শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ১০:৪৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বিচারের বাঁণী নিভৃতে কাঁদে তানোরে সাজানো মামলা নিয়ে তোলপাড়  ! দেশের প্রথম খানসামা থানায় করোনা যোদ্ধা কনস্টেবল নাজমুল হোসেন স্মৃতি লাইব্রেরীর ভিত্তি স্থাপন মসজিদ নির্মাণে অনুদান প্রদান নারীর স্বাবলম্বী ও স্বাধীনতার নামে পণ্য হিসেবে ব্যবহার! দায়ী কে? গাইবান্ধায় ধান মাড়াই মেশিনের চাপায় চালকের মৃত্যু এস এ চয়েস মিউজিকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরী  বরিশালে ভ্রাম্যমাণ আদাতের পৃথক অভিযানে জরিমানা বরিশালে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতার উদ্যোগে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ এলজিইডির প্রকৌশলীকে মারধর করলো ঠিকাদার যশোরের বেনাপোলে ভারতীয় গাঁজাসহ আটক ১ দেশে করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু রোজার মহিমায় মুগ্ধ হয়ে ভারতীয় হিন্দু তরুণীর ইসলাম গ্রহণ আজ জুমাতুল বিদা,তাই বিচ্ছেদের রক্তক্ষরণ চলছে মুমিন হৃদয়ে ! পুলিশকে চাঁদা দিয়ে না খেয়ে রোজা রাখলেন রিকশাওয়ালা ১৩৫ বছর বয়সেও খালি চোখে কোরআন তেলাওয়াত করেন সিলেটের তৈয়ব আলী

বরিশালে মাছের খাদ্য মুরগীর বিষ্ঠা \ স্বাস্থ্যঝুঁকি

বরিশাল ব্যুরো \ সরকারী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছের খাদ্য হিসেবে বরিশালের অধিকাংশ মাছের ঘেরে মৎস্যচাষীরা প্রকাশ্যেই ব্যবহার করছেন ক্ষতিকর মুরগীর বিষ্ঠা। যা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। বিষ্ঠার কারণে ক্ষতিকর দিক বিবেচনায় বর্তমানে অনেকেই চাষের মাছ খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন।
সূত্রমতে, জেলার ছোট-বড় কয়েক হাজার খামারে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের চাষ করা হয়ে থাকে। ওইসব খামারের মাছ স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে প্রতিদিনই দেশের বিভিন্নস্থানে রপ্তানি হয়ে থাকে। মৎস্যচাষে সাফল্যের স্বীকৃতি হিসেবে জেলার অনেক চাষী ইতোমধ্যে পুরস্কারও পেয়েছেন। তবে মাছের খাদ্যমূল্য অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়ায় এখন মাছের খাদ্য হিসেবে মুরগীর বিষ্ঠা ব্যবহার করছেন স্থানীয় মৎস্যচাষীরা। কম দামে পাওয়া মুরগীর বিষ্ঠা জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর জেনেও খাদ্য হিসেবে তা মাছের খামারে ব্যবহার করছেন চাষীরা।
জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক চিকিৎসক জানান, মুরগীর বিষ্ঠার এন্টিবায়োটিক রেসিডিও, ড্রাগ রেসিস্টেন্স ব্যাকটেরিয়াসহ বিভিন্ন ধরণের ডিজি ইনফেকট্যান্ট থাকে। মাছের খাদ্য হিসেবে মুরগীর বিষ্ঠা ব্যবহারের ফলে সেই মাছ খাওয়ার ফলে সেগুলো মানবদেহে প্রবেশ করে। যা মানবদেহের স্বাস্থ্যের জন্য প্রচন্ড ক্ষতিকারক। তাছাড়া মুরগীর বিষ্ঠায় থাকা অতিরিক্ত ক্যালসিয়াম, ফসফরাস পুকুরের পরিবেশ ও পানি নষ্ট করে। ওই উপাদানগুলো পানিতে অক্সিজেনের স্বল্পতা ঘটানোর মাধ্যমে মাছের স্বাস্থ্যের ক্ষতি ও রোগজীবাণু বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।
শেবাচিম হাসপাতালের এক চিকিৎসক বলেন, মুরগীর খাবারে নানারকম এন্টিবায়োটিক ও কেমিক্যাল থাকায় দীর্ঘদিন ব্যবহার করায়, সেগুলো বিষ্ঠার মাধ্যমে মাছের শরীরে প্রবেশ করে। এগুলো সহজে ধ্বংস হয়না। তাই এগুলো মাছের মাধ্যমে পরে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে ক্যান্সারসহ নানান প্রাণঘাতি রোগের বিস্তার ঘটায়। এজন্য মাছের খাবার হিসেবে মুরগীর বিষ্ঠার ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে সরকার।
জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ নুর আলম জানান, নিরাপদ খাদ্যের জন্য মুরগীর বিষ্ঠা মাছের খাবার হিসেবে ব্যবহার করাটা জনস্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তবে মুরগীর বিষ্ঠা কম্পোস্টিং এর মাধ্যমে মাছের খাবার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

Please Share This Post in Your Social Media


বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

বঙ্গবন্ধু কাতরকণ্ঠে বলেন, মারাত্মক বিপর্যয়

https://twitter.com/WDeshersangbad

© All rights reserved © 2011 deshersangbad.com/
Design And Developed By Freelancer Zone