টেজ ধারন করে  তবে ৫বড়ি করে ১দিন পরপর ১ ও ২ নং ঔষধের

সাথে চলবে।

 

২য় পর্যায়ে Acne vulgaris –এর ঔষধ

 

১). Phosphoricum acidum – 200

      ৫বড়ি করে ১দিন পরপর।

 

২য় পর্যায়ে Acne rosacea এর ঔষধ

 

১). Arsentribromid – 200

৫বড়ি করে প্রতিদিন ২ বার।

 

 

লেখক

লেকচারার ডা: মোহাম্মদ তারিকুল ইসলাম

আনসার হোমিও কমপ্লেক্স

ডি.আই.টি, নারায়নগঞ্জ

Please Share This Post in Your Social Media

দেশের সংবাদ নিউজ পোটালের সেকেনটের ভিজিটর

38443288
Users Today : 243
Users Yesterday : 1256
Views Today : 1681
Who's Online : 38
© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone