'পাঠকই লেখক'

হলফনামা ও নোটারি কেন করবেন?...

৯:২০ অপরাহ্ণ, জুলা ১৯, ২০১৮

46 Views

আমরা বিভিন্ন সময় না বুঝে না জেনে কাগজপত্র নোটারি ও হলফনামা সম্পাদন করি। কিন্তু কেন নোটারির বা হলফনামা সম্পাদন প্রয়োজন হয় তা অনেকেই জানে না।  ১। কোনো দলিলের সত্যতা প্রমাণ করা, সত্যায়িত অথবা প্রত্যায়ন করা। ২। পেমেন্ট অথবা ডিমান্ডের ক্ষেত্রে অধিকতর নিরাপত্তার জন্য কোনো প্রমিজরি নোট, হুন্ডি অথবা বিল অব এক্সচেঞ্জ উপস্থাপন করা। ৩। কোনো প্রমিজরি নোট, হুন্ডি অথবা বিল অব এক্সচেঞ্জ গ্রহণে অস্বীকৃতি বা নন-পেমেন্টের মাধ্যমে সৃষ্ট ডিজঅনারের চিহ্ন দেওয়া বা ঘোষণা করা অথবা নেগোশিয়েবল ইনস্ট্রুমেন্ট অ্যাক্ট-১৮৮১-এর অধীনে অধিকতর নিরাপত্তার জন্য নোটিশ জারি করা। ৪। শপথ/হলফ পরিচালনা করা অথবা
বিস্তারিত

রজঃস্রাব নিয়ে লজ্জা পাওয়ার দিন শেষ...

৬:৫৫ পূর্বাহ্ণ, জুলা ১৫, ২০১৮

306 Views

এমন ধর্ম কমই আছে, যে ধর্ম মেয়েদের ঋতুস্রাবকে অপবিত্র বলেনি, আর ঋতুস্রাবের কারণে মেয়েদের অশুচি বলেনি। হিন্দুরা তো রজঃস্রাবের সময় বাড়ি থেকে বের করে দিত মেয়েদের। বাড়ির বাইরেই থাকতে হতো সাত দিন। কাউকে স্পর্শ করার অধিকার তাদের ছিল না। যাকে স্পর্শ করবে, তারই নাকি অমঙ্গল হবে। অচ্ছ্যুতের মতো জীবন তাদের যাপন করতে হতো। মুখ লুকিয়ে রাখতে হতো পাপীর মতো, অপরাধীর মতো। খ্রিস্টানরাও রজঃস্রাব হলে মেয়েদের অপবিত্র বলতো। বলতো, যে লোক স্পর্শ করবে রজঃস্রাবরত মেয়েকে, স্পর্শ করবে সেই মেয়ের বিছানা বালিশ—সে নিশ্চিতই অপবিত্র করবে নিজেকে। অষ্টম দিনের দিন ঋতুস্রাব শেষ হলে
বিস্তারিত

104 Views

আফরোজা সোমা শিক্ষক-লেখক, ঢাকা হিজড়াদেরকে ‘বিরক্তি’ বা ‘আতঙ্ক’ হিসেবে দেখেন না এমন মানুষ হয়তো খুঁজে পাওয়া মুস্কিল। বিশেষত, ঢাকায় তো কথাই নেই। সাধারণ মানুষের চলাচলের জায়গা যেমন – পার্ক, রাস্তা ও গণপরিবহণে রয়েছে হিজড়াদের সরব উপস্থিতি। মুখের সামনে অতর্কিতে হাত বাড়িয়ে অথবা গায়ের উপরে প্রায় পড়ি-পড়ি হয়ে তারা টাকার আবদার ধরেন। নারী-পুরুষ বা তরুণ-তরুণীকে একত্রে পেলেই তাদেরকে হিজড়ারা স্বামী-স্ত্রী বা প্রেমিক-প্রেমিকা ঠাওরে রসালো মন্তব্য ছোঁড়েন এবং জবরদস্তিমূলক টাকা আদায় করেন। আর টাকা না দিলে অশ্লীল-অশ্রাব্য ভাষায় চেঁচামেচির ঘটনাও নিত্য ঘটছে। টাকা না দিলে, এমনকি কখনো-কখনো পুরুষের স্পর্শকাতর অঙ্গের দিকে হাত
বিস্তারিত

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মহোদয়,...

৭:৪২ পূর্বাহ্ণ, জুলা ১৩, ২০১৮

46 Views

মহোদয়, আমাদের দেশের অধিকাংশ যুবক উচ্চশিক্ষা অর্জন করেও বেকার আর কিছু যুবক দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভাবে ইচ্ছেমত প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে না পারে বেকার অবশেষে তারা লিপ্ত হচ্ছে অবৈধ ব্যবসা, চোরাচালান, মাদক, সন্ত্রাস, চুর, ডাকাত, বখাটে আর তারা করছে ধর্ষণ, ইভটিজিং। তবে কিছু পরিবারের অসচেতনের কারণেও হচ্ছে। অনেক শিক্ষার্থীর হাতের কাছে প্রতিষ্ঠান না থাকায় কেউবা শহরের বাহিরে কেউবা দেশের বাহিরে উচ্চশিক্ষা অর্জন  করতে যাচ্ছে যেখানে ব্যাচেলর জীবনে খারাপ পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে। বাঙ্গালি প্রতিভা শক্তিতে পৃথিবী বিখ্যাত, তাই আমাদের তরুণ সমাজকে ধংস করার জন্য বিদেশিরা আমাদের কাছে মাদক প্রচার করে তরুন সমাজকে
বিস্তারিত

69 Views

এখন আমাকে নখ বড় রাখার জন্য খাচ্চর নামক শব্দ টা শুনতে হয় না। এখন আমার একটু দেরিতে ঘুম ভাঙ্গলে শুনতে হয় না আমার বাবা মা আমাকে কিছু শিখায় নি। এখন আমার জর আসলে কেউ বলে না বেড়াইম্মা মাইয়া বৌ করে ঘরে আনছি। এখন আমি ভাত রান্না করতে গেলে কেউ এসে বলে না চাল কি আমার বাবা বাড়ি থেকে আনছি কিনা। এখন আমি বারান্দায় একটু মন খারাপ করে দাড়ালে কেউ বলে না আমি বাইরের পুরুষ মানুষ দেখার জন্য দারাইছি। এখন আমার মায়ের ফোন আসলেই কেউ বলে না এত বারবার মেয়ের খোজ
বিস্তারিত




উপদেষ্টা পরিষদ:

১। ২।
৩। জনাব এডভোকেট প্রহলাদ সাহা (রবি)
এডভোকেট
জজ কোর্ট, লক্ষ্মীপুর।

৪। মোহাম্মদ আবদুর রশীদ
ডাইরেক্টর
ষ্ট্যান্ডার্ড ডেভেলপার গ্রুপ

প্রধান সম্পাদক:

সম্পাদক ও প্রকাশক:

জহির উদ্দিন হাওলাদার

নির্বাহী সম্পাদক
উপ-সম্পাদক :
ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলাম সবুজ চৌধুরী
বার্তা সম্পাদক :
সহ বার্তা সম্পাদক :
আলমগীর হোসেন

সম্পাদকীয় কার্যালয় :

১১৫/২৩, মতিঝিল, আরামবাগ, ঢাকা - ১০০০ | ই-মেইলঃ dsangbad24@gmail.com | যোগাযোগ- 01813822042 , 01923651422

Copyright © 2017 All rights reserved www.deshersangbad.com

Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com

Translate »